খান জাহান আলীর ইসলাম প্রচার ও বাংলার হিন্দু মুসলমান

খুলনার খান জাহান আলীর মাজার ও ষাড় গম্বুজ মসজিদের কথা কে না জানে। প্রতি বছর খান জাহান আলীর ওরস পালিত হয় এবং লক্ষাধিক ধর্মপ্রাণ মুসলমান সেই ওরসে যোগদান করেন। খান জাহান আলী ১৪১৮ খ্রিষ্টাব্দে বাংলা আক্রমণ করে এখানে ইসলাম প্রচার ও স্থানীয় প্রশাসক হিসেবে শাসন কার্য শুরু করেন। তাকে নিয়ে নানা রকম বীরত্বপূর্ণ কিংবদন্তি চালু খাকলেও প্রতারিত করে ধর্মান্তরিত করার ইতিহাস লোকচক্ষুর আড়ালেই রাখা হয়। অথচ অনেকখানি গুরুত্ব বহন করে এই ইতিহাস আমাদের সাম্প্রদায়িক সমাজকে বুঝতে ও জানতে।

মুঘল আমলে স্থানীয় হিন্দুরা সরকারী দপ্তরে নিজেদের স্থান পেতে মুসলিম আমলাদের সঙ্গে সখ্যতা করতে শুরু করে। এতে করে প্রশাসনে তাদের সুযোগও মিলে যায়। খান জাহান আলীর একজন হিন্দু কর্মচারী ছিলেন নাম গোবিন্দলাল রায়। একদিন রোজার দিন খান জাহান ফুলের ঘ্রাণ নিতেছিল, গোবিন্দলাল জানত মুসলিম শাস্ত্র অনুযায়ী ঘ্রাণে রোজা ভঙ্গ হবার কথা আছে। সেকথা খান জাহানকে মনে করিয়ে দিলে খান জাহান আলী বিব্রত হোন। পরে ঈদের দিন অতিথি আপ্যায়নের জন্য খান জাহান আলী গরুর মাংস পরিবেশ করলে গোবিন্দলাল নাকে রুমাল চেপে ধরেন। খান জাহান আলী তখন গোবিন্দলালকে ঘ্রাণে অর্ধভোজন স্মরণ করিয়ে দিয়ে তাকে ইসলাম গ্রহণের আহ্বান জানান। কুলিন ব্রাহ্মণ সমাজ গোবিন্দলালের গরুর মাংসের ঘ্রাণ নাকে যাবার কথা জানতে পেরে তাকে জাতিচ্যুত করে। গোবিন্দলালের আর কোন উপায় সনাতন হিন্দু সমাজ তখন আস্ত রাখেনি। অগত্যা মুসলিম মনিবের প্রতারণার কাছে নতি স্বীকার করে তিনি ইসলাম গ্রহণ করে নতুন নামধারণ করেন ‘আবু তাহের’। ( দেখুন: সেরা মুসলিম মনীষীদের জীবনকথা-১, নাসির হেলাল, সুহৃদ প্রকাশন,/ রবীন্দ্রনাথ ও ঠাকুর বাড়ীর ইতিকথা, সৈয়দা মকসুদা হালিম/ যশোহর খুলনার ইতিহাস. ১ম খন্ড ৩৩৩ পৃষ্ঠা, শ্রী সতীশ চন্দ্র মিত্র, /সুন্দরবনের ইতিহাস, ২য় খন্ড, ১১৮ পৃষ্ঠা-এ.এফ.এম. আবদুল জলীল)।

