নারীবাদী মোহাম্মদ ও নাস্তিকদের অপপ্রচার

আজকালকার ছুটাছাটা নাস্তিকেরা নারী অধিকার নিয়া বলতে গেলেই প্রথমেই ফট করে সুরা নিসার ৩৪ নম্বর আয়াত বলে বসেন। ছুটাছাটা নাস্তিকের আর দোষ কি, আয়ান হারসির মত বিখ্যাত বক্তাও নিসার ৩৪ নম্বর আয়াতের যথেষ্ট অপপ্রয়োগ করেন! ৪/৩৪ এ বলা আছে বউকে লাইনে আনতে উত্তম মধ্যম দেওয়া যাবে! একদা আমিও মনে করতাম বুঝি মোহাম্মদ আসলেই বিরাট বদ লোক এবং সেই মনে করা থেকে এইসব আয়াতের প্রচার করতাম কিন্তু জীবনেও কোরান হাদিস না পড়া আমার বন্ধুগণ আমাকে রীতিমত ধমকি দিয়ে বলত আরে বেক্কল নাস্তিক আয়াতের ছুটা অংশ কইলেই হইব খালি? প্রেক্ষাপট জানা লাগব, সহি অনুবাদ বুঝতে হইব ইত্যাদি ইত্যাদি!
আমি তাদের পরামর্শ মেনে নিয়ে দেখলাম তাদের কথাই ঠিক। বেচারা মোহাম্মদ কিন্তু আসলে নারীবাদীই ছিলেন। হ্যাঁ মারার কথা আছে কিন্তু মোহাম্মদের সে ইচ্ছে ছিল না। ইবনে কাসির কি বলেন দেখেন,

একজন আনসারী তার স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে রাসূলুল্লাহ সঃ এর খিদমতে উপস্থিত হন। তার স্ত্রী রাসূলুল্লাহ সঃ কে বলেন হে রাসূল আমার স্বামী আমাকে চড় মেরেছে। চড়ের চিহ্ন এখনো আমার চেহারায় বিদ্যমান রয়েছে। রাসূলুল্লাহ বলেন, তার এ অধিকার ছিল না। তিনি প্রতিশোধের হুকুম প্রায় দিয়েই ফেলেছিলেন আর তখনই এই আয়াত অবতীর্ণ হয়।
তখন রাসূলুল্লাহ বলেন আমি চেয়েছিলাম একরকম কিন্তু আল্লাহ্ চাইলেন আরেক রকম!

কে না জানে আল্লাহ্ জ্ঞানী, মহান এবং বিজ্ঞানময়। বিশ্বাস না হইলে কুরআন খুলে দেখতে পারেন আল্লাহ্ বারেবারে বলেছেন তিনি সব জানেন, তিনি জ্ঞানী! মোহাম্মদ সমান অধিকারে বিশ্বাসী ছিলেন, নারীবাদী ছিলেন কোন সন্দেহ নাই কিন্তু তিনি তো আল্লার নির্দেশ অমান্য করতে পারেন না! পারেন কি?
নবী বলেছেন, যখন তুমি খাবে তাকে খাওয়াবে, তাকে গালি দিবে না, তার মুখে মেরো না। তর্জন গর্জন করে তাকে লাইনে আনার চেষ্টা করো কিন্তু এরপরেও কাজ না হইলে তবেই পিটানি দেও(আল্লার নির্দেশ)!

তার ধনী বিবি খাদিজাও কিন্তু স্বাধীন মহিলা ছিলেন, নাইলে চারবারের স্বামী হিসেবে যুবক মোহাম্মদকে বিয়ে করতে কি পারতেন? হ্যাঁ আপনারা বলবেন পুঁজিবাদী ধনিক শ্রেণীর বুর্জোয়া সমাজে ধন দিয়েই স্বাধীনতা বিচার করা হয়, পুঁজিবাদী বুর্জোয়াদের স্বাধীনতার তুলনা সমাজের সব স্থরে গ্রহণযোগ্য নয় ইত্যাদি ইত্যাদি কিন্তু ভাইসব আপনারা ভুইলা যাইতেছেন মোহাম্মদের পালকপুত্র যায়েদের বিবির কিন্তু ধন ছিল না! সে স্বাধীনভাবেই তার শ্বশুর অর্থাৎ মোহাম্মদকে বিয়ে করেছিল! আল্লাহ্ একটা আয়াত পাঠিয়েছিলেন সত্য কিন্তু এটি যায়েদের বিবির ইচ্ছেতেই এসেছিল সেটা ভুলে গেলে চলবে না!

নাস্তিকতা করেন ঠিক আছে কিন্তু সত্য বলেন! নারী অধিকারে অবদান রাখার জন্য বেচারা মোহাম্মদ তারিফ পাওয়ার যোগ্য কিন্তু কে না জানে নাস্তেক ইহুদী নাসারারা মানি লোকের মান দিতে জানে না!

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৫ thoughts on “নারীবাদী মোহাম্মদ ও নাস্তিকদের অপপ্রচার

  1. মুহাম্মদ নারীদেরকে বেশী
    মুহাম্মদ নারীদেরকে বেশী সম্মান করত বলেই , এক পর্যায়ে , আল্লাহ মুহাম্মদকে বলে , মুহাম্মদ তোমার যত খুশি বিয়ে কর , এছাড়া যত ইচ্ছা দাসী রাখ , কোনই সমস্যা নেই, কারন আমি তো জানি তুমি নারী সঙ্গ বহুত পছন্দ কর। (আহযাব -৩৩: ৫০)

    ইহার দ্বারা প্রমানিত , ইসলামই একমাত্র ধর্ম যা নারীকে দিয়েছে সর্বোচ্চ সম্মান। আর কোন সন্দেহ আছে ?

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

14 − 12 =