আল্লাহ্‌র ইন্টারভিউ

-কেমন আছেন?

আল্লাহঃ- ভাল না, কয়দিন ধরে শরীরটা ম্যাজম্যাজ করতেছে। তার উপর মুমিনদের এত ডিমান্ড বেড়েছে, কিছু হলেই উপরে হাত তুলে আমার কাছে এটা চায়, ওটা চায়। কেন যে কুরআনে লিখতে গেছিলাম, আমার কাছে চাইলেই সব পাওয়া যায়। আগে তাও একটা লিমিট ছিল, এখন আইফোন ৭ চায় তাও ১২৮ জিবি। মগের মুল্লুক!

জীবনেও কাউরে কিছু দেইনাই, ঘটনাক্রমে কেউ কিছু পাইলেই আমার নাম দিত আর না পাইলে আমি নাকি পরীক্ষা নিতেছি। রোগী ঠিক করে ডাক্তার, আমারে দিত থ্যাঙ্কস। প্রথমে ভালই লাগতো, এখন প্রচুর বিরক্ত করে। তাই সবগুলারে ব্লক মাইরা রাখছি, এখন বুঝুক মজা।

– এত মুসলিম ইহুদী নাসারাদের অত্যাচারে মারা যাচ্ছে, আপনার নিশ্চুপ থাকার কারন কি?

আল্লাহ্‌ঃ – আমার টাইম কোথায়? গাছের গায়ে, মাছের গায়ে, গরুর গায়ে, মৌমাছির বাসায় আমার নাম দেখাতেই সময় পার হয়ে যায়। নাস্তেকদের প্রমান করতে হবেনা যে, আমি আছি?

– এখন পর্যন্ত কি কি প্রমান উপস্থিত করেছেন?

আল্লাহঃ – হায় আল্লাহ! এখনো দেখোনাই? আল্লাহ্‌র কেরামতি লিখে গুগলে সার্চ দাও। যদিও পিকচার কোয়ালিটি ভাল না, ফটোশপ ক্র্যাশ করছে।

– এত প্রমান দেওয়ার কি দরকার? সোজা সামনে এসে দাঁড়ালেই তো সবাই বিশ্বাস করবে।

আল্লাহঃ- নাহ! সবার সামনে আসতে আমার লজ্জা লাগে। আমার রুপের আগুনে এক নবীর চোখ অন্ধ হয়ে গিয়েছিল, আমি সামনে আসলে কেউ বাঁচবে?

তাছাড়াও আমার এত কাজ, এক হাতে পারিনা, জীন-ফেরেস্তার হেল্প লাগে। ক্যামনে সবার সামনে আসি?
মুহম্মদের কাছে টেলিগ্রাম পাঠাতে জীব্রাইলের হেল্প নিয়েছি, জান কবচ করতে আজ্রাইল, পাপ পুন্য হিসাব করতে মুনকার-নেকির, প্রত্যেক মুমিনের জন্য ৭২ হুর তৈরী, মদের নদী, দুধের নদী, একটু দুষ্টু মুমিনদের জন্য নাবালেগ গেলমান। আমারও তো একটা জীবন আছে, নাকি?

– দিন দিন নাস্তেকদের সংখ্যা বাড়ছে। কিছু করেন না কেন?

আল্লাহঃ- আমি আর কি করুম? আমারে নিয়া লেখবি ভাল কথা, লেখায় মোহাম্মদরে ট্যাগ করার দরকার কি? পোলাডা একটু মেয়েদের নিয়ে আনন্দ ফুর্তি করছে, সমানে বিধর্মী কোপাইসে সেইটা অনেক আগের কথা। পাস্ট ইস পাস্ট। এখন মুমিনদের কোপ খাইয়া মর।

মুমিনরাই খালি নাস্তিক না, সব বিধর্মী মারতেছে। আগে তো মারতো বোম্ব দিয়া, এখন বাজেটে সমস্যা তাই গাড়ি চাপা দিয়া মারে। খরচ কম,ক্যাসুয়ালিটি বেশি। কিন্তু মুমিনদের সমস্যা হইসে অন্য জায়গায়। এক দল মুমিন কোপায়া আমার নাম দেয়, আমি নাকি কইছি নাস্তেকগো কোপাইতে। আরেক দল কয় আমি কইনাই। ১৪০০ বছর আগে কি কইছি, আমার কি মনে আছে?

– কিন্তু এরা তো জান্নাত লাভের আশায় মানুষ মারতেছে, আপনি যেইটা কইছিলেন কুরআনে। ওরা তো ওইটাই ফলো করতেছে।

আল্লাহঃ- কইছিলাম নাকি? কি জানি, মনে নাই। জান্নাতে চাইলেই কি ঢুকতে পারবো? কোরানে তো এডভারটাইসমেন্ট দিছি, আসল মজা বুঝব মরনের পর। কোরানের লাস্ট পাতায় যে *শর্ত প্রযোজ্য লেখা আছে, ওইটা আহাম্মকেরা পড়েনাই। সিট খালি আছে মাত্র ১০০টা। এক লক্ষ সাতচল্লিশ হাজার নবী, রাসুল, আউলিয়া, পীর, দরবেশ অলরেডি বুকড। জাকির নায়েক পাইবো একটা। পোলাডা বহুত কষ্ট করছে। ভুং ভাং বিজ্ঞান দিয়া ইসলাম প্রচার করছে। আবার মোহাম্মদ কয়েকটা সিট ব্ল্যাকে বিক্রি করে দিসে। আমার পেয়ারের দোস্ত, কিছু কইতেও পারিনা, সইতেও পারিনা। অলরেডি কয়েকশ হুর প্রেগন্যান্ট, ইভ টিজিং কইরা হুরগো কিছু রাখেনাই পোলাডা। কাউরে পছন্দ হইলেই বিয়া করতে চায়। ঐযে আগের অভ্যাস, ছাড়তে পারেনাই।

– ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?

আল্লাহঃ- বয়স হইছে, চিন্তা করছি হজে যামু গ্যালাপাগোস গ্রহে। কয়দিন পর রিটায়ার্ড করমু। বাকি দিনগুলি প্রভিডেন্ট ফান্ডে জমা হওয়া ফেসবুকের কোটি কোটি লাইক আর কমেন্ট খরচ করে বাকি জীবন আরামেই কাটায়া দিমু।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

66 − 64 =