ইতিহাস ও ঐতিহ্যের শরীয়তপুর

শরিয়তপুর জেলা:
শরিয়তপুর জেলা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের ঢাকা বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল।

ভূগোল ও জলবায়ু:
শরিয়তপুর জেলার আয়তন ১১৮১ বঃকিলোমিটার। এই জেলার উত্তরে মুন্সীগঞ্জ জেলা, দক্ষিণে বরিশাল জেলা, পুর্বে চাঁদপুর জেলা এবং পশ্চিমে মাদারীপুর জেলা। গড় তাপমাত্রা ১২ ডিগ্রী সেলসিয়াস থেকে ৩৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস। গড় বৃষ্টিপাত ২১০৫ মি মি।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ:
শরীয়তপুর জেলা টি ৬উপজেলা, ৫টি মিউনিসিপ্যালিটি, ৬৪টি ইউনিয়ন পরিষদ, ৪৫টি ওয়ার্ড, ৯৩টি মহল্লা, ১২৩০টি গ্রাম এবং ৬০৭টি মৌজা নিয়ে গঠিত।
এই জেলা ছয়টি উপজেলা নিয়ে গঠিত। এগুলো হলঃ
• জাজিরা উপজেলা
• শরীয়তপুর সদর উপজেলা
• গোসাইরহাট উপজেলা
• ডামুড্যা উপজেলা
• ভেদরগঞ্জ উপজেলা
• নড়িয়া উপজেলা
• সখিপুর উপজেলা (প্রস্তাবিত)

শরিয়তপুরের ইতিহাস ও ঐতিহ্য:
শরিয়তপুর অঞ্চলটি জেলা হিসেবে ১৯৮৪ সালে আত্মপ্রকাশ করলেও এ অঞ্চলটি সৃষ্টির প্রথম হতেই বাংলাদেশের অন্যান্য অঞ্চলের ন্যায় সকল ব্যাপারেই বিকশিত হতে থাকে। ইতিহাসের আদিকাল হতেই বিভিন্ন সামন্ত প্রভু ও রাজা দ্বারা এ অঞ্চল শাসিত হয়ে আসছিল। আদিকালে শরীয়তপুরের এ অঞ্চল ‘বংগ’ (Vanga) রাজ্যের অধীনে ছিল। ‘বংগ’ পদ্মা নদীর দক্ষিণে বদ্বীপ অঞ্চলে বিস্তৃত তৎকালীন রাজ্যের নাম। এটি তৎকালীন ভাগীরথী এবং পুরাতন ব্রক্ষ্মপুত্র নদীর দক্ষিণাঞ্চল নিয়ে বিস্তৃত অঞ্চল। রাজা দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তের (৩৮০ খৃঃ – ৪১২ খৃঃ) রাজত্বকালে প্রখ্যাত কবি কালিদাসের ‘রঘুবানসা’ গ্রন্থে তিনি এ অঞ্চলকে গঙ্গানদীর প্রবাহের দ্বীপ দেশ বলে আখ্যায়িত করেন, যার অধিবাসীগণ জীবনের সকল কর্মকান্ডে নৌকা ব্যবহার করতো। এমনকি যুদ্ধেও নৌকার ব্যবহার ছিল। এ অঞ্চলের জনসাধারণ নৌ বিদ্যায় পারদর্শী ছিল। পরবর্তীতে বদ্বীপ অঞ্চল ক্রমে ক্রমে দক্ষিণে সরে যায় এবং ব্রক্ষ্মপুত্র, গঙ্গা ও অন্যান্য নদী বাহিত পলি দ্বারা এ অঞ্চল গঠিত হয়।

• গুপ্ত যুগ (৪র্থ শতক থেকে ৫৪৪ খৃষ্টাব্দ):
গুপ্তবংশের রাজত্বের পূর্ববর্তী বেশ কিছু কাল এ অঞ্চলের ইতিহাস ছিল কিছুটা অষ্পষ্ট। সমুদ্রগুপ্তের (৩৪০-৩৮০ খৃঃ) আলনাবাদ সামন্তের শিলালিপি ও দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তের সময়ের কতিপয় স্বর্ণমুদ্রা আবিষ্কারের ফলে এটা প্রমাণিত হয় যে, এ অঞ্চল গুপ্ত রাজবংশের অধীনস্থ এলাকা ছিল। বর্তমান গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া সদর হতে তিন চতুর্থাংশ মাইল দূরে গোয়াখোলা গ্রামে সোনাকান্দুরী নামক এক মাঠ খননকালে প্রাপ্ত মুদ্রায় এ সকল তথ্য আবিষ্কৃত হয়।

পরবর্তীকালে তাম্র থালা আবিষ্কার এবং তার উপর খোদাই করা মিঃ এফই পারগিটার কর্তৃক পাঠোদ্বারকৃত বক্তব্যে বুঝা যায় যে, ৬ষ্ঠ শতকে বংগের এ অঞ্চল অপর একটি রাজবংশ দ্বারা পারিচালিত হয়েছিল।মিঃ পারগিটারের মতে আনুমানিক ৫৩১ ও ৫৬৭ খৃষ্টাব্দে প্রস্ত্ততকৃত দু’টি তাম্র থালাতে লিপিবদ্ধ বক্তব্যে এটাই প্রমাণিত হয় যে, ধর্মাদিত্য নামক এক রাজা এ অঞ্চল শাসন করেন। তৃতীয় অপর একটি তাম্র থালার লিপিতে প্রাপ্ত তথ্যে রাজা গোপালচন্দ্র এ অঞ্চলের শাসক ছিলেন তার আভাস পাওয়া যায়। ডঃ হর্ণলে ধর্মাদিত্যকেই সম্রাট যশোধর্মন হিসেবে বর্ণনা দেন, যিনি একজন ন্যায় ও ধার্মিক রাজা ছিলেন এবং এ কারণেই তিনি ধর্মাদিত্য নামে পরিচিত ছিলেন। চতুর্থ তাম্র থালা যা কোটালিপাড়ার নিকটবর্তী ধাগড়াহাটিতে আবিষ্কৃত হয়েছে তার শিলালিপি উদ্ধারের ফলে এটা প্রমাণিত হয় যে, গুপ্ত সাম্রাজ্যের পতনের পর ৬১৫ হতে ৬২০ খৃষ্টাব্দ সময় কালে ‘সমাচারদের’ নামক একজন স্বাধীন রাজা এ অঞ্চল শাসন করেন। মিঃ পারগিটারের সাথে সমসাময়িক ভারতীয় বিশেষজ্ঞ বাবু রাধা গোবিন্দও এ ব্যাপারে একমত পোষণ করেন। সমাচারদের গুপ্ত বংশের বাইরের রাজা যিনি শশাঙ্কের শাসন কালের পূর্ব পর্যন্ত এ অঞ্চল শাসন করেছেন।

