রঙিন আলোর বিনোদন

রাজধানী জুড়ে রঙিন আলোর বন্যার এত আলো কেউ দেখেনি ঢাকায়। এর আগে ঢাকাবাসী ঈদ, বিজয় দিবস ও স্বাধীনতা দিবসে নগরীর কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে আলোকসজ্জা দেখেছেন। কিন্তু কোনো রাজনৈতিক দলের জাতীয় সম্মেলন উপলক্ষে রাজধানী ঢাকাসহ গোটা দেশকে এর আগে এত দীর্ঘ সময় ধরে আলোকোজ্জ্বল সাজে কখনো সাজতে দেখেননি দেশবাসী।রাতের ঢাকার চিরচেনা দৃশ্য কয়েক দিন ধরে হঠাৎ বদলে গেছে। ঝলমলে সাজে সেজেছে গোটা মহানগরী। সন্ধ্যা নামতেই বর্ণিল আলোকচ্ছটায় রূপ বদলে যায় ধূলি-ধূসর ঢাকার। নগরীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত সাজানো হয়েছে লাল, নীল মরিচবাতি দিয়ে। বসেছে এলইডি লাইটে তৈরি আলোকোজ্জ্বল নৌকা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা ও তার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের রঙিন প্রতিকৃতি। আর এ উপলক্ষেই রাজধানীজুড়ে এখন রঙিন আলোর ছড়াছড়ি। শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে শুরু করে কুড়িল বিশ্বরোড, ফ্লাইওভার, বনানী ফ্লাইওভার, বনানী, মহাখালী ফ্লাইওভার হয়ে জাহাঙ্গীর গেট, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, মতিঝিল, ধানমন্ডি, মিরপুর, মোহাম্মদপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় আলোকসজ্জা করা হয়েছে। বিভিন্ন সড়কের মোড়ে ও ফুটওভার ব্রিজের ওপর আলোকসজ্জা করা হয়েছে। মরিচবাতি ছাড়াও আলোকসজ্জায় ব্যবহৃত হচ্ছে ফানুস, এলইডি লাইটিং। প্রধান সড়কগুলোর পাশাপাশি রাজধানীর বিভিন্ন সড়কদ্বীপ, ফোয়ারা ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও ভাস্কর্যে আলোকসজ্জা করা হয়েছে। আলোয়ই এখন যেন এক বিনোদন।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 2 = 6