মুসলিম হলে কি আর মানুষ হওয়া যাই না ?

?efg=eyJpIjoiYiJ9&oh=e389ac1ee86af2370bc4843675762de0&oe=58C4D0CF” width=”500″ />

অফিসে আসার পথে একটি জায়গায় এসে আমার বহনকারী বাসটি থেমে গেলো। সামনে কিছুটা জটলা দেখতে পেলাম গাড়িতে বসেই শুনতে পেলাম..
“নারায়ে তাকবীর আল্লাহু আকবর” “তৌহদী মুসলিম জাগো হিন্দু বৌদ্ধ মারো” “ইসলামের শত্রুরা হুশিয়ার সাবধান” এধরণের আরো কিছু স্লোগান জুম্মার নামাজ পরে হাজার খানেক দাড়ি টুপি মুসল্লি রাস্তা ধখল করে চিল্লা ফাল্লা করছে। সাথে চার পাঁচ বছরের ছোট বাচ্চাদের ও দেখলাম এদের সাথে চিল্লাচ্ছে। ভাবছিলাম এই শিশুগুলো যখন বড় হবে তখন অমুসলিমরা এদেরথেকে কি আপ্পায়ন পাবে?

মনে মনে ভাবছিলাম এরা কেমন মানুষ?দুদিন আগে এরাই এদের প্রতিবেশী হিন্দুদের ঘর বাড়ি তছনছ লুটতরাজ ও অগ্নি সংযোগ করে তাদের জীবন বিপন্ন করেছিল,তখন তাদের কোনো সহানুভূতি ছিলোনা।অথছ আজ ভিন্ন দেশে তাদের ধর্মীয় মানুষের উপর নির্যাতনের জন্য তারা রাস্তায় নেমে এসেছে।তবে এরা সহানুভূতি যতটা না দেখাচ্ছে তার থেকে অন্য ধর্মের মানুষের প্রতি ঘৃণা ও বিদ্বেষ বেশি ছড়াচ্ছে।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে তাকালে তা স্পষ্ট হবে।

?efg=eyJpIjoiYiJ9&oh=e29a0c81b38ceb513e65acabf0ea10e9&oe=58FB7D01″ width=”500″ />
চীনের সাংহাই প্রদেশে ভূমিকম্পে নিহত ছবি রোহিঙ্গা নির্যাতন বলে চালানো হচ্ছে

বাসের মধ্যে রোহিঙ্গাদের বিষয়ে অনেকে অনেক ধরণের মন্তব্য করছিলো আমি মৌন হয়ে কথাগুলো শুনছিলাম।হটাৎ হুজুর গোছের একজন বলে উঠলো মিয়ানমারের বৌদ্ধ গুলো খুব বাড় বেড়ে গেছে। এদের ধ্বংস হওয়ার সময় এসে গেছে। সরকার যদি সীমান্ত খুলে দেয় তাহলে বাংলার তাওহিদী মুসলিম একদিনে মিয়ানমারকে পৃথিবীর মানচিত্র থেকে মুছে দিতে পারে। এবার আর মৌন থাকতে পারলাম না বললাম ভাইজান মিয়ানমারের বৌদ্ধরা কিন্তু বাংলাদেশের ভীরু হিন্দুদের মতো নয়। কি আশ্চর্য কথাটা বলার পর পুরো গাড়ীতে যেন সুনসান নীরবতা নেমে এলো।

?efg=eyJpIjoiYiJ9&oh=bfe98c2e44bcdf81004c89170bd97dc5&oe=58C1FFA2″ width=”500″ />
কঙ্গোতে তেলের ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ছবি রোহিঙ্গা নির্যাতন বলে চালানো হচ্ছে

আমি বুঝতে পারি না মানুষে মানুষে কেন এতো ভেদাভেদ ?মুসলিমরা কেন অন্য ধর্মের মানুষের সাথে চলতে পারে না ?কেন তারা অন্য ধর্মের মানুষকে শত্রু মনে করে ?মুসলিমদের কাছে অন্য ধর্মের মানুষ কেন বিপদগ্রস্ত ?ইতিহাস বলে চোদ্দোশো বছর পূর্বে জন্ম নেয়া কুরআন নামক গ্রন্থই এই ভেদাভেদের মূল কারণ। কুরআন জন্ম নেয়ার সাথে সাথে মানুষ দুটি ভাগে ভাগ হয়ে গেছে একটি মুসলিম আরেকটি অমুসলিম। শুধু তাই নয় যার প্রতিষ্ঠা করতে সে দেশের সমস্ত অমুসলিমদের হত্যা এবং বিতাড়িত করা হয়েছে।সেই হত্যার ধারা সারা পৃথিবী ধরে এখনও চলছে।

কোরানের কিছু মধুর বাণী
কোরান ৯:৭৩ “হে নবী, কাফেরদের সাথে যুদ্ধ করুন এবং মুনাফেকদের সাথে তাদের সাথে কঠোরতা অবলম্বন করুন। তাদের ঠিকানা হল দোযখ এবং তাহল নিকৃষ্ট ঠিকানা।”

কোরান – ৯:৫: অতঃপর নিষিদ্ধ মাস অতিবাহিত হলে মুশরিকদের হত্যা কর যেখানে তাদের পাও, তাদের বন্দী কর এবং অবরোধ কর। আর প্রত্যেক ঘাঁটিতে তাদের সন্ধানে ওঁৎ পেতে বসে থাক। কিন্তু যদি তারা তওবা করে, নামায কায়েম করে, যাকাত আদায় করে, তবে তাদের পথ ছেড়ে দাও। নিশ্চয় আল্লাহ অতি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।

কোরআন ৫:৫১ হে মুমিনগণ! তোমরা ইহুদী ও খৃষ্টানদের বন্ধু এবং অভিভাবক রূপে গ্রহণ করো না। তারা পরস্পর পরস্পরের বন্ধু এবং অভিভাবক। এবং তোমাদের মধ্যে যে কেহ তাদের [বন্ধু এবং অভিবাবকরূপে] গ্রহণ করবে, সে তাদেরই একজন হবে। নিশ্চয়ই আল্লাহ্‌ অন্যায়কারীকে [সুপথে] পরিচালিত করেন না।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও জনগণ সাধারণ মুসলিমদের উপর যে নির্যাতন চালাচ্ছে একজন মানুষ হিসেবে আমি তার প্রতিবাদ করছি।আবেদন করছি অবিলম্বে তারা যেন এটি বন্দ করে রোহিঙ্গা মুসলিমদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে।আর রোহিঙ্গা মুসলিমদের বলছি ঢিল ছুড়লে পাটকেল খেতে হয়।একবার ভাবুনতো বাংলাদেশের হিন্দুরা যদি তাদের কোনো দাবি আদায় করতে এদেশের সেনাবাহিনীর উপর আক্রমণ করে দু চার জনকে মেরে ফেলে তাহলে সেনাবাহিনী হিন্দুদের কি হাল করবে ?

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 31 = 41