প্রখ্যাত চীনা পরিব্রাজক হিউয়েন সাং ৬৩০ হতে ৬৪৩ সালের মাঝে ভারতের বিভিন্ন অঞ্চল সফর করেন যখন হর্ষবর্ধন ছিলেন ভারতের ক্ষমতার শীর্ষে। ঐ সময় তাঁর লেখাতেও জানা যায় যে, সপ্তম শতকের মাঝামাঝি সময় এ ‘বংগ’ হর্ষবর্ধনের সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল।

৬৪৭ খৃষ্টাব্দে হর্ষবর্ধনের মৃত্যুর পর তার সাম্রাজ্য বিভিন্ন খন্ডে বিভক্ত হয়ে পড়ে এবং ‘বংগের’ এ জেলা সহ বিভিন্ন স্থানে স্বাধীন রাজাগণ তাদের অবস্থান সুদৃঢ় করেন। এরপর বেশ কিছুকাল এ অঞ্চল কোন কোন রাজা দ্বারা শাসিত হয়েছে তার ঐতিহাসিক তথ্যাদি অপর্যাপ্ত। কিন্তু কিছু তাম্র ফলকের বক্তব্য হতে জানা যায় যে, ‘খাদগাস’ রাজতন্ত্রের অধীনে এ অঞ্চল ৬৫০ খৃষ্টাব্দ হতে ৭০০ খ্রষ্টাব্দ পর্যন্ত শাসনাধীন ছিল।

শরীয়তপুর জেলার জন্য এটা অত্যন্ত গৌরবের বিষয় যে এ জেলার দুটি স্থান ইদিলপুর ও কেদারপুরে এবং বর্তমানে মুন্সিগঞ্জের রামপাল অঞ্চল হতে আবিষ্কৃত তাম্র ফলকের খোদাইকৃত বক্তব্য হতে জানা যায় যে, এ অঞ্চল ‘চন্দ্রা’ নামক বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী শাসকগণ দ্বারা পরিচালিত হতো। দশম শতাব্দী হতে একাদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময় এ অঞ্চল ঐ রাজগোষ্ঠি কর্তৃক শাসিত হয়েছিল।

১০৮০ খৃষ্টাব্দ হতে ১১৫০ খৃষ্টাব্দ সময়কাল ঢাকার বিক্রমপুর হতে ‘বর্মন’ নামক হিন্দু পরিবার এ অঞ্চলকে শাসন করেন। এদের মধ্যে বজবর্মন, জাতা বর্মন, হরি বর্মন, সামালা বর্মন ও ভোজা বর্মনের নাম উল্লেখযোগ্য। সন্ধ্যাকর নন্দী রচিত ‘রামচরিতা’ গ্রন্থে উল্লেখ আছে যে, ১০৮২ হতে ১১২৪ সাল নাগাদ রামপাল উত্তর বঙ্গ শাসন করেন। এ রামপালই ঐ সময় পূর্ব বঙ্গের শাসক একজন বর্মন রাজা, খুব সম্ভব দ্বিতীয় রাজ জাতা বর্মনকে এ অঞ্চল শাসন করার কর্তৃত্ব প্রদান করেন। এ বর্মন রাজগোষ্ঠী অর্ধ স্বাধীনভাবে এ জেলা সহ পূর্ব বঙ্গের অঞ্চল পরবর্তীতে সেন রাজবংশ কর্তৃক বিতাড়িত হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত শাসন করেন।

