উগ্রতার দমনে উগ্রতারি সাহায্য নিতে হবে বলে মনে করি

মুদ্রারা যেমন এপিঠ ওপিঠ আছে ঠিক তেমনি ভাবে পক্ষ বিপক্ষও থাকবে । এটাই স্বাভাবিক । কিন্তু এই সহজ ব্যাপারটা অনেকের মাথায় ঢোকে না । তারা ভাবে মুদ্রার শুধু এপিঠ আছে ওপিঠ নেই। নেই কোন বিপক্ষ নামক শব্দ ।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে এদেশে অনেকের মাথা ব্যাথা আছে । আমার যে নেই তা বলব না । আমারও আছে । আমি রিপাব্লিকের সমর্থন করেছি। করেছি আব্রাহম লিঙ্কন এর সমর্থন । করেছি দৃশ্যমান শয়তানের সমর্থন । আমি মনে করি মনের ভেতর কালীর দাগ নিয়ে সাধু সেজে ঘুরে বেড়ায় তাদের থেকে দৃশ্যমান শয়তান অনেক অনেক গুন শ্রেয় ।

এই বিষয় অবশ্য পূর্বে অনেক লিখেছি। তাই আর পূনরায় লিখতে চাই না । দয়া করে সময় করে দেখে নিবেন। তবে একটা কথাই বলব। বর্তমান বিশ্বে যারা উগ্রতা ছড়াচ্ছে তাদের বিপরীতে কঠোর অবস্থান নিতে ট্রাম্পের ভূমিকার বিকল্প নেই ।
অনেকেই দেখছি বাংলাদেশের একটি পাক সমর্থন কারির দলের সাথে ট্রাম্পের তুলনা করছে । দিচ্ছে ট্রাক দিয়ে এট্যাক করার খালেদা জিয়ার বাড়ির সাথে । বলছে ট্রাক রাজনীতি আমিরিকায় চলে গেছে। আমি একটা সরল মনে প্রশ্ন করি। আচ্ছা আমাদের বর্তমান সরকার হাসিনা সরকার। তাকে কি সবাই মেনে নিয়েছে । অনেকেই নিয়েছে। আবার অনেকেই নিয়েছে । এখন কারা নেই নি?

বেশিরভাগ বি এন পি জামাত পন্থি লোক হাসিনাকে মেনে নিতে পারে নি । আমারা সবাই জানি ব এন পি, জামাত পাক সমর্থন করা একটি রাজনৈতিক দল। আর বর্তমান সরকার ৭১ এর চেতনার একটি রাজনৈতিক দল। বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারে বলেছিল এদেশকে রাজাকার মুক্ত করবে । মানবতা বিরধির বিচার করবে। করেছে । দেখা গেলো এই সব অপরাধি বি এন পি জামাতের ভেতর থেকেই বেড় হয়ে গেলো। এবং জঙ্গিদের সাথেও এই দলের সাথে সম্পৃক্তততা পাওয়া যায় কোন না কোন ভাবে ।

তার থেকে মজার বিষয় হল এদের পাকি প্রেমি দিন দিন বেড়েই চলেছে। তার প্রমান আমরা পেয়েছে বিচার কাজের শুরু এবং শেষ অবস্থায় । এখন যে বিষয়টা বলব তা একটু গায়ে লাগার কথা । কথাটি খুব পরিস্কার । আমি অনেকের সাথে কথা বলে দেখেছি । দেখলাম যারা কিনা বর্তমান সরকারের বিরুধি তারাই হিলারির সমর্থন করে। আমার মাথায় প্রশ্ন হল ক্যান তারা এই পদক্ষেপ নিলে । তার মানে কি হাসিনা ট্রাম্পের সমর্থন করে । কিন্তু না পরে দেখলাম বিষয় এটা বিষয়টা একটু অন্য জায়গা ।

যারা বর্তমান সরকারের বিরুধি দল তারা হয় বি এন পি না হয় জামাত । আর জামাত মানেই রাজাকার। আর রাজাকার মানেই সে পাকি প্রেমি। আর পাকি প্রেমি মানেই জঙ্গি। খুব মজার বিষয় ।

