যেমনে শাহবাগী হইলাম

আমি ফেসবুক ইউজ করি ৪ বছর হইসে । কিন্তু ব্লগ ট্লগ লিখতাম না । ফেসবুক আমার নেশা । দিন রাত ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১৪ ঘন্টাই ফেসবুকে পইড়া থাকতাম , এহনও ফেসবুকে পইড়া থাকি । কিন্তু ৫ ফেব্রুয়ারীর পর থেকে ফেসবুক ব্যবহারের ধরণটাই পাল্টাইয়া গেসে । আগে ফেসবুকে আইতাম হুদাই আড্ডা দিতাম , মজা লইতাম । এহন আর হুদ্দা কামে ফেসবুকে আসি না ।

৫ ফেব্রুয়ারীর ঘটনায় আসা যাক । ৫ ফেব্রুয়ারী বিকালে খবরে দেখলাম শাহবাগে পোলাপান মানববন্ধন টাইপের কিসু একটা করতাসে । আমি ভাবলাম , বাংলাদেশ এমন মানবন্ধন বহুত হয় । আগে হইতো প্রেস ক্লাবের সামনে , এহন হইতাসে শাহবাগে । এরপর আমি আবার ফেসবুকে আইলাম । হঠাত্‍ কইরা রাইতে দেহি শাহবাগে পোলাপান মোমবাতি , প্রদীপ জ্বালাইয়া বইসা আছে । সেই ছবি ফেসবুকে কেডায় জানি আপলোড মারসে । এইবার একটু নইড়াচইড়া বইলাম । রাইত বিরাইতে যখন পোলাপান রাস্তায় বইয়া আছে । তার মানে এইবার কিসু একটা হইবো । এক দোস্তরে ফোন দিয়া কইলাম , দোস্ত একটা ফটো শেয়ার করসি । ছবিটা দেখ । ৫ ফেব্রুয়ারী এমনেই পার হইলো ।

আইলো ৬ ফেব্রুয়ারী । টিভি ছাইড়া দেহি , পোলাপান স্লোগান দিয়া আকাশ , বাতাস কাপাইয়া লাইতাসে । ঐদিকে ফেসবুকও তহন শাহবাগের খবর লইয়া গরম হইয়া গেসে । আমি টিভি দেহি আর ফেসবুকে শাহবাগের নিউজ , ফটো শেয়ার করি । ৬ তারিখও এমনেই গেলো গা । শাহবাগে আর যাওয়া হইলো না ।

এরপর ৭ তারিখ রাতে পলাইয়্যা শাহবাগে গেলাম গা । সারা রাইত শাহবাগেই কাটাইলাম । ৮ তারিখ দুপুর ৩টায় মহাসমাবেশ শুরু হইলো । আমি তো পুরা ভ্যাবা চ্যাকা খাইয়া গেলাম , এত মানুষ আইলো কইত্তে ? মাইনষের লাইগা রাস্তা দেহা যায় না । ঐ দিন প্রথম এত মানুষ এক লগে জাতীয় সংগীত গাইলাম । জাতীয় সংগীত গাওয়ার সময় আমি পুরাই বলদ হইয়া গেলাম , আমার চোক্ষে পানি আইলো কইত্তে ? ঐদিন বুঝলাম জাতীয় সংগীত কী জিনিস । ঐদিন জাফর স্যারও আইসিলেন । ঐদিন সবাই একসাথে শপথ নিলাম । অন্য রকম অনুভূতি ।

এরপর থেকে শাহবাগে যাওয়া আসা চলতেই থাকলো । হঠাত্‍ ১৩ ফেব্রুয়ারী একটা পেইজও খুইল্লা ফেললাম । এহন শাহবাগে না গেলে ভালই লাগে না । সপ্তাহে ৩-৪ দিন শাহবাগে যাওয়া এখন বাধ্যতামূলক ।

শাহবাগ আমারে অনেক কিসু দিসে । শাহবাগ আমারে শাহবাগী হইতে শিখাইসে ।

জয় বাংলা , বিপ্লবীদের জয় হোক

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৮ thoughts on “যেমনে শাহবাগী হইলাম

  1. ট্যাকাটুকা আর বিরানীর কথা
    ট্যাকাটুকা আর বিরানীর কথা কিছু কইলেন না যে? :চোখমারা: হেফাজতি (জামাতি) ভাইসাবেরা মাইন্ট খাইব কইলাম। আর উনারা মাইন্ট খাইলে কি হয় জানেন তো? এক্ষনি আপনের বাড়ির পিলার চেক করেন। কেউ লাড়াইতেছে কিনা দেইখা আসেন দৌড়ান। :জলদিকর:

  2. হিফাচুতিয়াদের মাইরে
    হিফাচুতিয়াদের মাইরে বাপ!!
    শাহ্‌বাগ শুধু আন্দোলন না, একটা চেতনার নাম!!

    ওই হিফাচুতিয়াদের যদি রাত-দিন টানা ২৪ ঘণ্টা করে ১৭ দিন থাকেতে বলা হয় তবেই দেখা যাইব!! বেজন্মার দল টাকা খাইয়া নাস্তিকতার দুলো তুলে জামাতিদের বাচাইতে চাই…

    শাহ্‌বাগে তারা তাদের মরন দেখে ফেলেছে!! তাই হিতাহিত জ্ঞান হারাই ফেলছে!!

    জয় শাহ্‌বাগ… জয় তারুণ্য…

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 1 = 8