এরপর শুরু হয় সেন বংশের রাজত্ব। সেন বংশের তৃতীয় রাজা বিজয়সেন (খৃঃ ১০৯৭-১১৬০) শরীয়তপুর অঞ্চলের শাসক ছিলেন। বিজয়সেনই বংগের দক্ষিন পূর্বাঞ্চল হতে বর্মন শাসকদের এবং উত্তরাঞ্চল হতে ‘পাল’ রাজবংশকে উৎখাত করেন। সময়টি দ্বাদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি। তার উত্তর সূরী বল্লাল সেন (খৃঃ ১১৬০ হতে ১১৭৯) একজন পন্ডিত ব্যক্তি ছিলেন যার সুখ্যাতি সর্বত্র বিস্তৃত ছিল। বিজয়সেন ও বল্লালসেন দুজনই শিবের পূজা করতেন এবং তারা পরোপকারের জন্য বিখ্যাত ছিলেন। বল্লালসেন আঠারো বছর রাজত্ব করেন এবং তার পর তিনি তার পুত্র লক্ষণসেনের (খৃঃ ১১৭৮ হতে ১২০৬) হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন। রাজা লক্ষণসেন ১২০৪ সাল পর্যন্ত এ অঞ্চলের শাসক ছিলেন। ঐ বছরই মুসলিম সেনাপতি ইখতিয়ার উদ্দিন মুহম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজী বাংলা আক্রমন করেন এবং সেন রাজাদের রাজধানী নদীয়া দখল করেন। এর ফলে এ বয়োবৃদ্ধ রাজা রাজধানী হতে পলায়ন করে ঢাকার বিক্রমপুরে অবসর নেন। পরবর্তীতে তাঁর বংশধরগণ কয়েক যুগ এ অঞ্চলে রাজত্ব করেন। বংশধরগণের মধ্যে বিশ্বরুপসেন ১২০৬ হতে ১২২০ সাল পর্যন্ত শাসন করেন। ত্রয়োদশ শতাব্দীর মধ্যকাল পর্যন্ত সেনগণ বিনা বাধায় রাজত্ব করেছিলেন। সেনগণ ত্রয়োদশ শতাব্দীর শেষের দিকে বিক্রমপুর হতে তাদের শাসন ক্ষমতা হারান। ঐ সময় দক্ষিণ-পূর্ব বাংলার (কুমিল্লা-নোয়াখালী) শাসক, দেব রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা দামোদর দেবের বংশধর দশরথদেব সেন রাজবংশকে উৎখাত করে শরীয়তপুর অঞ্চলসহ এ এলাকার দায়িত্ব ভার গ্রহণ করেন। তখনকার ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দু বিক্রমপুর হতে প্রদত্ত দশরথ দেবের অদ্যাবধি থালা (ক্ষমতা প্রদান পত্র) হতে এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে। দশরথদেবই হচ্ছেন জানামতে শেষ হিন্দু রাজা যিনি শরীয়তপুর এলাকা সহ দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় বাংলাকে শাসন করেন এবং এর পরেই এ অঞ্চল মুসলমানগণের শাসনে চলে আসে।

• মুগল পূর্ব যুগ (চতুর্দশ শতক হতে ১৫৭৫ সাল):

স্যার উইলিয়াম হান্টারের ঢাকা জেলা পরিসংখ্যান বিবরণী পুস্তকে প্রফেসর ব্লকম্যানের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে যে, ১২০৩-০৪ সালের দিকে মুসলমানগণ কর্তৃক বাংলা দখল হলেও মূলতঃ আজকের বাংলাদেশ অঞ্চলসহ পূর্বাঞ্চলের এ এলাকা ত্রয়োদশ শতাব্দীর শেষ নাগাদ বল্লাল সেনের বংশধরগণ সম্রাট বলবনের নাতী কর্তৃক সোনারগাঁও দখল না করা পর্যন্ত শাসন করে এসেছিলেন। ১৩৩০ সালে মুহম্মদ বিন তুগলক পূর্ব বংগ দখল করেন এবং এ অঞ্চলকে তিনটি প্রদেশে ভাগ করেন। লাখানুতি, সাতগাঁও ও সোনারগাঁও। সোনারগাঁও এর গভর্ণর ছিলেন তাতার বাহরাম খান। ১৩৩৮ সালে বাহরাম খানের মৃত্যুর পর তারই অস্ত্রবাহী ফখরুদ্দিন এ অঞ্চলের ক্ষমতা দখল করে মুবারক শাহ উপাধি নিয়ে দশ বছর শাসন করেন। ১৩৫১ সালে সামসউদ্দিন ইলিয়াস শাহ এবং তার পুত্র সিকান্দার শাহ কর্তৃক সমস্ত বাংলা পুনরায় একত্রিকরণ করা হয়। সোনারগাঁও ক্ষমতাসীনদের প্রধান কেন্দ্রস্থল হওয়াতে প্রায়ই এ অঞ্চল বিভিন্ন বিদ্রোহের শিকার হয়েছিল। পরবর্তীতে সিকান্দার শাহর পুত্র আজম শাহ এর উত্তরাধিকারী হন। এরপর আজম শাহর উত্তরাধীকারীগণ রাজা খান কর্তৃক উচ্ছেদ হন। ফলে পুর্বাঞ্চলীয় জেলা সমূহ রাজা খানদের দখলে চলে যায়। কিন্তু ১৪৪৫ সালের দিকে ইলিয়াস শাহের বংশধর মাহমুদ শাহ (প্রথম) কর্তৃক বাংলা আবার একীভুত হয় এবং তিনি ১৪৮৭ সাল নাগাদ দেশ শাসন করেন। এই সময় বাংলার ঢাকা, ফরিদপুর, বাকেরগঞ্জ অঞ্চল নিয়ে জালালাবাদ এবং ফতেহবাদ প্রদেশ গঠন করা হয়। মিঃ ভিনসেন্ট স্মিথের মতে, হোসেন শাহ ১৪৯৩ হতে ১৫১৯ খৃষ্টাব্দ পর্যন্ত এ দেশ শাসন করেন। তিনিই শ্রেষ্ঠ এবং সবচেয়ে বেশী প্রসিদ্ধ বাংলার মুসলিম রাজা। প্রফেসর ব্লকম্যানের মতে, হোসেন শাহ প্রথমে ফতেহবাদের (বৃহত্তর ফরিদপুর) ক্ষমতা দখল করেন এবং সেখানে তার প্রথম মুদ্রা ছাপানো হয়।

ফতেহবাদ হোসেন শাহের প্রধান শহর ছিল যা কিনা বর্তমানের ফরিদপুর শহর। জালালউদ্দিন ফতেহশাহ নামক লাকনুতি প্রদেশের শাসকের নামানুসারে ফতেহবাদ নামকরণ হয়। ফতেহবাদ ফরিদপুর, ঢাকা, বাকেরগঞ্জ, দক্ষিণ শাহবাজপুর ও সন্দ্বীপ এলাকা নিয়ে গঠিত একটি সরকার বা বিভাগ ছিল।

