রসরাজ এবং জাহাঙ্গীর রঙ্গঃ সম্ভাব্য বক্তব্য সংকলন


এখন এই নাসিরনগর, রসরাজ এবং জাহাঙ্গীরকে নিয়ে অনেক ধরণের বক্তব্য আসতে পারে। যেমনঃ

– এই জাহাঙ্গীর বিএনপি অথবা জামাতের সক্রিয় কর্মী ছিল।

– হিন্দুদের ঘরবাড়ি আক্রমনের জন্য ট্রাক নাকি বাসটাস ভাড়া করা হয়েছিল, সেই অর্থের যোগান সরাসরি আইএস থেকে এসেছিল।

– এই সহিংসতার পিছনে আইএসআই জড়িত।

– কালেরকন্ঠের শিরোনাম হতে পারে, “রসরাজ নামের রমরমা প্রচারে হতাশাগ্রস্থ্য হয়ে এ কী করলেন রসময় গুপ্ত?”

– পাকিস্তানের জাতীয় সংসদে জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার নিন্দাপ্রস্তাবের প্রতিবাদ জানিয়ে কড়া বিবৃতি দিতে পারে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়।


নাসিরনগরের কাহিনীর জন্য্ ধর্মীয় সহিংসতায় উস্কানীদাতা যদি জাহাঙ্গীরই হয়, তবে রসরাজ এখনো জেলে কি করে? নাকি ইসলাম অবমাননার জন্য এটা হিন্দু এবং ছদ্মবেশী মুসলিম জাহাঙ্গীর গং এর যৌথ আতাত ছিল বলে প্রশাসন দাবী করে বসবে?

তাও ভালো, এইদেশের মুসলমানরা নিজ ধর্মের নামধারীদের প্রতিও চরম সহানুভূতিশীল। ব্যাপারটা ভালো; দুনিয়াতে তো মুসলমানদের নিজেদের মধ্যেই ভাগাভাগির অভাব নাই। শিয়া সুন্নী হাবিজাবি হাবিজাবি, এ হানাফী তো সে শাফেয়ী। খুঁজে বের করা দরকার এই জাহাঙ্গীর কোন স্পেসিফিক মাজহাবের কোন স্পেসিফিক মতাদর্শের। সে যেটার হবে তাদের মাজহাবের সবাইকে গণহারে সেই ট্রিটমেন্ট দেয়া যেতে পারে যা হিন্দুদের প্রতি সেই কাজে জড়িত প্রমাণের আগেই করা হয়েছিল। আশা করি ধর্মপ্রাণদের এই ব্যাপারে দ্বিমত থাকবে না। ক্লিনআপ না করলে শান্তিতে তো শান্তির ধর্ম পালন করা যাবে না, শান্তির ধর্মের সফেদ ঝান্ডায় লাগবে রক্তের কটকটা লাল রঙ। লাগলে একবারেই লাগুক, একবারে সব পাকসাফ করে আজীবন শান্তিতে থাকবার ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

এখন এই নাসিরনগর, রসরাজ এবং জাহাঙ্গীরকে নিয়ে অনেক ধরণের বক্তব্য আসতে পারে। যেমনঃ

– এই জাহাঙ্গীর বিএনপি অথবা জামাতের সক্রিয় কর্মী ছিল।

– হিন্দুদের ঘরবাড়ি আক্রমনের জন্য ট্রাক নাকি বাসটাস ভাড়া করা হয়েছিল, সেই অর্থের যোগান সরাসরি আইএস থেকে এসেছিল।

– এই সহিংসতার পিছনে আইএসআই জড়িত।

– কালেরকন্ঠের শিরোনাম হতে পারে, “রসরাজ নামের রমরমা প্রচারে হতাশাগ্রস্থ্য হয়ে এ কী করলেন রসময় গুপ্ত?”

– পাকিস্তানের জাতীয় সংসদে জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার নিন্দাপ্রস্তাবের প্রতিবাদ জানিয়ে কড়া বিবৃতি দিতে পারে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়।

– তেতুল হুজুর দাবী করবেন মালাউন নারীগণের ষড়যন্ত্রমূলক তেতুলের আচার সাপ্লাইয়ের ফলে এবং সেই আচার মাত্রাতিরিক্ত ভক্ষণে জাহাঙ্গীর ব্লগ দিয়ে ইন্টারনেট চালিয়ে ভুল করে ফেলেছিল। ভবিষ্যতে এই ধরণের ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে এইদেশে উনি তেতুল ভক্ষণ হারাম বলে ফতোয়া দিতে পারেন।