আবু তাহেরে মাধ্যমেই ইতিহাসের বিখ্যাত ‘পীরালি ব্রাহ্মণ’ বলতে আমরা যা বুঝি তার সূচনা হয়েছিল। গোবিন্দলাল ইসলাম গ্রহণ করে আবু তাহের হওয়ার পর অতি ধার্মীক ও নিষ্ঠাবাণ মুসলিম হওয়ায় খান জাহান আলী তাকে ‘পীর অলী’ বলে আখ্যা দেন যা কালক্রমে অপভ্রংশ হয়ে ‘পীরালি’ নামকরণ হয়ে উঠে। এদের সূত্রেই ‘পীরালি ব্রাহ্মণ’ হয়ে উঠে সমাজচ্যুত অভিশপ্ত এক সম্প্রদায়। বংশের কেউ গোবিন্দলালের মত মুসলিম হলে তার দায়ে বাকীদেরও একইভাবে সমাজচ্যুত করে ছাড়ত কুলিণ ব্রাহ্মণ সমাজ। ব্রাহ্মণদের এই সমাজচ্যুতের ঠেলায় বাংলায় ব্রাহ্মণ ক্ষৈত্রিয় শূন্য হয়ে যাবার প্রমাণ মধ্যযুগের কবিতায় পাওয়া যায়। যেমন-

পীরাল্যা গ্রামেতে বৈসে যবেত যবন।/উচ্ছন্ন করিল নবদ্বীপের ব্রাহ্মণ।।/ব্রাহ্মণ জবনে বাদ যুগে যুগে আছে।/বিষম পীরাল্যা গ্রাম নবদ্বীপের কাছে।।“

( দেখুন: সেরা মুসলিম মনীষীদের জীবনকথা-১, নাসির হেলাল, সুহৃদ প্রকাশন)।

নওমুসলিম আবু তাহের স্বজাতির এই পাষান্ড আচরণে ক্ষুব্ধ ছিলেন। উপরন্তু ইসলাম গ্রহণ করায় তাকে খান জাহান আলী বিপুল ধনসম্পদের মালিক বানিয়ে দেন। তার নামে কয়েকটি জাইগির পাইয়ে দেন। গুরুর দেখনো পথে তিনিও হিন্দু কলিণ পরিবারগুলোকে প্রতারণা করে জোরপূর্বক ইসলাম গ্রহণের চেষ্টা করেন এবং সফল হতে থাকেন। কামদেব ও জয়দেব নামের দুই ভাই আবু তাহরের দপ্তরে চাকরি করতেন। এই দুই ভাই ছিল আবু তাহেরের বিশেষ নেক নজরে। পরবর্তীতে এই দুইভাইকে গরুর মাংসের ঘ্রাণ দিয়ে ‘জাত মেরে’ বাইরে সেটা প্রচার করে সনাতন হিন্দু সমাজের কাছে তাদের জাতিচ্যুতির প্রমাণ দেখান। তৎক্ষণাৎ হিন্দু সমাজ কামদেব ও জয়দেবসহ তাদের আরো দুই ভাইকে সমাজচ্যুত করে। অন্য দুইভাই কোন ‘অপরাধ’ না করেও একই ফল লাভ করে। কামদেব ও জয়দেব ইসলাম গ্রহণ করে যথাক্রমে কামালউদ্দিন খানচৌধুরী ও জামালউদ্দিন খানচৌধুরী নামধারণ করেন। তাদের অপর দুইভাই হিন্দু থেকে যাবার পরও ‘পীরালি ব্রাহ্মণ’ হিসেবে চিহিৃত হয়ে একঘরে হয়ে যান। তাদের ছেলেমেয়েদের বিয়ে দেয়াই কঠিন হয়ে পড়ে। দেখা গেছে এই কঠিন অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে পরবর্তীকালে অনেকে স্বেচ্ছায় ইসলাম গ্রহণ করেছিল। খান জাহান আলী বা আবু তাহেরের মত নওমসুলিমরা নব মুসলিমকে প্রচুর ধনসম্পদসহ শাসনকার্যেও স্থান দিয়ে সামাজিকভাবে উচু তলায় তাদের তুলে দিতেন। বাংলায় সুফিদের হাতে ধর্মান্তকরণের এই হচ্ছে একটি দগদগে চিত্র।

