কেন আমি মুক্তিযোদ্ধা আজ সর্বহারা?

রক্তিমা ছিল সেই দিবস প্রভাত,
রক্তিম করা জখম পাঁজরাঘাত!
ছিল সংগ্রামী যোদ্ধার বদনে ক্লেশ এবং
নিহারন করছিলো তারা অসুর উল্লাস শ্লেষ!
লুটিয়ে পড়া কতক রণ-লিপ্সু-লড়াকু বীর,
পাশেই আলাদা করা কতক লড়াকুর শির!
রক্ত-পিপাসুদের জিজ্ঞাসন,“কোথায় যোদ্ধা বিচরণ?”
বিবৃতি প্রদান না করে গেল কত বীর উৎসুক প্রাণ!
বাকি যোদ্ধার ললাটে ঘাম বহমান,
“জয় বাংলা”
প্রতিধ্বনি করতে করতে দিল তো নিজ প্রাণ।
সালাম যোদ্ধা তিন সন্তান রেখে যায় রণক্ষেত্রে,
রেখে যায় সে স্বপরিবার দেশ ভাগ্য বিধাত্রে!
যুদ্ধেই সে পায় অমরত্ব, রয়ে যায় পরিবার,
ছেলে মরে গুলি খেয়ে, মা দেয় গগনবিদারী চিৎকার!
দুই মেয়েই তো যায় যায় মহা পীড়াতে ভোগে,
রোগের পথ্য তাহারে কে জুটায় আবার কবে!
যুদ্ধ শেষে অর্ণব মিয়াঁ গুলি খেয়ে আবর্তিত ঘরে,
বুলেট দরূনে অচল ক্ষুর নিয়ে রাস্তায় ভিক্ষে করে!
অনুধ্যানে ৪৫ বছর পরে বলে সে আজ,“শত্রু দোসর যারা,
আমোদ করে সমগ্র জীবন তারা,
কেন আমি আজ সর্বহারা?
ওরে এই প্রজন্ম তোদের দ্বারা?”
–জয়

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

9 + 1 =