বন

এবার মৃতদের নিবাস ছাড়লাম মান্যবর সভাসদ !

বিগত দূর্ভাগ্যের ক্ষয়িষ্ণু বিলাস থেকে
সার্বজনীন পটভূমিতে
অদম্য মুক্তির অনুপম বাসনা জাগানো গতিপথ যেখানে
অনন্য এক জীবনাচারের ধারা বহমান
সেইখানে মিলনের সংকীর্তন
মানবের পবিত্রতর বন্দনার দীক্ষাজল আজন্ম।

অতপর চলতে চলতে সেইখানে
ক্ষুধার্ত বিবেচনায় প্রাণের দায়ে,-
গো-বরাহ আমিষে বিদ্যমান
শ্রেষ্ঠত্বের অনুভূতি জাগানো
একজন মানুষ হলাম ।

আবার চলতে চলতে জলঝিরির ধারায়
তৃষ্ণার্ত বিবেচনায় প্রাণের দায়ে,-
গো-বরাহ আমিষে বিদ্যমান
পবিত্র ধর্মাহার প্রত্যাখ্যান করলাম,
আহা! মননে মহত্বের অনুভূতির আলোয়
এবার সত্যিই মানুষ হলাম।

অতপর আবার চলতে চলতে বনের বৈচিত্র্যে
ক্ষুধার্ত বিবেচনায় প্রাণের দায়ে,-
গো-বরাহ-সর্প আমিষে বিদ্যমান
শৃংখল মুক্তির শ্রেষ্ঠত্বের অনুভূতিতে
একজন কঠিন মানুষ হিসেবে আনন্দিত হলাম।

অবশেষে চলতে চলতে গহীণ বনের বৈচিত্র্যের ভেতর
তৃষ্ণার্ত বিবেচনায় প্রাণের দায়ে,-
গো-বরাহ-সর্প আমিষে বিদ্যমান জীবিকার শাসন
শুচি শুদ্ধ প্রেমের জাগরণ স্পন্দনে প্রত্যাখ্যান করলাম;
আহা! মননে মহত্বের চরমতম অনন্য অনুভূতি ধন্য
এবার সত্যি সত্যিই একজন পূরিপূর্ণ মানুষ হলাম।

হে বন ! হে গহীণ বন !
হে গহীণ থেকে গহীণতর অনুপম বন !
হে জীবন্ত সুবর্ণ বিলাস অনন্য বন!
হে বৈচিত্র্যের আধার জয়তু বন।
আমাদের প্রানের মাঝে থেকো অনন্তকাল!
তোমাকে নমষ্কার !
—————————–
আদিবাসী কাব্য ও কবিতা
১২ডিসেম্বর’১৬, ভাটিকাশর, ময়মনসিংহ।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.