শিক্ষা নামক প্রহসন !

শিক্ষার ব্যবসা চলছে সর্বত্রই । শিক্ষার মুখ্য উদ্দেশ্য একসময় ছিল প্রকৃত জ্ঞান অর্জন । কিন্তু পুঁজিবাদী সমাজ ব্যবস্থার চাপে আমরা এটাকে করে ফেলেছি ”চাকুরী পাওয়ার অস্ত্র” । এখন আর জ্ঞান অর্জন করা হয়না, এখন জুতার সাইজে পা তৈরি করা হয় । নাহলে এই দেশে দার্শনিক শাস্ত্রগুলোর কদর থাকতো । যে ছেলেটা দর্শনে পড়ছে, সেই ছেলেটা চার বছর পর চাকুরী উপাখ্যান খ্যাত “বাংলা-ইংরেজী-সাধারণ জ্ঞান” নিয়ে ব্যস্ত । পরীক্ষার হলেও তাঁর দর্শনের জ্ঞান প্রয়োজন হয়না । ভাইভাতে দু একটা দর্শন আসলেও সেটা আপনার চিন্তা জগতকে নাড়া দেওয়ার জন্য যথেষ্ট নয় । এভাবেই চলছে জাতিকে শিক্ষিত করার প্রয়াস ।

প্রাথমিক স্তর হচ্ছে মানুষ তৈরির ভিত্তি । কিন্তু এখানেও চলছে গাঁ ছাড়া ভাব । এখন আর ছোট ছেলে-মেয়েরা ক্লাসে যেতে চায়না । কান্না কাটি করে…। ক্লাস গেলেও ক্লাস ফাঁকি দেয় । পড়াশোনায় মন নেই । এটা প্রাথমিক স্তরের কথায় বলছি । বাধ্য হয়ে বাবা মা ছুটছে প্রাইভেট শিক্ষক বা কোচিং সেন্টারের কাছে । কিন্তু এমন শিক্ষা কতদূর নিয়ে যেতে পারে, তা জানিনা । এমনটা হওয়ার কথাও ছিলনা । শিশুরা স্কুলে যাবে আনন্দে, পড়বে আনন্দে । শিক্ষা হবে মজাই মজাই শেখা । শিশুটি সকালে ঘুম থেকে উঠে মা’কে বলবে, মা স্কুলে যাব । ভাত দাও ?? মা তাঁর সন্তানকে অতি আদরে চুল আঁচড়ে দেবে, এবং খাওয়া দাওয়া করিয়ে স্কুলে পাঠাবে ।

শিক্ষাকে গতানুগতিক ধাঁরা থেকে বের করে আনার সময় এসেছে । ভারতীয় উপমহাদেশে প্রায় একই প্রকার শিক্ষা ব্যবস্থা ।এবং শিক্ষা নিয়ে সবচেয়ে হতাশ এই আমরাই অর্থাৎ এই উপমহাদেশের মানুষই । হাজার হাজার শিক্ষার্থী প্রতিবছর পাস তো করে যাচ্ছে, কিন্তু ঈশ্বরচন্দ্র, জগদীশ চন্দ্র বসু, সত্যেন বসু কিংবা আরজ আলী মাতুব্বর হচ্ছে কতজন । কেউই নয় । বিশ্ববিদ্যালয় শেষ করা একজন শিক্ষার্থী ওইসব বিখ্যাত মানুষ হওয়ার স্বপ্নও দেখেনা । কারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানদের এমন স্বপ্ন দেখাও পাপ । বৃদ্ধ বাব মা যে আমার দিকে তাকিয়ে আছে । কবে চাকুরি পাব, কবে সংসারের দায়িত্ব নিব ।। এক্ষেত্রে মনে পড়ে গেল, অঞ্জন দত্তের ”বেলা বোস” গানটি । চাকুরী না পেলে মেয়ের বাবা-মা তাঁদের মেয়েকে আমার হাতে তুলে দেবে না । তাইতো চাকুরী পাওয়ার পর অঞ্জন দত্ত গেয়েছিল, চাকরীটা আমি পেয়ে গেছি, বেলা শুনছো/ এখন আর কেউ আটকাতে পারবেনা…।। বেলা বোসকে পাওয়ার জন্যও চাকুরী হওয়া প্রয়োজন, দার্শনিকের কপালে বেলা বোস জোটেনা ।।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

83 − 78 =