সাম্প্রদায়িক উস্কানি রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ

ছবিঃ ফেইসবুকে উস্কানি পোষ্ট

সকল মুসলিম ভাইদের প্রতি আহ্বান জানাই মায়ানমারে রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশকে প্রভাবিত করার চেষ্টা রুখে দাঁড়ান। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হতে বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে সিরিয়া, ইজরাইল, পেলেস্তাইনের ছবি ব্যবহার করে প্রকাশিত সাম্প্রদায়িক উস্কানিতে যেন বাংলাদেশের সংখ্যালঘুরা আক্রান্ত না হয়। আপনারা ২০১২ সালে রামুর ঘটনা জানেন, সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া নাসিরনগরের ঘটনা জানেন। এবং এ সকল সাম্প্রদায়িক হামলার নেপথ্য মাধ্যম ছিল এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। আপনারা সবাই দেখেছেন ফেইসবুকে সামান্য একটি ছবি পোষ্ট করাকে কেন্দ্র করে কিভাবে বিপন্ন মানবিকতার বিপর্যয় ঘটতে পারে। আমরা আর কোন মানবিক বিপর্যয়ের চিত্র দেখতে চাইনা। আমরা চাইনা রামু-নাসিরনগরের মত আরেকটি গ্রাম, আরেকটি সভ্যতা পুড়ে কয়লা হোক। সম্প্রতি সময়ে মায়ানমারে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর উপর সেখানকার সেনাবাহিনীর বর্বরোচিত আচরণ অবশ্যই মানবাধিকার লঙ্ঘণ। এবং এই মানবাধিকার লঙ্ঘনে অবশ্যই আমাদের প্রতিবাদ জানানো উচিত। তবে আমাদের এটাও বুঝার চেষ্টা করা উচিত সেটি মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণতান্ত্রীক অধিকার আদায়ে রোহিঙ্গা ও ক্ষমতাসীন সরকারের সামরিক হস্তক্ষেপে সৃষ্ট একটি গৃহসংঘাত। আর সেই প্রতিবেশী দেশের গৃহসংঘাতে যদি নিজ দেশের সংখ্যালঘু তথা বৌদ্ধ সম্প্রদায়কে সম্পৃক্ত করা কোন ভাবেই সমীচিন নয়। ফেইসবুকে বিভিন্ন পেইজ, গ্রুপে, ব্যাক্তিগত টাইমলাইনে এক শ্রেণীর কট্টরপন্থীরা বিভিন্নভাবে উস্কানি প্রচারণা করে যাচ্ছে, bdnewslive24.com নামের ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া উস্কানিমূলক নিউজের মাধ্যমে সাধারন মানুষকে উস্কে দিয়ে অস্থিতিকর পরিস্থিতি তৈরির পায়তারা করে যাচ্ছে। এমনকি পার্বত্য সেটেলার কর্তৃক পরিচালিত Dhaka News নামের একটি পেইজে “যেখানেই পাবে বৌদ্ধ, সেখানেই গণধোলাই হবে” বলে উগ্র প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে।

ছবিঃ স্যাটেলাইটে ধারন করা মায়ানমারে সংঘাতের ছবি

আপনার নিশ্চয় জানেন বিবিসি তে পর্যন্ত বলা হয়েছিল মায়ানমারে যেসব এলাকায় এই সংঘাত হচ্ছে সেখানে মায়নমার সামরিক সাংবাদিকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ জারি করেছে। তাহলে আপনারা চিন্তা করে দেখেন, যেখানে কোন সাংবাদিক প্রবেশ করতে পারছেনা সেখানে কোন ছবিও প্রকাশ পাবার কোন সুযোগ নেই। কিছুদিন আগে গুগুল সেটেলাইটের মাধ্যমে ধারন করা কিছু ছবি প্রকাশ করেছিল। সেখানেও বিধস্ত এলাকার সেটেলাইট স্থিরচিত্র ছাড়া কিছুই দেখা যায়নি। সুতরাং আপনাদের বুঝা উচিত মায়ানমারের রোহিঙ্গা ট্যাগ লাগিয়ে যে ছবিগুলো ভাইরাল করা হচ্ছে সেগুলো আসলে কোথাকার ছবি। এই ছবিগুলোর সত্যতা আপনি নিজেই যাচাই করে নিতে পারেন- প্রকাশিত ছবি নিয়ে যদি আপনাদের কোন উদ্যেগ থাকে তাহলে গুগুলে ইমেজ সার্চ অপশনে সার্চ করে দেখতে পারেন। যদি পিসিতে আপনি ব্রাউজ করে থাকেন তাহলে গুগুল ব্রাউজ করার পর উপরের ডানদিকে ছবি/Image একটা লেখা থাকে সেখানে ক্লিক করুন। ক্লিক করার পর গুগুল টেক্সটবারে আপলোড দুটো অপশান পাবেন URL search এবং Image search. Image search এ ক্লিক করার পর Upload image অপশানে ক্লিক করা মাত্রই সেখানে নির্দেশনা আসবে আপনি কোন ছবিটি সার্চ করতে চান(যে ছবি সার্চ করবেন সেটা আগে ডাউনলোড করে নিতে হবে)। এরপর ভাইরাল হওয়া সেই ছবি মূলত কোন সাইট থেকে এবং বিস্তারিত সকল তথ্যসহ পেয়ে যাবেন। একিভাবে মোবাইলেও আপনি ছবির সত্যতা যাচাই করতে পারেন।

ছবিঃ গুগুলে কিভাবে ছবি সার্চ করবেন

মায়ানমারে রোহিঙ্গা নিয়ে যখন সে দেশে সংকট তৈরি হয় প্রতিবারেরই পার্বত্য চট্টগ্রামে অস্থিতিকর পরিস্থিতি তৈরির উদ্দেশ্যে এক শ্রেণী বিভিন্ন প্রচার, প্রচারণার মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক সংঘাত তৈরির চেষ্টা করা হয়। যার একমাত্র কারণ উগ্র সাম্প্রদায়িক চেতনা এবং সেটেলারদের ভূমি দখলের একটি প্রক্রিয়া। তাই আপনার আমার সবারি সামাজিক সচেতনটা গড়ে তোলা উচিত। প্রতিবেশী দেশের জন্য মানবাধিকার রক্ষা করতে গিয়ে যেন নিজ দেশের মানবাধিকার লঙ্ঘন করা না হয়।

ছবিঃ ফেইসবুকে সাম্প্রদায়িক উস্কানি

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

63 − = 57