ন্যাতা ও চিড়িয়াখানা!!

বাংলাদেশ মগা থুক্কু মখা এবং আবাল থুক্কু আবুল এবং গুলাবিদের দেশ। এইদেশে এমন এমন সব চিড়িয়া [মানুষ কইতে পারলাম না!!! এদের মানুষ বইলা মনে হয় না!!] আছে যাদের চিড়িয়াখানায় রাখলে দেশ চিড়িয়াখানার টিকেট বেচা আয় দিয়া ৪টা পদ্মা সেতু খাড়া কইরা ফালাইতে পারত!!! আমরা সাধারন জনগন এইসব চিরিয়াকে চিরিয়াখানায় দেখতে চাই। নিচে এমনই কিছু চিড়িয়া এবং তাদের কথাবার্তা কর্মকাণ্ড উল্লেখ করা হইল সাথে তাদের খাচার সামনে কি লেখা থাকবে তাও ফাও ফাও কইয়া দিলাম । যেমনঃ

১। দি গ্রেট স্বরাষ্ট্র মনস্টার মগা !!
মগার মগা মার্কা কর্মকাণ্ডঃ যখন সাভারের বিল্ডিং ধইসা গেলো উনি ওমনি চিন্তা করলেন এইতো চান্স মগাগিরি ফালানোর। উনার বাংলা বিখ্যাত ডায়লগ “কিছু হরতাল সমর্থক সাভারের ধসে পড়া ভবনটির ফাটল ধরা দেয়ালের বিভিন্ন স্তম্ভ এবং গেট ধরে নাড়াচাড়া করেছে। ভবনটি ধসে পড়ার পেছনে সেটাও একটি সাম্ভাব্য কারণ হতে পারে।”
২। পাগলা আবাল মাল !!
আবুলের আবাল মার্কা কর্মকাণ্ডঃ উনি সাভারের ভবন ধসের দুর্ঘটনাকে তেমন ভয়াবহ বলে মনে করেন না!! উনি ৪০০০ কোটি টাকাও তেমন কিছু মনে করেন না!! কথা হুইনা মনে হয় ওই টাকা উনার কাছে কাঁডাল পাতা!! ৪০০০ কোটি টাকা দিয়া উনি ডেইলি টয়লেট টিস্যু হিসেবে ব্যবহার করে !!! আরে ব্যাটা আবাল থুক্কু আবুল তুই কিসে কিছু মনে করবি?? যাই হোক তুই কি বাল মনে করছ ওইটা কিছু না!!! তোরে কি কেউ জিগাইছে তোর আবাল মার্কা মন্তব্য!! ব্যাটা আবুল।
৩। জনৈক খ্যাপাচুতিয়া থুক্কু হেপাচুতিয়া !!
হেপাচুতিয়ার খ্যাপাচুত মার্কা কামকাইজ [কর্মকাণ্ডের মত শুদ্ধ বাংলা উনাদের বুঝতে অসুবিধা তাই কামকাইজ কইলাম!! উর্দুতে কইতারলে মানে বলতে পারলে আরও ভালো বুঝতেন!! টা যাই হোক] :
“সরকার আল্লাহর বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। তারই পরিণামে এ গজব। অবিলম্বে সরকার তওবা করে আহমদ শফীর ‘মুরিদ’ না হলে ‘ফটিকছড়ি’ ও ‘সাভার’র চেয়ে ভয়াবহ গজব নাযিল হবে।”
৪।একজন সুচিল [সুচিল মানে সুযোগ সন্ধানী চিল!! সুযোগ সন্ধানীর “সু” আর চিলের “চিল” = সুচিল ] ছাগল !!
জনৈক সুচিল এর ছাগল মার্কা কর্মকাণ্ডঃ
“তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল না করলে এমন ট্রাজেডি হতো না ” এই কথা যেই সুচিল এর মুখ দিয়া বাইর হইছে, সেই সুচিলও নাকি কোন এককালে এই দেশেরই রাষ্ট্রপতি ছিল!! মাইরালা কেউ সুচিল টারে মাইরালা !!
৫। জনৈক সাঙ্ঘাতিক !!
একজন সাঙ্ঘাতিকের কাজঃ ৯ তলা বিল্ডিং ধইসা পরছে। একজন মানুষ নিচে আটকা পড়ছেন তাকে অনেক কষ্টে বের করা হইছে কিন্তু সাঙ্ঘাতিক তখন দৌড়াইয়া গিয়া প্রশ্ন করলেন” আপনি কই ছিলেন?? আপনি ক্যামন আছেন??? আপনার নাম কি?? ” আরে সাঙ্ঘাতিক ব্যাটা আগে ওই লোকটারে হাসপাতালে যাইতে দে একটু সুস্থ হইতে দে তারপর ফাল পার।
৬। জনৈক আল্লামা বঙ্গপীর !!
আল্লামা বঙ্গপীরের পীরাতিঃ উনি ১৯৭১ এ আল্লামাদের মারলেও ২০১৩ সালে উনি নিজে আল্লামা টাইটেল পাওয়াতে আরেক আল্লামা রাজাকাররে বাঁচাইতে নিজের মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট বেইচা দিয়া আল্লামা সার্টিফিকেট নিছেন।
৭। জনৈক ৮ ফেল !!
গুলাবির লাল গুলাবি মার্কা কর্মকাণ্ডঃ করছেন ৮ ফেল কিন্তু আস্তিক নাস্তিক সার্টিফিকেট দিয়া বেড়ান। সার্টিফিকেট দেওয়াতে উনি উস্তাদ। কঠিন নাস্তিক লুঙ্গী মাজাহার রে উনি কঠিন আস্তিক সার্টিফিকেট দিছেন!! কেউ উনার গুলাবি জর্জেট শাড়ির গুণগান গাইলেই উনি ফিদা হইয়া তারে আস্তিক সার্টিফিকেট দেন।
৮। জনৈক চান্দের বুড়া উরফে মেশিন ম্যান !!
একজন অতি রাজাকার not মানব এর কর্মকাণ্ডঃ উনি রকেট ছাড়া এক রাইতে চান্দে গেছেন তাও আবার যেইদিন উনার ফাঁসির রায় হইছে ওই রাইতেই উনি চান্দে গিয়া চান্দের বুড়ির উপরে মেশিন চালাইয়া চান্দের বুড়া এবং মেশিন এর নাম অনুসারে মেসিন ম্যান খেতাব পাইছে।
৯। কোন এক ব্রাদার ফাকার [১০০ কিলোমিটার দূরত্ব বজায় রাখুন] !!
ব্রাদার ফাকার এর ফাকিং কাহিনী [অবশ্যই ১৮ + -] : জেলে থাকা অবস্থায় হঠাৎ উনার ৭১ সালের স্মৃতি মনে যায় যখন ফাকিস্তানিরা উনার [মানে ব্রাদার ফাকার এর] পুটুতে তাদের মেশিন চালাইয়া মেশিন এর ধার ঠিক রাখতেন। তাই উনিও জনৈক পাবলিক ধইরা পুটুতে মেশিন ভইরা দিয়া ব্রাদার ফাকার টাইটেল পাইছেন।
১০। জনৈক জং ধরা মানুষ [মানুষের সামনে অ লিখি নাই!! জং ধরা বলতে কারে বুঝাইছি যদি না বুঝেন তাইলে আপনার মাথাও জং ধরছে 😛 ] !!
জং ধরা জং : ইনি তার মাথার ঘিলু ব্যবহার না করতে করতে ঘিলুতে জং ধইরা গেছে!! চুম্মা দিয়াও ভুইলা যান চেহারা নাম পরিচয়। সমস্যা নাই। ঘিলু তে জং ধরছে তো কি হইছে !! এম্নিতেও উনি ঘিলু দিয়া কিছুই করতেন না। হুদাই শো পিস হিসাবে ঘাড়ের উপরে মাথা বহাইয়া থুইছেন আর শো পিস মার্কা মাথায় জং ধরা ঘিলু।