• মুগল যুগ:
মুগলদের রাজত্বের সময়ে (১৫৭৬-১৭৫৭) সম্রাট আকবরের নির্দেশে ১৫৭৪ সালে মুরাদখান নামে এক সেনাপতির নের্তৃত্বে দক্ষিণ-পুর্ব বাংলা অভিযান হয়। ‘আকবর নামা’র বিবরণ অনুযায়ী ঐ সেনাপতি ফতেহবাদ (ফরিদপুর) ও বাকেরগঞ্জ দখল করেন। জনাব মুরাদ খান এরপর ফরিদপুরেই থেকে যান এবং ছয় বছর পর এখানেই তার মৃত্যু হয়। ফরিদপুর হতে ১৩ মাইল দূরে খান খানাপুরেই খুব সম্ভব তার বাসস্থান ছিল। পরবর্তীতে তাঁর ছেলেরা মুকুন্দ নামক এক হিন্দু জমিদারের বিশ্বাসঘাতকতার ফলে এক ভোজের নিমন্ত্রণে এসে নিহত হন।

আকবরের সময়েও মূলতঃ এ অঞ্চল মুগলদের দখলে যেতে পারেনি। এ অঞ্চল তখন প্রধানতঃ কতিপয় মুসলমান ও হিন্দু স্থানীয় প্রধানদের দ্বারা শাসিত হতো। ইংরেজ ব্যবসায়ী রালফ ফিচ, যিনি বাংলার এ অঞ্চল ভ্রমন করেন, তিনি উল্লেখ করেন যে এখানে তখন বহু বিদ্রোহী ছিল যারা আকবরের শাসনকে গ্রহণ করে নি। রালফ ফিচের মতে ‘‘এখানে অনেক নদী, দ্বীপ থাকার ফলে বিদ্রোহীগণ একস্থান হতে অন্যত্র পালিয়ে বেড়াতো যার ফলে আকবরের অশ্ব বাহিনী তাদের বিরুদ্ধে টিকতে পারতো না’’। এ সময় বাংলার শাসকগণই মূলতঃ বারো ভূঁইয়া নামে খ্যাত যাদের মধ্যে ঈশা খান প্রসিদ্ধ হয়ে আছেন।

শরীয়তপুর -এর নড়িয়া থানার কেদারপুর নামক স্থান পূর্বে পদ্মা নদী-বিধৌত অঞ্চল ছিল। বারো ভূইঁয়াদের দু‘জন ভূইঁয়া চাদঁ রায় ও কেদার রায় এ অঞ্চলের শাসক ছিলেন। কেদার রায় মানসিংহের সেনাপতির সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হন। ইহার ফলে তিনি নিহত হন। মসনদ ই আলা ঈশা খানই অন্যান্য রাজাদের প্রধান ছিলেন যার রাজত্ব ভাটি’ অর্থাৎ বক্ষ্মপুত্র, মেঘনা ও সুন্দরবনের এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল।

বহুবারই দিল্লীর মুগল সম্রাট আকবর বাংলার এ অঞ্চল দখল করার জন্য শক্তিশালী সেনাবাহিনী প্রেরণ করেন। তথাপি তার পুত্র সম্রাট জাহাঙ্গীরের বাংলার গভর্ণর ইসলাম খার (১৬০৮-১৬১৩) সময়েই মূলতঃ এ দেশে মুগল রাজত্বের ভিত্তি হয়। তখন হতেই শরীয়তপুর অঞ্চলসহ বাংলার এ এলাকা মুগলদের পতন পর্যন্তই তাদের দখলে ছিল। ইসলাম খানের পর একুশজন গভর্ণর ১৬১৩ হতে ১৭৫৭ পর্যন্ত এ অঞ্চল শাসন করেন। এ সময়কাল ইতিহাসে শান্তি ও সমৃদ্ধির সময় হিসেবেই পরিচিত। তবুও এ সময়ে এ অঞ্চলের মানুষ পর্তুগীজ জলদস্যুদের সহায়তা প্রাপ্ত মগ ও আরাকানদের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে। নওয়াব শায়েস্তা খার আমলে (১৬৬৩-৭৮) ও (১৬৭৯-৮৮) মগ ও পর্তুগীজগন শায়েস্তা খানের এক অভিযানে নির্মুল হয় , যার ফলে তাদের শক্ত ঘাঁটি চট্রগ্রাম ও সন্ধীপের পতন হয়।

শায়েস্তা খাঁর সময়ে এদেশ খুবই শান্তি ও সমৃদ্ধিতে অতিবাহিত হয়। তার সময় টাকায় আট মন চাল পাওয়া যেতো।শায়েস্তা খাঁর পর ১৭০৩ হতে ১৭১৬ সাল পর্যন্ত নওয়াব মুর্শিদ খান অত্যন্ত দক্ষ মুগল গভর্ণর হিসেবে পরিচয় দেন। তিনি এ জেলাসহ নিকটবর্তী অঞ্চলের ভূমি প্রশাসনের পুনর্গঠন করেন এবং জায়গীর প্রথা প্রবর্তনের মাধ্যমে অর্থ ও কর সংগ্রহের ব্যাপারে উন্নত পদক্ষেপ গ্রহন করেন। ১৭৫৭ সালের সেই পলাশির মর্মান্তিক পরিণতির পূর্ব পর্যন্ত নওয়াব সিরাজউদ্দৌলা এ জেলা সহ বাংলার স্বাধীন নওয়াব হিসেবে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত ছিলেন।

