পৃথিবী ডানদিকে ঝুকে পড়ছে

আমেরিকার নির্বাচনের ফলাফল দেখে অনেকেই হতভম্ব হয়েছেন। কারণ আমরা আমেরিকাকে যে চোখে দেখতাম কিংবা আমেরিকানদের সম্পর্কে যা কল্পনা করতাম- নির্বাচনের ফলাফল সম্পূর্ণ বিপরীত ঘটেছে। আমেরিকা পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ বলে তাদের চিন্তাধারা সব সময় উৎকৃষ্টমানে, প্রগতিশীল হবে এমন কল্পনা করাও যে বোকামি তা নির্বাচনের মাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে।

কিছু সময়ের জন্য আমেরিকার নির্বাচনের কথা ভুলে গিয়ে নিজ বাঙলাদেশের কথা একটু ভেবে দেখি না! ভাবতে শুরু করলে কি আমরা তাদের সাথে খুব বেশি পার্থক্য খুঁজে পাই?

বাঙলাদেশের নির্বাচনের ফলাফল কেমন হয়? বাঙলাদেশের প্রায় সবাই জানে যে, কোন রাজনীতিক দুর্নীতিবাজ, কোন রাজনীতিক খুনি, কোন রাজনীতিক ধর্ষণকারী, কোন রাজনীতিক পাকিস্তানপন্থী, কোন রাজনীতিক রাজাকার। কিন্তু ঠিকই তো আমরা তাদেরই ভোট দিয়ে জয় লাভ করাই। আমরা বাঙলার মানুষেরা খুব ভালো করেই জানি যে কোন কোন রাজনীতিক ও ব্যবসায়ী সন্ত্রাসী পুষে থাকে? তারপরও তো আমরা তাদের পক্ষে কণ্ঠস্বর জোর করি।

আমরা কি জানি না, ভোটের আগে কতো টাকার খেলা শুরু হয়? কীভাবে ভোট কিনে ফেলা হয়? কীভাবে প্রশাসনের মানুষকে হাত করা হয়? আমরা তো সবাই জানি যে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানদের খুশি রাখার জন্যে নির্বাচনের প্রাক্কালে আমাদের দেশের দুই নেত্রীর পোশাকে ব্যাপক রকমের পরিবর্তন আসে। আমরা তো সবই দেখি। মুসলমানদের কীভাবে খুশি রাখা হয়? কীভাবে ধর্মব্যবসায়ীদের টাকা দিয়ে প্রচারণা চালানো হয়? আমরা তো দেখি যারা হিন্দু-বৌদ্ধ-নাস্তিকবিদ্বেষী, তারাও কীভাবে মিথ্যে প্রচারণা চালিয়ে সবার বাসযোগ্য পৃথিবী বানানোর স্বপ্ন দেখিয়ে থাকে। আমরা এগুলো সবই দেখি ও জানি এবং বুঝি।

তাহলে আমেরিকার নির্বাচনের ফলাফল দেখে আমি হতভম্ব কেনো? আমরা নিজেরা অসৎ মানুষদের প্রত্যাখ্যান করি না, তাহলে আমরা অন্য দেশের মানুষদের কাছে কীভাবে আশা রাখি? আমেরিকা পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাধর ও উন্নত দেশ বলেই কি আমরা ভেবে নেবো যে তাদের বাছাই সর্বদা উন্নতমানের হবে? আমরা নিজেরা পরিবর্তে বিশ্বাসী নই, কিন্তু আমেরিকানরা মানবতাবাদী হতে বাধ্য- এমন ভাবনা কি যুক্তিযুক্ত?

পৃথিবী ডানদিকে ঝুকে পড়ছে।
সাম্প্রদায়িকতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 24 = 29