ইতিহাসে বাংলার এই সময় যে ধর্মান্তরিত করার রাজনৈতিক ও ধর্মীয় হিংসার সূচনা হয়েছিল তা থেকে রক্ষা করতে আমরা তাই দেখতে পাই বৈষ্ণব ধর্মের প্রবক্তা শ্রীচৈতন্যদেবে আগমণ ঘটে। হিন্দু ধর্মের সংস্কার ঘটিয়ে তিনি এইসব ‘জাতিচ্যুত পীরালি ব্রাহ্মণ ও ক্ষৈত্রিয়সহ অন্যান্য হিন্দুদের রক্ষা করেছিলেন।(দেখুন: খুলনা জেলায় ইসলাম, ৬৯ পৃ.-মুহাম্মদ আবূ তালিব)।

ব্রাহ্মণ সমাজ নৃশংস ছিল বলেই খান জাহান আলী মত দস্যুরা তার সুযোগ নিয়েছিলেন মাত্র। খান জাহান আলীদের যে প্রক্রিয়ায় ধর্মান্তরিত করে গোবিন্দলাল থেকে আবু তাহেরে রূপান্তরিত করেছিলেন তাতে নবদিখ্যিত মুসলিমদের মধ্যে ছিল তাদের পরিত্যাগ করে আসা ধর্ম ও সমাজ সম্পর্কে ক্ষোভ, প্রতিশোধ আর জাতিচেতনা। যে কারণে আমরা দেখতে পাই আবু তাহের একইভাবে অন্যান্য বর্ণহিন্দুদের চালাকি করে তাদের ইসলাম গ্রহণে বাধ্য করেন। সঙ্গে বৈষিক লোভ দেখিয়ে তাদের বশে আনে। এতে করে বাংলায় হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে মুঘল আমলেই যে একটা অসহিষ্ণু সম্পর্ক ও শত্রুতার সম্পর্ক গড়ে উঠে সেটা সহজেই অনুমেয়। আবু তাহের দেশীয় বাঙালী হিন্দু হলেও তার উত্তরসূরীরা এইসব হিংসার কারণে নিজেদের খান জাহান আলীদের মত আফগান কিংবা তূর্কী পুরুষদের বংশধর বলে নিজেদের বিশ্বাস করত। মাওলানা আকরাম খাঁ ছিলেন ‘পীরালী’ মুসলিম’। তার পূর্বপুরুষ এইভাবে ব্রাহ্মণ থেকে মুসলিম হয়েছিলেন। আশ্চর্য যে আকরাম খানদের বংশধররা নিজেদের বাঙালী বলে স্বীকার করতেন না! নিজেদের মনে করতেন বহিরাগত! এর ভয়ংকর ও লজ্জাজনক চিত্র আমরা দেখতে পাই ইংরেজ আমলে। যখন গোটা ভারতবর্ষে অসহযোগ আন্দোলন চলছে তখন ভারতীয় সাধারণ মুসলিমরা এসব থেকে বিচ্ছিন্ন। উল্টো তুরষ্কের খেলাফত রক্ষা করতে তারা ‘খিলাফত’ আন্দোলন শুরু করেছিল। কোথায় স্বদেশের মুক্তির জন্য অসহযোগ আন্দোলন, কোথায় স্বদেশী আন্দোলন আর কোথায় তুরষ্কের খলিফার সিংহাসন রক্ষার জন্য আন্দোলন! এই শূন্যতা, এই অন্তঃসারশূন্য ভাবাবেগ যে ধর্মান্তরিত মুসলিমদের চিন্তা জগতকে আচ্ছান্ন করে রেখেছে তার দায় যেমন খান জাহান আলীদের মত জিহাদী দস্যুদের তেমনি নৃশংস ব্রাহ্মণ সমাজের। কোন কোন ক্ষেত্রে তাদেরই দায়টা বেশি।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৫ thoughts on “খান জাহান আলীর ইসলাম প্রচার ও বাংলার হিন্দু মুসলমান