• বৃটিশ যুগঃ
পলাশীর যুদ্ধে লর্ড ক্লাইভ সিরাজদ্দৌলাকে পরাজিত করার পর ১৭৬৫ সালে এ জেলা ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর সৃষ্ট প্রশাসনের আওতায় নিয়ে আসা হয়। শরীয়তপুর সহ ফরিদপুরের দক্ষিণাঞ্চল নিয়ে ঢাকা নিয়াবত গঠন করা হয়। ঢাকা নিয়াবত একজন নায়েব সুবাদার বা নাইব নাজিম ঢাকাকে কেন্দ্রস্থল হিসেবে গঠন করে শাসন পরিচালনা করেন। ঢাকার নায়েব নাজিমের আওতায় প্রায় পচিঁশ হাজার বর্গমাইল অর্থাৎ বর্তমান বাংলাদেশের প্রায় অর্ধেক এলাকা পরিচালিত হতো।
১৭৯৩ সাল হতে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত চালু হয়। ঐ সময়ে হতে শরীয়তপুর জেলা অঞ্চলসহ বৃহত্তর ঢাকা, বাকেরগঞ্জ এলাকা ঢাকা জামালপুর নামে ঢাকাকে কার্য্যালয় স্থাপন করে একটি জেলা গঠন করা হয়। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে এ বিশাল এলাকার জেলাকে প্রয়োজনের তাগিদেই ভাগ করা হয়। ১৮০৭ সালে ঢাকা জামালপুরের জেলা সদর ফরিদপুরে স্থানান্তরিত হয় এবং ঢাকা শহর ও বর্তমান ঢাকা জেলা পূর্বোক্ত ঢাকা জামালপুর জেলা হতে বাদ দেওয়া হয়। ১৮১৫ সালে ফরিদপুর জেলা একজন সহকারী কালেক্টরের অধীনে জেলা রূপে প্রকাশ পায় এবং ১৮৩৩ সাল পর্যন্ত মুগল ম্যাজিষ্ট্রেট ও ডেপুটি কালেকটরের আওতায় শাসন চলে। পরবর্তীতে ১৮৫৯ সালে এ ব্যবস্থার অবসান করে একজন জেলা ম্যাজিষ্ট্রেটের ও কালেকটরের অধীনে আনা হয়। তখন ফরিদপুর জেলার আয়তন ছিল ১৩১২ বর্গমাইল।

শরীয়তপুর জেলা পূর্বে বৃহত্তর বিক্রমপুর এর অংশ ছিল। ১৮৬৯ সালে প্রশাসনের সুবিধার্থে ইহাকে বাকেরগঞ্জ জেলার অংশ করা হয়। কিন্তু এ অঞ্চলের জনগণের আন্দোলনের মুখে ১৮৭৩ সালেই এ অঞ্চলকে মাদারীপুর মহকুমার অন্তর্গত করে ফরিদপুর জেলার অংশ হিসেবে গ্রহণ করা হয়। ১৮৫৭ সালের ভারতের স্বাধীনতা যুদ্ধের সরাসরি কোন প্রতিক্রিয়া এ অঞ্চলে পড়েনি। তবে এ যুদ্ধ কোম্পানীর প্রশাসনের অবসান ঘটিয়ে গ্রেট বৃটেনের মহারাণী ভিক্টোরিয়ার সরাসরি তত্ত্বাবধানে এ উপমহাদেশকে নিয়ে আসা হয় যার ফলে শরীয়তপুর জেলাও বৃটিশ রাজ্যের সরাসরি প্রশাসনের আওতায় পড়ে।

ভাইসরয় লর্ড কার্জনের সময় ১৯০৫ সালে বাংলাকে দু‘টো ভাগে বিভক্ত করা হয়। এ বিভক্ত বাংলার ইতিহাসে সুদুর প্রসারী ফল বিস্তার লাভ করে।নবগঠিত পূর্ব বঙ্গ ও আসাম রাজ্য যেখানে মুসলমানগণ সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিলেন সে অঞ্চলে মুসলিমগণ শিক্ষা, চাকুরী, ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে লাগলেন। কিন্তু হিন্দুগণ ইহা মেনে নিতে পারলেন না। ১৯০৬ সলে শরীয়তপুর সহ বৃহত্তর ফরিদপুরের হিন্দুগণ এর বিরুদ্ধে রুখে দাড়াঁলেন। তারা এ বিভক্তি বিরোধী আন্দোলন সৃষ্টি করলেন এবং স্বদেশী আন্দোলন গড়ে তুললেন। নতুন প্রদেশের গভর্ণর স্যার বেনফিল্ড ফুলার এ আন্দোলন দমানোর জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করলেন। তা সত্বেও আন্দোলন অধিকতর গতিশীল হলো। ফলস্বরুপ ১৯১১ সালের ডিসেম্বর মাসে এ বিভক্তি রহিত করতে হয়। ইহাই ইতিহাসে বংগভংগ আন্দোলন নামে খ্যাত।

এর পর ক্রমে ক্রমে শরীয়তপুরের অঞ্চল সহ ভারতের অন্যান্য অঞ্চলে স্বাধীনতা সংগ্রামের সুত্রপাত হয়। কংগ্রেস ও মুসলিম লীগ উভয় রাজনৈতিক দলের কর্মীরাই এ জেলায় সক্রিয় ছিলেন। এমনকি ১৯১০ হতে ১৯৩৫ সালের দিকে এ অঞ্চলের বহু বিপ্লবী সক্রিয়ভাবে সন্ত্রাসবাদী আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ে ভারতের স্বাধীনতার জন্য অংশ নেন। লোনসিংএ জন্মগ্রহণকারী বিপ্লবী পুলিনবিহারী দাস এদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ।

• পাকিস্তান আমল:
পূর্ব বাংলা মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ট অঞ্চল হওয়ায় তৎকালীন মুসলিম লীগের প্রাধান্য এ প্রদেশে বেশী দেখা যায়। যার ফলশ্রুতিতে ১৯৪৭ সালের ১৪ ই আগষ্ট তৎকালীন ভারতের এ অঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চল নিয়ে মুসলমানদের জন্য গঠিত হয় স্বাধীন সার্বভৌম পাকিস্তান। পূর্ব বঙ্গ পরিণত হয় পূর্ব পাকিস্তানে। ১৯৪৭ সালর ১৪ ই আগষ্ট হতে ১৯৭১ সালের ১৫ই ডিসেম্বর পর্যন্ত শরীয়তপুর জেলা সহ এ প্রদেশ ছিল পাকিস্তানেরই একটি অংশ।

