“বিশ্বাস”

“বিশ্বাস” শব্দটা খুব মূল্যবান একটা শব্দ…
তুমি চাইলেই একটা মানুষকে বিশ্বাস করতে পারবে না… আবার চাইলেই একটা মানুষের কাছ থেকে বিশ্বাস অর্জন করতে পারবে না… বিশ্বাসের ব্যাপারটা একদম মন থেকে আসে, ভেতর থেকে আসে!!
তুমি মন থেকে যদি কাউকে সত্যিকারভাবে বিশ্বাস করো, তবেই তাকে ভালবাসো, তবেই তার হাতটা ধরো… তোমার বিশ্বাসে যদি একটুও ঘাটতি থাকে, দয়া করে তার জীবনের সাথে নিজেকে জড়িও না … প্লিজ!!

যে মানুষটাকে তুমি ভালোবাসো, তাকে ভালোবাসার আগে বিশ্বাস করো… ঐ মানুষটার প্রতি বিশ্বাসে তোমার জন্য এক ফোঁটাও ঘাটতি থাকে, তাহলে ঐ ভালোবাসাটা টিকবে না … একদম টিকবে না !!
এমন কোন কাজ করবে না, যাতে সেই মানুষটার মধ্যে “সন্দেহ” চলে আসে … সন্দেহ বড্ড খারাপ জিনিস … সন্দেহ বুকে পুষে ভালোবাসা যায় না… “সন্দেহ” – একটা ভাইরাসের মত… তোমার বুকের ভেতর যত ভালোবাসাই থাকুক না কেন … আস্তে আস্তে ঐ ভাইরাস বুকের ভেতরের সবটুকু ভালোবাসা তিলে তিলে শেষ করে দিবে !!
মানুষ “পারফেক্ট” না… তুমি যতই ভুল করো, একটা মানুষের কাছে সেই ভুল স্বীকার করলে খুব বেশি ক্ষতি হবে না… কিন্তু ভালো থাকার জন্য ওই ভুলটা লুকিয়ে ফেললেই আরো বিরাট একটা ভুল করে বসবে… একদিন না একদিন যখন তোমার লুকানো সত্যটা প্রকাশ হবে, সেদিন ঐ মানুষটা ভয়াবহ কষ্ট পাবে… সেই কষ্ট খুব বেশিই তীব্র !!
কারো বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে তাকে কষ্ট দিও না… পৃথিবীতে খেলার জন্য অনেক খেলনা কিনতে পাওয়া যায়… দয়া করে, কিনে নিও… কিন্তু কারো বিশ্বাস নিয়ে খেলো না… ঐ অধিকারটুকু তোমাকে কেউ দেয় নি!!
কেউ একজন বিশ্বাস করে ঘুড়ির নাটাইটা তোমার হাতে তুলে দিলে সেটা শক্ত করে ধরে রেখো… ঘুড়ি হয়ে উড়তে উড়তে এক মূহুর্তের জন্যও যেন ওই মানুষটার মনে না হয়, তুমি নাটাইটা ছেড়ে দিবে… চোখ বুজে তাকে উড়তে দিও… তোমার শক্ত হাতের ভরসায় নিশ্চিন্তে উড়তে দিও!!”

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

37 − = 28