  1. এই পীরালি ব্রাহ্মণেরা ঠিক
    এই পীরালি ব্রাহ্মণেরা ঠিক কীভাবে ঠাকুর পরিবারের সাথে সম্পর্কিত?? যতদূর জানি, তারা নাকি ঠাকুরদের পূর্বপুরুষ। জানাবেন একটু

    1. একটা বই থেকে তুলে দিলাম-
      একটা বই থেকে তুলে দিলাম- রবীন্দ্রনাথের পূর্ব পুরুষেরা ছিলেন রাঢ়ী শ্রেণীর শাণ্ডিল্য গোত্রের ব্রাক্ষ্মণ। এক সময় বৌদ্ধ ধর্মের প্রভাবে বঙ্গদেশের পূর্বাংশ ব্রাক্ষণশূন্য হয়ে পড়ে। পরবর্তীকালে পুনরায় হিন্দুধর্ম প্রাধান্য ও বিস্তার
      লাভ করলে খ্রিষ্টীয় অষ্টম শতাব্দীতে হর্ষবর্ধনের পুত্র জয়ন্ত “আদিশুর ” নাম ধারণ করে গৌড়ের সিংহাসনে বসেন। তিনিই বৈদিকমতে যজ্ঞাদি অনুষ্ঠান ও বিবিধ সংস্কার বা স্মৃতি সংহিতার বিধান মতে পূজা অনুষ্ঠান পালনের জন্য সুদূর কনৌজ থেকে ‘পঞ্চব্রাক্ষণের’ আমদানি করেছিলেন। এই পঞ্চ-ব্রাক্ষ্মণের মধ্যে ক্ষিতীশের পুত্র ভট্ট নারায়ণ অন্যতম। এই ভট্টনারায়ণই ঠাকুর পরিবারের আদি পুরুষ ।( ঠাকুরবাড়ির কথাঃ শ্রী হিরন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায় )
      আদিশূর এইসব ব্রাক্ষ্মনদের ভরণপোষণের ব্যবস্থাও করেছিলেন। সেই ব্যবস্থা অনুযায়ী ভট্টনারায়ণ ও তাঁর পাঁচপুত্র একটি করে গ্রামের অধিকারী হন। বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস প্রণেতা নগেন্দ্রনাথ বসু বলেন, ” জয়ন্তই পঞ্চ গৌড়েশ্বর হয়ে আদিশুর উপাধি গ্রহণ করেন। আদিশুর স্বীয় জামাতা জয়পীড়ের সাহায্যে বিশেষ ধুমধাম করে কনৌজ থেকে ‘পঞ্চব্রাক্ষ্মন’ ও ‘পঞ্চ কায়স্থ আনেন। ( সুন্দরবনের ইতিহাস–আবদুল জলীল )।ব্রাক্ষণগণ যে যে গ্রাম পেয়ে বসতি স্থাপন করেন, সময়ের বিবর্তনে সেই গ্রামের নাম তাঁদের বংশীয় উপাধিতে পরিণত হয়। যেমন, ভট্টনারায়ণের প্রথম পুত্র পেয়েছিলেন, বন্দ্যঘটি গ্রাম।তারা হলেন, বন্দ্যেগাঁই । তাদের উত্তর পুরুষগন পরবর্তীকালে বন্দ্যোপাধ্যায় হিসেবে পরিচিত হন। তেমনি অপর পুত্র কুশারী গ্রাম পেয়ে হলেন ‘কুশারী গাঁই’বা কুশারী হিসেবে পরিচিত হলেন।
      ঠাকুর পরিবার এই কুশারীশাখা থেকে এসেছে। বঙ্গের ইতিহাস রচয়িতা ব্যোমকেশ মুস্তাফী এই অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তৎকালীন যশোর জেলার অন্তর্গত খুলনা মহকুমার (খুলনা স্বতন্ত্র জেলা হিসেবে স্বীকৃতি পায় ১৮৮২ খ্রিস্টাব্দে।) আলাইপুরের পূর্বদিকে “পিঠাভোগে” কুশারীদের নিবাস ছিল। যশোর-খুলনার ইতিহাস রচয়িতা সতীশ্চন্দ্র মিত্র এই অভিমত ব্যক্ত করেন। কোন কোন গ্রন্থকার “চেঙ্গুটিয়া”পরগনার পেড়লী ” উল্লেখ করেন। ঐতিহাসিক তথ্যানুযায়ী ভট্টনারায়ণ থেকে বিংশ পুরুষ জগন্নাথ কুশারী পর্যন্ত “পিঠাভোগে” আর সম্ভবত বংশের অন্য শাখা “পেড়লীতে” (বর্তমান নড়াইল জেলার অন্তর্গত ) বসবাস করতেন।
      নিম্নে ভট্টনারায়ণ থেকে জগন্নাথ কুশারী পর্যন্ত বংশ-সিঁড়ি দেখানো হলঃ