• বাংলাদেশ আমল

ঘটনার প্রবাহে পাকিস্তানের পশ্চিমাঞ্চল পূর্বাঞ্চলের উপর অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক ভাবে শোষণ আরম্ভ করে। বাংলার অন্যান্য অঞ্চলের জনগণের সাথে সাথে শরীয়তপুরের জনগণও সেই শোষণ মুক্তির সংগ্রামে অংশ নেয়। বহু মায়ের বুক খালি করে, বহু ভগ্নির ত্যাগের ফলে এবং লাখো শহীদের প্রাণের বিনিময়ে পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলে মুক্তিযুদ্ধের ফসল স্বরুপ পায় স্বাধীনতা। ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর মুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হয় ।

প্রশাসনিক সুবিধার্থে মাদারীপুরের বৃহৎ পূর্বাঞ্চল নিয়ে একটি পৃথক মহকুমা গঠনের প্রয়াস ১৯১২ সাল হতেই নেয়া হয়েছিল। এর পরে পাকিস্তান সৃষ্টিও বাংলাদেশের অভ্যুদয় নতুন প্রশাসনিক দৃষ্টি ভঙ্গি গঠন করতে সহায়তা করে। স্বাধীনতার পর ১৯৭৬ সালে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় মাদারীপুরের পূর্বঞ্চল নিয়ে একটি নতুন মহকুমা গঠিত হবে। বিষয় নির্বাচনী কমিটির সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে বিশিষ্ট সমাজ সংস্কারক, বৃটিশ বিরোধী তথা ফরায়েজী আন্দোলনের নেতা হাজী শরীয়ত উল্লাহর নামানুসারে এর নাম করণ হয় শরীয়তপুর এবং এর সদর দপ্তরের জন্য পালং থানা অঞ্চলকে বেছে নেয়া হয়। ১৯৭৭ সালের ১০ ই আগষ্ট রেডিওতে সরকার কর্তৃক মহকুমা গঠনের ঘোষণা দেয়া হয় এবং ঐ বছরের ৩রা নভেম্বর এ মহকুমার আনুষ্ঠানিক শুভ উদ্বোধন করেন তৎকালীন উপদেষ্টা জনাব আবদুল মোমেন খান। প্রথম মহকুমা প্রশাসক ছিলেন জনাব আমিনুর রহমান। এর পর রাষ্ট্রপতি হুসেইন মোঃ এরশাদ সরকারের প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাসের ফলে শরীয়তপুর মহকুমাকে জেলায় রূপান্তর করা হয়। ৭ই মার্চ ১৯৮৩ সালে জেলা গঠনের ঘোষণা হয়। ১৯৮৪ সালের ১লা মার্চ শরীয়তপুর জেলার শুভ উদ্বোধন করেন তৎকালীন তথ্য মন্ত্রী জনাব নাজিম উদ্দিন হাশিম। বর্তমান শরীয়তপুর বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী জেলা।

বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব:
☆ অতুল প্রসাদ সেন
পদবী : ব্যারিষ্টার ও গীতিকার
পিতার নাম : রামপ্রসাদ সেন
ঠিকানা : গ্রাম- মগর, থানা- নড়িয়া
জন্ম : ২০ অক্টোবর, ১৮৭১
কর্ম : তিনি আইন ব্যবসা ও গানের গীতিকার ছিলেন।
মৃত্যু : ২৬ আগষ্ট ১৯৩৪

☆ এম আজিজুল হক
পদবী : সাবেক উপদেষ্টা
পিতার নাম : এম এন এ জনাব আবদুর রহমান বকাউল
ঠিকানা : গ্রাম-দিগর মহিষখালী, থানা-ভেদরগঞ্জ
জন্ম : ১৩ ডিসেম্বর ১৯৪০
কর্ম : ঢাকা ও চট্রগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার,ডিআইজি, এবং পুলিশের সাবেকা মহাপরিচালক ছিলেন।

☆ আতাউল হক
পদবী : সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব
পিতার নাম : আবুল ফারাহ মুহাম্মদ আবদুল হক
ঠিকানা : গ্রাম-পাকইকপাড়া, থানা-নড়িয়া
জন্ম : ১৪ জুলাই ১৯৪০
কর্ম : বগুড়ার জেলা প্রশাসক, কেবিনেট ডিভিশন ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ছিলেন ।

☆আব্দুর রাজ্জাক
পদবী : ভাস্কর্য শিল্পী
পিতার নাম : আলহাজ্জব সাদর আলী আমিন
ঠিকানা : গ্রাম-দিগর মহিষখালী, থানা- ভেদরগঞ্জ
জন্ম : ৫ নভেম্বর ১৯৩২
মৃত্যু : ২৩ অক্টোবর ২০০৫
কর্ম : ঢাকা আর্ট কলেজের শিক্ষক, চারুকলা ইনস্টিটিউট এর প্রথম পরিচালক ও ভাস্কর্য বিভাগের প্রধান ছিলেন ।

☆ আব্দুর রাজ্জাক
পদবী : প্রাক্তন পানি সম্পদ মন্ত্রী
পিতার নাম : আলহাজ্জ্ব ইমাম উদ্দিন
ঠিকানা : গ্রাম-দক্ষিন ডামুড্যা, থানা- ডামুড্যা
জন্ম : ০২ মে ১৯৪০
মৃত্যু : ২৩ ডিসেম্বর ২০১১
কর্ম : মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, জাতীয় সংসদের সাবেক মাননীয় সংসদ সদস্য।

