কুৎসিত ধর্ম পন্ডিত

কয়েকদিন আগের ব্যাপার ভুলেই গিয়েছিলাম, আমার বন্ধু তোহা মনে করিয়ে দিলো আজ।
মাত্রই দেশে ধর্ম নিয়ে একটা অনেক বড় বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে। কম বেশি প্রায় সবাই জানি।
গত শুক্রবারে ঢাকার বাংলা মটরে অবস্থিত বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে বই আনতে যায় আমি আর তোহা।
নবম তলার ক্যাফেটেরিয়া থেকে লিফটে করে নিচে নামার সময় একজন অল্প চুলের কোট-টাই পরা খাটো মত লোক প্রায় দৌড়ে লিফটে ঢুকলো। আমরা বই নিতে তৃতীয় তলায় যাবো, ভুলে একসাথে দুইটা বাটন এ চাপ পড়ে গেলে তিনি বললেন, “থাক, নামাজ পড়তে যাবো চতুর্থ তলায়।”

আমরা চুপচাপ দাঁড়িয়ে আছি, তিনি হঠাৎ বলা শুরু করলেন, ” কাফের মালাউন এর বিল্ডিং সব, নামাযের জন্য আলাদা কোনো জায়গা রাখে নি। আব্দুল্লাহ আবু সায়িদ সাহেব এত্তো বড় একটা বিল্ডিং বানালেন, তার মধ্যে নামাজের জন্য একটা জায়গা ছেড়ে দিলে কি হত?? কাফের মালাউন এ ভরে গেছে সব। কিছু হবে না দেশের!!”

আমি আর তোহা অবাক হয়ে চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে আছি একে অপরের দিকে। সবেমাত্র কলেজে উঠেছি, এখনো তেমন একটা বড় বড় ভাব আসেনি চেহারাতে। যে কেউ দেখে নবম-দশম শ্রেণী ভেবে নিবে।

এই আঙ্কেল এমন সাবলীলভাবে কীভাবে বলে গেলেন কথা গুলা? আমাদের গায়ে কিন্তু লেখা ছিলো না যে আমরা তার দলে কিনা??? আমরা জুব্বা পরিধান করে ছিলাম না যে আমাদের কাছে এইসব কথা অনর্গল বলে যেতে হবে, আর আমরা হ্যা হ্যা করে যাবো। আমরা এতোটা অবাক যে একটা কথাও বের হয়নি মুখ থেকে।

ধর্মকে কুৎসিত করে উপস্থাপন করতে পটু এরা, কলেজে উঠেছি সাম্প্রদায়িক-অসাম্প্রদায়িক কি তা বুঝতে বাকি নেই।
হুম, আমরা এখনো বড় হয়নি, কিন্তু আমাদের চোখে তিনি একজন খুবই নিম্ন চিন্তাধারার কুৎসিত মানুষ।
বাবা-মা তো আমাকে বলেছে, “সবার আগে মানবধর্ম।” কিন্তু তার মাথায় তো আর আমরা এটা ঢুকাতে পারবো না, তিনি নিজেই অনেক জ্ঞানী একজন পন্ডিত।
তবে আমার সমবয়সীদের বলতেই পারি,,, ” ওই, ওই সবার আগে মানুষ বুঝলি অথবা বুঝলে???
আমরাই তো একদিন বড় হবো, আমাদের মাথায় এই বিষয়টা ঢুকে গেলে ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি, মারামারি, কাটাকাটি থাকবে না।
কুৎসিত চিন্তা ভাবনার মন্ত্রী ও থাকবে না। আর মরতে হবে না কাউকে ধর্মের নামে।
আমার খুব চিন্ত হচ্ছে তার সন্তানদেরকে নিয়ে, তাদেরকে তো সাম্প্রদায়িক চিন্তাধারার মানুষ বানিয়ে তুলবে। তারা যদি আবার সুশিক্ষা না পাই, তাহলে তাদের সন্তান গুলা ও সাম্প্রদায়িক হবে।
আমাদের দরকার সুশিক্ষা। তাহলেই মানবতা আসবে, মনুষ্যত্ব আসবে।
আমাদেরকে আনতে হবে কারণ ভবিষ্যৎ আমরা। আমরাই তো আগামী প্রজন্ম।
হ্যা, দেরি হবে কিন্তু আসবে একদিন, আসতেই হবে।
মানবতার জয় হবেই। *music2*

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৩ thoughts on “কুৎসিত ধর্ম পন্ডিত

  1. বাবা-মা তো আমাকে বলেছে, “সবার
    বাবা-মা তো আমাকে বলেছে, “সবার আগে মানবধর্ম।”

    এরপর আর কোন ভেদাভেদ থাকবে না আমাদের ও আমাদের সন্তানদের এই কামনা করি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

62 − = 59