পরিবেশ নৈতিকতাঃ ইকোলজিক্যাল ব্যালেন্স

ইকোলজিক্যাল ব্যালান্স

আপনি ও আপনার পরিবেশ। এই হলো আপনার ইকোসিস্টেম।

আপনি আপনার ইকোসিস্টেমের অংশ কিংবা সদস্য।

আপনার ইকোসস্টেমের ভারসাম্যতা বুঝা এবং সেমোতাবেক কাজ করা আপনার নৈতিক দায়িত্ব। এটা বুঝার মধ্যেই নিহিত আছে আপনার নৈতিকতা ও মানবতাবোধ।

আপনি পাহাড়কে ভালোবাসেন, নদীকে ভালোবাসেন, বনের পশু-পাখিকে ভালোবাসেন, বৃক্ষ-লতা-গুল্ম-ফুলকে ভালোবাসেন_সর্বোপরি প্রকৃতিকে ভালোবাসেন। কিন্তু কেন?

এই ভালোবাসার মধ্যেই নিহিত আছে আপনার নৈতিকতা ও মানবতাবোধ।

Survival for the fittest. অর্থাৎ যোগ্যতমের বেঁচে থাকা। এটা প্রাকৃতিক নির্বাচন। কিন্তু মানুষ প্রাকৃতিক নির্বাচনের দাস হতে পারেনা। সে প্রকৃতির ক্রিড়নক নয়। সে প্রকৃতির নিয়ন্ত্রক। তাই ইকোলজিক্যাল ব্যালান্স রক্ষার দায়িত্ব তারই।

আপনাকে পরিবেশ নৈতিক হতে হবে। পরিবেশ নৈতিকতার মধ্যেই নিহিত আছে সার্বজনীন মানবতা ও নৈতিকতা।
আপনি কি খাবেন আর কি খাবেননা, আপনি কতটুকু খাবেন আর কতটুকু খাবেননা, আপনি কি করবেন আর কি করবেননা, আপনার কি করা উচিৎ আর কি করা উচিৎ নয় তা নির্ধারনের দায়িত্ব ও কর্তব্য আপনার।

আর্থ-সামাজিক ভারসাম্যতা রক্ষা করা পূর্বে আমাদের ইকোলজিক্যাল ভারসাম্য রক্ষা করাটা জরুরী।

পরিবেশ বাঁচলেই আপনি বাঁচবেন।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “পরিবেশ নৈতিকতাঃ ইকোলজিক্যাল ব্যালেন্স

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

29 + = 36