☆ আবু ইসহাক
পদবী : ঔপন্যাসিক
পিতার নাম : মোঃ এবাদ উল্লাহ
ঠিকানা : গ্রাম-ফতেজঙ্গপুর, থানা-নড়িয়া
জন্ম : ০১ নভেম্বর ১৯২৬
কর্ম : সিভিল সাপ্লাই এর পরিদর্শক, পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তা ছিলেন ।
মৃত্যু : ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০০৩

☆ এম এ রেজা
পদবী : সমাজ কর্মী
পিতার নাম : আলহাজ্ব মাইনুল হক শিকদার
ঠিকানা : গ্রাম-কার্তিকপুর, থানা-ভেদরগঞ্জ।
জন্ম : ১৭ ফেব্রুয়ারী ১৯৪৭
কর্ম : ন্যাশনাল ব্যাংকের পরিচালক, কর্ণফুলী ইন্সুরেন্স কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা।

☆ গীতা দত্ত
পদবী : বিশিষ্ট গায়িকা
স্বামীর নাম : গুরুদত্ত
ঠিকানা : গ্রাম-ইদিলপুর, থানা-গোসাইরহাট
জন্ম : ১৯৩১ সাল
কর্ম : হিন্দী চিত্রে প্লে-ব্যাক গায়িকা ও ফিল্ম রেকর্ডের গায়িকা।
মৃত্যু : ২০ জুলাই ১৯৭২

☆ গুরুপ্রসাদ সেন
পদবী : বাংলাদেশের ১ম এম.এ
পিতার নাম : কাশীচন্দ্র
ঠিকানা : ডোমসার, শরীয়তপুর
জন্ম : ২০ মার্চ ১৮৪৩
কর্ম : কংগ্রেসের সক্রিয় নেতা
মৃত্যু : ২৯ সেপ্টেম্বর ১৯০০

☆ গোপাল চন্দ্র ভট্রাচার্য্য
পদবী : বৈজ্ঞানিক
পিতার নাম : অন্বিকা চরণ ভট্রাচার্য
ঠিকানা : লোনসিং, নড়িয়া
জন্ম : ০১ আগষ্ট ১৮৯৫
কর্ম : শিক্ষকতা
মৃত্যু : ৮ এপ্রিল ১৯৮১

☆ গোষ্ট পাল
পদবী : ফুটবলার
পিতার নাম : শ্যাম লাল পাল
ঠিকানা : ভোজেশ্বর, নড়িয়া
জন্ম : ২০ আগষ্ট ১৮৯৬
কর্ম : ফুটবল খেলোয়ার
মৃত্যু : ৮ এপ্রিল ১৯৭৫

☆ দেবদাস চক্রবর্তী
পদবী : চিত্রশিল্পী
পিতার নাম : তারক ব্রক্ষ চক্রবর্তী
ঠিকানা : গ্রাম-দেওভোগ, থানা-শরীয়তপুর সদর
জন্ম : ২৪ ডিসেম্বর ১৯৩২
মৃত্যু : ৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৮
কর্ম : বেসরকারী প্রতিষ্টানে চাকুরী এবং চট্রগ্রাম বিঃবিদ্যালয়ের ললিতকলা বিভাগে চাকুরী।

☆ পুলিন বিহারী দাস
পদবী : স্বাধীনতা সংগ্রামী
পিতার নাম : নবকুমার
ঠিকানা : লোনসিং, নড়িয়া
জন্ম : ২৪ জানুয়ারি ১৮৭৭
মৃত্যু : ১৭ আগষ্ট ১৯৪৯

☆ রাজবল্লভ সেন
পদবী : রাজা
পিতার নাম : রায়দুর্লভ বা দুর্লভ রাম
ঠিকানা : বিক্রমপুর
জন্ম : ১৬৯৮
মৃত্যু : ১৭৬৩

☆ রাম ঠাকুর
পদবী : সাধু/সন্নাসী
পিতার নাম : রাধামধব চক্রবর্তী
ঠিকানা : ডিঙ্গামানিক, নড়িয়া
জন্ম : ১৮৫৯ সাল
মৃত্যু : জানা যায়নি।

☆ কর্নেল (অব:) শওকত আলী
পদবী : মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক,সংসদ সদস্য এবং সাবেক ডেপুটি স্পীকার
পিতার নাম : মুনশি মোবারক আলী
ঠিকানা : লোনসিংহ, বাহের দিঘীর পাড়, নড়িয়া
জন্ম : ২৭ জানুয়ারি ১৯৩৭ সাল
কর্ম : সেনাবাহিনী কমিশন, কর্নেল ছিলেন ।

☆ ডাক্তার গোলাম মাওলা
পদবাীঃ ভাষা সৈনিক
পিতাঃ আলহাজ্ব আঃ গফুর ঢালী
মাতাঃ ছুটু বিবি
জন্মঃ ২০ অক্টোবর, ১৯২০ খ্রীঃ
মৃত্যুঃ ২৯ মে, ১৯৬৭ খ্রীঃ
ঠিকানাঃ গ্রামঃ পোড়াগাছা, ইউনিয়নঃ মোক্তারের চর, উপজেলাঃ নড়িয়া, জেলাঃ শরীয়তপুর।
জীবনঃ চিকিৎসক ও ৫২’র ভাষা সৈনিক
পদকঃ ২০১০ সালের একুশে পদক।

অর্থনীতি:
এই জেলায় বসবাসকারী মানুষের বেশীর ভাগ কৃষিকাজের সাথে যুক্ত। উৎপাদনশীল শস্যের মধ্যে রয়েছে ধান, পাট, গম, পিঁয়াজ, মিষ্টি আলু, টমেটো প্রভৃতি। এর মধ্যে পাট, পিঁয়াজ, আদা, টমেটো প্রধান রপ্তানী পণ্য হিসেবে বিবেচিত।