এদের মত রেয়ার স্পিসিজ দিয়া আমাদের চিড়িয়াখানা ভরলে চিড়িয়াখানার আয় দিয়াই আমরা সিরাম ধনীরাষ্ট্রে পরিনত হমু। আর যাদের চিড়িয়াখানায় ভরি নাই তারা মন খারাপ কইরেন না আপনাদের ইতিহাসও লিখতাম কিন্তু সময় মত আম্মা ডাক দিয়া কম্পিউটার থাইকা উঠতে কইল নাইলে আজকে আপনাদের চিরিয়াখানায় ভইরা ছাড়তাম। 😛

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৪ thoughts on “ন্যাতা ও চিড়িয়াখানা!!

  1. মখা আইসা আপনার বাসার দেয়াল
    :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
    মখা আইসা আপনার বাসার দেয়াল ধইরা ঝাঁকুনি দিলে বুঝবেন!! :শয়তান: :শয়তান: :শয়তান: :শয়তান:

    1. মগা আইসা ধাক্কা দিলেও কাম হইব
      মগা আইসা ধাক্কা দিলেও কাম হইব না। বাড়িতে লাগাইছি ফেবিকল। 😛 জানেন তো ফেবিকল এমনই জোড়া লাগায় জবরদস্তও হার মেনে যায় 😛

  2. এসব চিড়িয়াদের অভিহিত করার
    এসব চিড়িয়াদের অভিহিত করার জন্য বাংলা অভিধানে নতুন শব্ধ আবিস্কার করে নেই। তারপর এদের বিশেষণ দিব। আপাততঃ নতুন শব্দ আবিস্কারের চেষ্টায় আছি….

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 69 = 70