গনজাগরণ মঞ্চ উচ্ছেদঃ সরকার নিরপেক্ষতার প্রমাণ!

ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি করাই ছিল ‘হেফাজতে জামাতে ইসলামি’র মূল লক্ষ্য এটা এখন দিবালোকের মত পরিষ্কার।
এদের উচ্ছেদ করে সরকার একটা দৃষ্ঠান্ত স্থাপন করতে পেরেছে যে জনগণের অবোধ ধর্মানুভূতি কে কাজে লাগিয়ে কোন ‘চেটের বাল’ই একটা বাল ও ছিড়তে পারবেনা। এর জন্য সরকার অবশ্যই বাহবা পাওয়ার যোগ্য।

এই বাহবা দেয়ার মঞ্চই যখন উচ্ছেদ করা হয় তখন কিংকর্তব্যবিমূঢ় হতে হয়!
আজ ভোরে গনজাগরণ মঞ্চ ভেঙ্গে দিয়ে সরকার দেশের সকল প্রগতিশীল মানুষকে হতাশ করেছে।

শাহবাগের গনজাগরণ মঞ্চ তার বাহ্যিক অবয়বকে ছাড়িয়ে একটা বিমূর্ত ভাব নিয়ে মানুষের চেতনায় স্থান করে নিয়েছে, এটাই মূলত গনজাগরণ মঞ্চের সাফল্য!
গনজাগরণ মঞ্চ এখন আর কোন মঞ্চ নয় এটা এখন একটা চেতনার নাম।
তাই মঞ্চ ভেঙ্গে গেলেও এর চেতনা থাকে অক্ষত! এই চেতনাধারীরা আবার যেকোন সময় এক হবে এটা বলাই বাহুল্য। তাই বিপুল পরিমানে হতাশ হওয়ার কিছু নেই!

গনজাগরণ মঞ্চ ভেঙ্গে ফেলায় এই হতাশার মাঝেও খুব ছোট্ট একটা স্বস্তি পাওয়া যেতে পারে।
এতদিন গনজাগরণ মঞ্চের বিরোধীরা নানান ত্যানা প্যাঁচিয়ে বলে ‘গনজাগণ মঞ্চ সরকার নিজের স্বার্থে করেছে’।
আজকে গনজাগরণ মঞ্চের উচ্ছেদে অন্তত এইটুকু প্রমাণ হয়েছে যে গনজাগরণ মঞ্চের সৃষ্টিতে সরকারের কোন হাত ছিল না এবং এটা সরকারের কোন স্বার্থ রক্ষার জন্য কাজ করে নি। বরং আপামর জনসাধারনের ভিতরকার আকাংক্ষার বাস্তব প্রতিবিম্ব হয়ে উঠেছিল এই গনজাগরণ মঞ্চ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১৮ thoughts on “গনজাগরণ মঞ্চ উচ্ছেদঃ সরকার নিরপেক্ষতার প্রমাণ!

  1. সরকার কি আর; প্রমান করবার
    সরকার কি আর; প্রমান করবার বিষয় খুঁজে পায় না?
    সরকার চাইলে, যেসকল ব্লগার গ্রেফতার হয়েছে; তারা কতটুকু আস্তিক/নাস্তিক সেটা প্রমাণ করতে পারতো।
    সরকার চাইলে, হেফাজত যে জামায়াত সেটা প্রমান করতে পারতো।

  2. সরকার প্রমান করতে চাইছে এটাতো
    সরকার প্রমান করতে চাইছে এটাতো বলিনি, সরকারের কাজে গনজাগরণ মঞ্চ যে নিরপেক্ষ এটা প্রমান হয়েছে মাত্র

  3. ওরা মঞ্চ ভেঙ্গে দিয়েছে।
    ওরা মঞ্চ ভেঙ্গে দিয়েছে। কিন্তু, হৃদয়ে যে চেতনা ধারণ করেছি, সেটা ভাঙ্গবে কেমন করে???