?oh=cec3aafb6fb55f9e6b8ad54a7024e8a9&oe=58CD777F” width=”512″ />

আর একটি বিষয় না বললেই নয়। সেটি হল আমাদের ইউনুস সাহেব তো বরাবরই সরকার বিরুধি । তার কথা না হয় নাই বললাম । তো ব্যাপারটা একটু লক্ষ করে দেখুন । যেখানে পাকিস্তান ট্রাম্পের বিপক্ষে সেখানে আমার দেশের জামাত ,বি এন পি সপক্ষে যেতে পারে ? না পারে না। তাই বি এন পিও পারেনা। আমার দেশের চিহ্নত বিরুধি দলের মানুষও পারে না । ট্র্যাম্প সাহেব জঙ্গি দমন করবে কঠোর হাতে । আর জঙ্গি দমন করতে হলে সবার আগে পাকিস্তানকেই করবে বলে আশা করি। কারন ট্র্যাম্প জয়ি হওয়ার সাথে সাথে মদি সবার আগে শুভেচ্ছা জানায় । আর তাই যদি করে থাকে এদেশের জামাত বি এন পি কি ভালো থাকতে পারবে? না পারবে না ।

তাই তারা আল্লার কাছে প্রার্থনা করেছে হিলারি যেন ক্ষমতায় আসতে পারে । জঙ্গিরা যেন গোলা বারুধ কিনতে পারে । বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানাতে পারে । কিন্তু আল্লা তাদের কথা রাখে নি। কারন আল্লা তো চায় না নারী ক্ষমতায় যাক। এর জন্য আল্লাকে ধন্যবাদ দেই। যে তার কথা রেখেছে ।

এখন একটু জাওয়া যাক আটলান্টিকের ওপার । দেখা যাচ্ছে অনেকেই ট্রাম্পের বিপরীতে অবস্থান নিয়েছে। এখন কথা হল কারা অবস্থান করেছে। তার বিপক্ষের সমর্থনের লোকজন । একটা জরীপে দেখা গেছে সেখানে লক্ষ লক্ষ মানুষ আছে যারা কিনা অভিবাসী। এর ভেতরে বাংলাদেশের আছে ৩৩ লক্ষ । যারা কিনা অবৈধ । মেক্সিকো, ইন্ডিয়া আরো বিভিন্ন দেশের লোক আছে এমনি করে । তাই ট্র্যাম্প বাবু বলেছে যারা অবৈধ ভাবে আছে তাদের পাছায় লাথি দিয়ে বেড় করে দিবে ।
তো এখন তারা কি করবে । অবশ্যই চাইবে ক্ষোভ প্রকাশ করতে । চাইবে শেষ প্রচেষ্টা করতে । এছাড়া মুসলিমতো আছেই ।

তো আমি একটা ব্যাপার ঠিক বুঝিনা এটা অন্যায় কি ? সব সময় তো চিল্লান ওইটা ইহুদির দেশ, নাসারদের দেশ আবার ওই দেশে থাকার জন্য নামাজ পরেন। লজ্জা ও করে না আপানদের। আমি তো মনে করি এটা একটা দেশ প্রেম। আমার দেশে কেন অন্য দেশের লোক থাকবে অবৈধ ভাবে। একবার ভেবে দেখুন হাসিনা সরকার যদি অবৈধ ভাবে অন্য দেশের লোক রাখে তখন তো ফাটাইয়া ফেলাইতেন। তখন আপনি প্রেসক্লাবের সামনে মানব বন্ধন করতে । আমার দেশে কোন অবৈধ বা অভিবাসী থাকতে পারবে না ।

যাইহোক পরিশেষে বলতে চাই, উগ্রতার দমনে উগ্রতারি সাহায্য নিতে হবে বলে মনে করি । কারন বর্তমানে যারা উগ্রতা করছে বা ভাইরাসের মতো ছড়াচ্ছে তারা বোঝেনা সহনশীল কি ? তারা জানেনা মানবিকতা কি ? তারা জানে নিজে মরে কিভাবে অন্যকে মারতে হবে ।

সুতরাং , শক্ত কোন বস্তু কাটতে ধারালো যন্ত্র ছাড়া আর কোন বিকল্প নেই ।।
ধন্যবাদ
—- টিটপ

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 25 = 29