তোমার একটা ছবির গল্প -১

তোমার একটা প্রাণবন্ত ছবির গল্প আছে আমার কাছে । দেখলে মনে হয় জীবন্ত , চলমান। মনে হয় ছবির তুমি আমার সামনেই দাঁড়ানো । ইচ্ছে হলেই আমি ছুঁয়ে যেতে পারি তোমাকে।

কিছুটা কপাল কুঁচকে আছো ছবিতে। চোখ সবসময়ের মত হালকা লাল।সকালের রোদটা তোমার চোখে লাগছিল বোধহয়, দেখে মনে হচ্ছিল যদি সম্ভব হতো রোদ মুড়িয়ে আমি তোমার চোখে রাজ্যের ছায়া যদি আনতে পারতাম। একটু হলেও তো আরাম পেতে তুমি।

তোমার পরনে লাল রঙা টি শার্ট। চোখে দিক ভোলা সেই চাহনী। আর মুখে সেই হাসি। যে হাসির আলোতে আমার সবটুকু প্রেম। ওর হাসিটা ভীষণ ঘোর লাগানো। যখন ও হাসতো আমার শুধু মনে হতো এই হাসি যেন শেষ না হয়। বেশিরভাগ সময় ও শব্দ না করেই হাসতো। আমি চেয়ে দেখতাম। কখনো জানতে চাওয়া হয়নি কেউ কি ওকে বলেছিল গোটা বিশ্বে ওর মতোন হাসি আর কারো নেই। কারো না কারো বলার কথা অবশ্যই।

ব্যালকনিতে পিঠ ঠেকিয়ে দাঁড়ানো তুমি। পাশে রাখা আধ খাওয়া ধোঁয়া ওঠা চায়ের কাপ। সিগারেটের দেখা ছবিতে পাইনি। হয়তো সকাল সকাল দেখে ধরাওনি। তাই হবে। কি যে খাও এসব বুঝিনা। পিছনে পাহাড়ের হালকা রূপ দেখা যাচ্ছে। খুব সম্ভবত জায়গাটা নেপালে। ওর খুব পাহাড় প্রিয়। যেখানেই পাহাড়ের সন্ধান সেখানেই তিনি হাজির।

তুমি মনে হয় জানতেনা ছবিটা তোলা হচ্ছে। আনমনে ছিলে বেশ। কিছু একটা ভাবছিলে। আমাকে ভাবছিলেনা এটা নিশ্চিত।

ভালো থেকো ছবির মানুষটা। ভালো থেকো। ভালো থেকো সবার থেকে বেশি।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

37 − = 31