আছো বেশ সুখে

তপ্ত দূপুর যখন ধূলিকণা ঝড়ে এলোমেলো,
ক্ষণিক সময়ে আকাশেরও যেন কী হয়ে গেলো।
মেঘমালার ছায়ায় যখন আঁধার পৃথিবী,
নিশ্চুপ নির্বাক হয়ে তাকিয়ে জানালায় কবি।

অপলক নয়নে রয়েছে তাকিয়ে কৃষ্ণচূড়ার ডালে,
যেন গাইছে কেহ তালদাদরার তালে তালে-
এসো হে বৃষ্টি এসো ধরারয় এসো,
প্রিয়ার দু’চোখের জলের ন্যায় আমায় ভালবেসো।

শীতল বায়ু ছুঁয়ে গেল যেন শিহরিত এ দেহ,
হঠাৎ করে তাকিয়ে দেখি পাশে দাঁড়িয়ে কেহ।
ঝড় যেন বহে গেল হ্রদয় ও বাহিরে,
আজ বহুদিন পরে দেখা হল ও প্রিয়ারে-
বল আছ কেমন?বৃষ্টিতে গিয়েছ ভিজে,
ঐ দুটো চোখকে এই দুটো চোখ বহুদিন হয়
পায়নিকো প্রিয় খুঁজে।

আজ দেখা হল এমনি এক সময়
আকাশ আজ করেছে রাগ
কবি তগন হয়েছে হতবাক
সকল আকাশ বাতাসের অস্থির কর্ম যেন নিথর তখন
আমার দুটো চোখ পড়ল আচমকা ঐ দুটি চোখে,
দেখে মনে হল মান্নাদের সেই সুজাতা তুমি
আছ বেশ সুখে,আছ বেশ সুখে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৩ thoughts on “আছো বেশ সুখে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

35 − 33 =