  4. গনজাগরণ মঞ্চ এখন আর কোন মঞ্চ

    গনজাগরণ মঞ্চ এখন আর কোন মঞ্চ নয় এটা এখন একটা চেতনার নাম। – See more at: http://www.istishon.com/node/1671#sthash.IvJYBNxe.dpuf

    সহমত। চেতনা ভাঙতে পারবে না কখনোই।

    —————————————————————–

  5. যে যাই বলুক , সরকার এর
    যে যাই বলুক , সরকার এর সিদ্ধান্ত টা ভাল হইছে।। রাজনীতির দাবার কোর্ট এ চাল টা ভাল হইছে ।

  6. গণজাগরণ মঞ্চ ভেঙ্গেছে তো কি
    গণজাগরণ মঞ্চ ভেঙ্গেছে তো কি হয়েছে! গণজাগরণ মঞ্চ আমাদের বুকে ধারণ করা আছে। এরূপ গণজাগরণ মঞ্জ যখন তখন যেখানে তৈরী হয়ে যাবে এটা কোন সন্দেহ নাই। বুকে ধারণকৃত জাগরণের চেতনা ভাঙ্গবে কি করে ? ধারণকৃত চেতনা নিয়ে অবশিষ্ট সময় যুদ্ধ চালিয়ে যেতে চাই। যুদ্ধে নেমেছি, জয়ের কোন বিকল্প কল্পনাও করিনা।

  7. ত্যানা পেঁচানো এখনো শেষ হয়
    ত্যানা পেঁচানো এখনো শেষ হয় নি। “সমালোচনা থেকে বাচার জন্য গণজাগরণ মঞ্চ ভাঙছে”
    “আরও আগে কেন ভাঙে নাই”
    “আগে ভাঙলে তো হেফাজত সৃষ্টি হতো না”
    ব্লা ব্লা ব্লা…… :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

  8. ত্যানা ওয়ালাদের ত্যানা
    ত্যানা ওয়ালাদের ত্যানা প্যাঁচানোই স্বভাব ! তো তারা ত্যানা প্যাঁচানো ছাড়বে না !

  9. রাজাকারের ফাঁসীর আন্দোলন করতে
    :মানেকি: :মানেকি: :মানেকি:

    রাজাকারের ফাঁসীর আন্দোলন করতে দিনের পর দিন স্থায়ী একটা মঞ্চ লাগেনা।প্রজন্মের জাগরনের চেতনা’টুকু নিজের ভেতর ধারন করে রাখতে পারলে সঠিক সময়ে প্রজন্ম আবার মঞ্চ বানাইতে কতক্ষন। এখন যদি ত্যানা প্যাঁচাইতে প্যাঁচাইতে আন্দোলনের রূপরেখার চাইতে কেবল মঞ্চ’টারে বড় করে দেখা হয় তাইলে এই নাদানের পক্ষে আর কিছুই বলার নাই । থাকেন সবাই একটা মঞ্চ নিয়া আর ঐদিকে কতগুলা ফাঁসীর মঞ্চ রেডি হইবো সেদিকে খিয়াল না দিয়া — প্যাঁচান ত্যানা :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া:

    1. রাজাকারের ফাঁসীর আন্দোলন করতে

      রাজাকারের ফাঁসীর আন্দোলন করতে দিনের পর দিন স্থায়ী একটা মঞ্চ লাগেনা।প্রজন্মের জাগরনের চেতনা’টুকু নিজের ভেতর ধারন করে রাখতে পারলে সঠিক সময়ে প্রজন্ম আবার মঞ্চ বানাইতে কতক্ষন।

      সহমত। যেটা ভেঙেছে সেটা বাঁশ কাঠের একটা কাঠামো বই কিছুই না। মঞ্চ তো হৃদয়ে তৈরি করেছে শাহবাগ।

  10. গণজাগরণ মঞ্চের মাধ্যমে অর্জিত
    গণজাগরণ মঞ্চের মাধ্যমে অর্জিত মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হৃদয়ে ধারণ করে অপেক্ষা করতে থাকুন ! যে কোন সময় প্রয়োজন হতে পারে…..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

20 − = 19