      ক্ষিতীশ।
      ১, ভট্টনারায়ণ >২, নানু বা নসিংহ > ৩, জিম>৪, প্রহর্ষ> ৫, নাথো >৬, উমাপতি > ৭, গররো > ৮, বিদ্যাধর >৯, বনমালী -ধরনীধর >১০, তারাপতি >১১, পোশোঁ ওরফে ধনঞ্জয়>
      ১২- হলায়ুধ > ১৩, বিভু।
      ১৪, মহেন্দ্র (বড় কুমার ) , গণেন্দ্র (ছোট কুমার )।
      ১৫, বিষ্ণু।
      ১৬, হর,নীলম্বর, গুণকর।
      ১৭, দুর্গাধর, শ্রীকৃষ্ণ , ধনঞ্জয়, গোবর্ধন ,।
      ১৮, মহাদেব, জয়দেব, হরিদেব,রাজারাম, বিজয়রাম।
      ১৯, রামদেব, কামদেব, রামনাথ, রাম কানাই, রামগোপাল।
      ২০, জগন্নাথ কুশারী

  2. শান্তিময় পথে পৃথিবীর কোন
    শান্তিময় পথে পৃথিবীর কোন অঞ্চলে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়নি। হয়ত যুদ্ধবাজির মাধ্যমে এলাকা দখল করে খিলাফত প্রতিষ্ঠা, নয়তো কুট-কৌশলের মাধ্যমে ধর্মান্তকরণ। এদেশে সুফিদের ইসলাম প্রতিষ্ঠাকে শান্তিময় পথ হিসাবে প্রচার করা হলেও এর অন্তরালে আছে নোংরা কুট-কৌশল। গরুকে ইসলামী খাদ্য হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করেছে তথাকথিত শান্তির দূত এসব সুফিরা। কারণ হচ্ছে এই অঞ্চলের হিন্দুরা গরুকে পবিত্র পশু হিসাবে শ্রদ্ধা করত। আমাদের সকলের পুর্বপুরুষগণ হিন্দু ছিল। আমরা সবাই কনভার্টেট মুসলিম।

  3. সুষুপ্ত পাঠকের উচিত একটা নতুন
    সুষুপ্ত পাঠকের উচিত একটা নতুন ফেসবুক প্রফাইল তৈরি করা যেটাতে কেউ অ্যাড থাকবেনা, কোথাও ওটার লিংক পোস্ট করা থাকবেনা, টাইমলাইন ও প্রফাইল খালি থাকবে। সেই প্রফাইল দিয়ে “সুষুপ্ত পাঠক” নামে একটা পেজ তৈরি করে ঐ পেজে মূল সুষুপ্ত পাঠকের লেখাগুলোর কপি পোস্ট করা কারণ মূল সুষুপ্ত পাঠক প্রফাইল ভবিষ্যতে খাওয়া হয়ে যেতে পারে রিপোর্টের কারণে, যে সমস্যাটা ফেসবুক পেজে হয়না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

82 − = 78