আত্মউন্নয়নঃ ভালো লাগেনা

আত্মউন্নয়নঃ ভালো লাগেনা

ভালো লাগেনা!
ভালো লাগেনা!!
ভালো লাগেনা!!!

পারিপার্শ্বিক সবকিছু অনুকূলে থাকলেও কিংবা ভালোলাগার পর্যাপ্ত উপাদান ক্রিয়াশীল থাকা সত্ত্বেও একজন মানুষের মনে যখন ভালোলাগার অনুভূতি বিরাজ করবেনা তখন এই ভালো না লাগার অনুভূতিকে আমরা কি বলবো? ভালো না লাগার রোগ থেকে কি মুক্তির কোন পথ কি আমাদের জানা নেই? তবে কি তার ভালো লাগার অনুভূতি ভোতা হয়ে গেছে?

ভালো না লাগার অনুভূতির পেছনে কি কোন কার্যকারন নিহিত নেই? এর পেছনে রয়েছে শরীরের বিভিন্ন জৈব-রাসায়নিক ক্রিয়া-তৎপরতা। শরীরের অন্ত:ক্ষরা গ্ল্যান্ড সমূহ এই ভালো না লাগার অনুভূতিকে জিইয়ে রাখছে।

আবার, এই অন্ত:ক্ষরা গ্ল্যান্ডকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে মানুষের কতগুলো মানস ক্ষেত্র! মানস ক্ষেত্রকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠে মানুষের লক্ষ লক্ষ মানস অভিব্যক্তি। মানষ অভিব্যক্তিগুলো আবার পৃথক পৃথক রঙে রঞ্জিত! বাইরের ভালোলাগার রঙিন ঘটনাগুলো ভেতরের নেতিবাচক মানস অভব্যক্তির রঙ গুলোতে প্রভাব বিস্তার করতে পারেনা। মানস অভিব্যক্তির রঙ সমূহ এবং বাইরের ঘটনার রঙগুলোর স্পন্দের পার্থক্যের কারনে মন চঞ্চল হয়ে উঠে_যার মূলে কাজ করে অন্ত:ক্ষরা গ্রন্থির নেতিবাচক জৈব-রাসয়নিক ক্রিয়া তৎপরতা!

যে যত অধিক পরিমানে মানস অভিব্যক্তি ধারন করতে পারে সুখ এবং দুঃখ তত কম পরিমানে তাকে স্পর্শ করতে পারে। সম পরিমান পজিটিভ এবং নেগেটিভ মানস অভিব্যক্তি মনকে সাদা রঙে রঞ্জিত করে_মাসিক অভিব্যক্তি গুলো হয় আলোকময়_আলোকময় মানসিক অভিব্যক্তি সম্পন্ন মানুষ অন্যেরও প্রশান্তির কারন হয়ে দাঁড়ায়। তদ্রুপ পজিটিভ অভিব্যক্তি সম্পন্ন মানুষ গুলোর সংস্পর্শে এসে মানুষ সুখ অনুভব করছে এবং নেতিবাচক মানাস অভিব্যক্তি সম্পন্ন মানুষ গুলো প্রতিনিয়ত নেতিবাচক রঙের বিচ্ছুরন ঘটিয়ে প্রতিনিয়ত অন্যের দুঃখের কারন হিসেবে আবির্ভূত হচ্ছে।
ভালো না লাগার অনুভূতিকে ভালো লাগার অনুভূতিতে ফিরিয়ে আনার কোন পথ কি আমাদের জানা নেই!
আছে!
১) বুদ্ধের অহিংস নীতি গ্রহন কর। সবকিছু ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখ__ক্ষমা কর ও ক্ষমা গ্রহন করার অভ্যাস কর।

২) অটোসাজেনের মাধ্যমে নেতিবাচক অভিব্যক্তিকে অবদমিত করার মাধ্যমে ইতিবাচক মানসিক অভিব্যক্তিকে গ্রহন করার জন্য মনকে প্রস্তুত কর।

৪) ধ্যান বা মেডিটেশন কর। ধ্যানের মাধ্যমে মনের নেতিবাচক মানসিক অভিব্যক্তিতে ওভার রাইটিং এর মাধ্যমে ইতিবাচক মানসিক অভিব্যক্তিতে রুপান্তরিত কর_ মস্তিষ্কের ভাইরাসকে রিমুভ কর। স্বপ্ন দেখ।
সোনালী ভবিষ্যৎ নির্মানের পজিটিভ মানসিক অভিব্যক্তিতে মনকে সমৃদ্ধ কর।

৫) নিজেকে কর্মে ব্যস্ত রাখ_নিজের ও অন্যের কল্যানার্থে কাজ করে যাও!!!

২৩ অক্টোবর, ২০১৫.

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 5 = 3