উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত হওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র

বাংলাদেশ বিগত দিনের তুলনায় অনেক এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের অনেক উন্নয়ন হয়েছে এবং হচ্ছে। দেশের সিংহভাগ উন্নয়নই করেছে আওয়ামীলীগ। তাই দেশ ও জাতির উন্নয়নে আওয়ামীলীগ তথা বর্তমান সরকারের বিকল্প নেই। বিএনপি-জামায়াতের সময়ে উন্নয়নের বদলে শুধু লুটপাট হয়েছে। তারা দেশকে কয়েকশ’ বছর পিছিয়ে দিয়েছে। বর্তমান সরকার আমাদের প্রিয় বাংলাদেশকে একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত করতে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু সরকারের এ উন্নয়ন অগ্রযাত্রা সহ্য করতে পারছে না বিএনপি ও তার সহচররা। তারা দেশের উন্নয়ন বিঘ্নিত করতে একের পর এক অপচেষ্টা চালাচ্ছে। সাম্প্রতিক বাংলাদেশে ঘটে যাওয়া কিছু অপ্রত্যাশিত ঘটনা বিশেষ করে জঙ্গি হামলা দেশের ভাবমূর্তি অনেকাংশে হ্রাস পেয়েছে। জঙ্গি হামলা শুধু বাংলাদেশের একার সমস্যা নয়। সারা পৃথিবীতেই এখন জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় চলছে। মিডিয়া, অনলাইন, ফেসবুকসহ পৃথিবীর সমস্ত মিডিয়ায় জঙ্গিবাদ ও সস্ত্রাসবাদের সংবাদকে গুরুত্ব দিয়ে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চলছে। জঙ্গি নিয়ে সবার মাঝে এখন রয়েছে চরম আতঙ্ক। সকল ধর্মই তো শান্তির কথা বলে, মানুষ হত্যা মহাপাপ এ কথা বলে। কিন্তু কিছু বিপথগামী লোক ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রীসহ বিভিন্ন পেশার যুবক-যুবতীদের জঙ্গির ট্রেনিং দিয়ে ঠেলে দিচ্ছে অন্ধকার জীবনে। পরিবারকে করে দিচ্ছে সমাজ থেকে বিতারিত। কত স্বপ্ন নিয়ে বাবা মা, সে সব সন্তানদের মানুষ করার জন্য জীবন যৌবনের চাওয়া পাওয়া করেছে উৎসর্গ, সে বাবা মায়ের আদরের সন্তানদের অর্থহীন জীবনে ডেকে নিচ্ছে কারা। তাদের মুখোশ উন্মেচন করার দাবি আপামর জনতার। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ কারোই কাম্য নয়। ইসলাম হচ্ছে শান্তির ধর্ম, সুখের ধর্ম, কোন ধর্মেই মানুষ হত্যা করার কথা বলা হয়নি, যারা ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে মানুষ হত্যা করছে, তাদের বিরুদ্ধে সকলের স্বচ্ছার হতে হবে। দ্রুত এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। বর্তমান সরকার যেভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে, তা সত্যি প্রসংশার দাবিদার। সমাজে যার যার অবস্থান থেকে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে হবে। এটা ভুল পথ, বিপদের পথ, তা সর্ম্পকে যুব সমাজকে অবগত করতে হবে। সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে সবার নিজ নিজ অবস্থান থেকে আরও সোচ্চার ও সতর্ক থাকতে হবে। জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ শুধু পুলিশের অভিযান ও গোয়েন্দা কার্যক্রমের মাধ্যমে দমন করা সম্ভব নয়। সব শ্রেণির জনগণকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সচেতন হওয়া এখন সময়ের দাবি। দেশের জনগণ এখন অনেক সচেতন। কারো মনগড়া কথা জনগণ বিশ্বাস করে না। তারা রাষ্ট্র ও উন্নয়ন বিরোধীদের চক্রান্ত প্রতিহত করে সরকারকে সহযোগিতা করছে এবং করবে। এভাবে সরকার দেশের সকল জনগণকে সাথে নিয়ে দেশ থেকে সকল সন্ত্রাস ও জঙ্গি দূর করবে এটা এখন শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 2 = 1