– খালেদা জিয়া জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার সাজানো নাটক বলে দাবী করে যেকোনো ঈদের পর সরকারকে প্রকৃত অপরাধী গ্রেফতারের দাবীতে আন্দোলন শুরু করবার ঘোষণা দেবেন। নির্যাচিত পরিবারসমূহকে দেখতে গিয়ে তিনি সেখানকার নারীদের মধ্যে বিতরণ করতে পারেন তার প্রধাণমন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে ব্যবহৃত ফ্রেঞ্চ শিফনের এন্টিক শাড়ি কুচিকুচি করে প্রস্তুত সহস্র রুমাল। অশ্রু মুছছে এইসব রুমাল ব্যাপক আরামদায়ক হিসেবে প্রমাণিত বলে বিএনপির মিডিয়া উইং বিশেষ বিবৃতি দিয়ে বলতে পারে, সংখ্যালঘুদের অশ্রু মোচনে জাতীয়তাবাদীরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

– মন্ত্রী ইনু সাহেব বলতে পারেন, এই দূধর্ষ চিহ্নিত জঙ্গী জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতারের মাধ্যমে সরকার প্রমাণ করলো যে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তাবিধানে সরকার জীবনবাজি রেখে কাজ করছে। যারা ২৫ বছর আগেও দেশত্যাগ করে গিয়েছিলেন তারা পর্যন্ত দলে দলে দেশে ফিরে আসা শুরু করেছেন এই কার্যকরী পদক্ষেপের পর।

– ইনু সাহেব আরও বলতে পারেন, এই হামলার পরিকল্পণা জেঃ জিয়ার দীর্ঘমেয়াদী চক্রান্তের অংশ। উনি কোনো বক্তব্য দিবেন আর বিএনপি, জিয়া, খালেদা থাকবে না তা ভাবা নেহাত বোকামী। বিয়েবাড়িতে বোরহানীতে বীটলবন কম পড়লেও উনি জিয়ার চক্রান্ত পাবেন।

– কেবলমাত্র সরকারী আইএসপি ব্যতিরেকে সব আইএসপি থেকে ফেসবুক ব্যবহার বন্ধে হালিম আপা ফেসবুকের সাথে আলোচনা করতে চিঠি দিতে পারেন।

– জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতারের দিনটিকে জাতীয় সংঘালঘু নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস হিসেবে ঘোষণা করতে সংসদে দাবী তুলতে পারেন জনাব কালা বিলাই।

– নাসিরনগরে ত্রাণের ঢেউটিন বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করতে পারেন প্রধাণমন্ত্রীর বিশেষ দূত দেশবন্ধু হুমু এরশাদ। সমাপনী বক্তব্যে তিনি পকেট থেকে কাগজ বের করে কাঁদো কাঁদো কন্ঠে পড়ে শোনাতে পারেন এই শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ মানবতাবাদী কবিতা।

– কক্সবাজারের সাংসদ বদি বলে বসতে পারেন রোহিঙ্গাদের কারণেই এই সন্ত্রাস। রোহিংগাদের চোরাচালানকৃত ইয়াবা সেবনের কারণে মস্তিস্ক বিকৃতির কারণেই জাহাঙ্গীর গং এই কাজ করেছে। তাদের এইদেশে অনুপ্রবেশের সুযোগ বন্ধে তিনি রোহিংগাদের তেকে চাঁদা তুলে সীমান্তে ১০ ফুট উঁচু দেয়াল নির্মানের প্রস্তাবও করতে পারেন। সমগ্র সাগরতটে দেয়া যেতে পারে কাটাতারের বেড়া।

– সকল তুচ্ছাতিতুচ্ছ ব্যাপারে সদা প্রতিবাদী কন্ঠস্বর আনু মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরকে জেলহাজতে লাল আটার রুটি খেতে দেবার কারণে মানববন্ধনের ডাক দিতে পারেন। যে সাদা আটার মোলায়েম রুটি খায় তাকে সস্তা লাল আটার রুটি দেয়া মানবাধিকারের লংঘন বলে উনি দাবী করতেই পারেন।

– বিখ্যাত অসাম্প্রদায়িক ইতিহাসবিদ পিনাকী ভট্টাচার্য বক্তব্য দিতে পারেন যে উনি নানা গায়েবী রেফারেন্স ঘেটে সুস্পষ্ট প্রমাণ পেয়েছেন নাসিরনগর অল্প কয়দশক আগেই ছিল মুসলিম বসতি। ভারতের কোন এক তাবেদার সাংসদের প্রতক্ষ্য মদদে মুসলমানদের বিতারিত করে সেখানে হিন্দু বসতি গড়ে ওঠে। হিন্দুরা নাসিরনগরের নব্য সেটেলার।

থাক, আর কিছু মাথায় আসছে না।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 6 = 15