শিল্প ও বাণিজ্য:
এই জেলায় শিল্প কারখানা তেমন গড়ে উঠেনি। বর্তমানে এ জেলায় নিম্নোক্ত শিল্পগুলো আছে। চাউলের কল : ১৬৪ টি।আটার কল : ১১২ টি।ময়দার কল : ৪ টি।বরফের কল : ১৩ টি। তেলের কল : ৩ টি।

পত্র-পত্রিকা:
• দৈনিক রুদ্রবার্তা
• দৈনিক হুংকার
• দৈনিক বর্তমান এশিয়া
• দৈনিক যুগন্ধর
• সাপ্তাহিক বার্তাবাজার
• সাপ্তাহিক কাগজের পাতা
• সাপ্তাহিক শরীয়তপুর সংবাদ

ভাষা ও সংস্কৃতি:
বাংলা ভাষাই প্রধান ভাষা। এ এলাকার মানুষের সংষ্কৃিতি বাঙ্গালীদের অনুরূপ।

চিত্তাকর্ষক স্থান:
• সুরেশ্বর দরবার শরীফঃ শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার সুরেশ্বরে মাওলানা জান শরীফের মাজার অবস্থিত। এখানে প্রতি বছর শীতের শেষে তিন দিনের ওরশ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয় এবং বহু ভক্তের সমাগম হয়।

• বুড়ির হাট মসজিদঃ শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা উপজেলার বুড়ির হাট মসজিদটি খুবই বিখ্যাত এবং ইসলামী স্থাপত্যকলার নিদর্শন।

• বুড়ির হাট মুন্সী বাড়ীঃ শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নের অন্তর্গত এই জমিদারবাড়ীটি অবস্থিত। এই বাড়ীটির সম্মুখে দোতলা কাচাড়ী ঘর, শান বাঁধান দীঘি ও অন্যান্য স্থাপত্য খুবই দৃষ্টিনন্দন।

• লাকার্তা শিকদার বাড়িঃ শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার ছয়গাঁও ইউনিয়নে এই বিখ্যাত বাড়ীটি অবস্থিত ।

• পন্ডিতসারঃ এই স্থানে শ্যামপুরি হুজুরের মাজার শরীফ অবস্থিত। পৃথিবীর বহুস্থান থেকে এখানে লোক সমাগম হয়ে থাকে। প্রতি বছর ১১ পৌষ হতে তিন দিনের ওরস হয়। এ ছাড়া পহেলা জ্যৈষ্ঠ তারিখে হযরত শাহ্ সূফি সৈয়দ গোলাম মাওলা হোসায়নী চিশতী শ্যামপুরী (র:) বা শ্যামপুরী হুজুর এর আবির্ভাব দিবস হিসেবে রোজে মোকাদ্দাস দিবস হিসাবে পালিত হয়।

• রুদ্রকর মঠঃ দেড়শত বছরের পুরনো এই মঠটি শরীয়তপুর সদর উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নে অবস্থিত। এই মঠটি দেখার জন্য বহু লোক আসে।

• মগরঃ প্রখ্যাত কবি ও গীতিকার অতুল প্রসাদ সেনের জন্মস্থান। মাতৃভাষা বাংলার প্রতি তাঁর গভীর শ্রদ্ধা । তাঁর রচিত অমর গান ‘‘মোদের গরব মোদের আশা, আ-মরি বাংলা ভাষা’’

• শিবলিঙ্গঃ শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার ভোজেশ্বর ইউনিয়নে উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ কষ্ঠিপাথরের শিবলিঙ্গটি পাওয়া গেছে ।

• মহিষারের দীঘিঃ দক্ষিণ বিক্রমপুরের এককালীন প্রখ্যাত স্থান। চাঁদ রায়, কেদার রায়ের নির্দেশে এখানে পানীয় জলের জন্য কয়েকটি দীঘি খনন করা হয়েছিল বলে জানা যায়। প্রতি বছর পহেলা বৈশাখ হতে এখানে এক সপ্তাহের জন্য মেলা হয়। দিগম্বরী সন্ন্যাসীর মন্দিরও এখানে রয়েছে। সুপ্রসিদ্ধ নৈয়ায়িক গঙ্গাচরণ ন্যায় রত্নের বাসস্থান।

• রাজনগরঃ বৈদ্য প্রধান স্থান। ফরিদপুরের ইতিহাস লেখক আনন্দ চন্দ্র রায়, ঢাকার ইতিহাস লেখক যতীন্দ্র নাথ রায় ও ঢাকার বিশিষ্ট উকিল গুপ্ত এর জন্মস্থান। এখানকার অভয়া ও শিবলিঙ্গ বিখ্যাত।

• কুরাশিঃ রাজা রাজবল্ল¬ভের বংশধরগণের কেউ কেউ এখানে বাস করতেন বলে জানা যায়। বেশ কয়েকটি মন্দির ও শিবলিঙ্গ মূর্তি এখানে রয়েছে

• হাটুরিয়া জমিদার বাড়িঃ হাটুরিয়া জমিদার বাড়ী গোসাইরহাট উপজেলায় অবস্থিত।

• রাম সাধুর আশ্রমঃ শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নে অবস্থিত। এখানে শত বছরের পুরানো এই আশ্রমটি এই ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নই গোলক চন্দ্র সার্বভৌম ও শ্রীযুক্ত কালি কিশোর স্মৃতি রত্ন মহাশয়ের বাসস্থান। প্রতি বছর শীতের শেষে এই আশ্রমকে কেন্দ্র করে তিন দিনের মেলা বসে। এ ছাড়াও ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের হোগলা গ্রামের কার্তিকপুরের জমিদার বাড়ি বিখ্যাত।

• মানসিংহের বাড়ীঃ নড়িয়া উপজেলায় ফতেজংগপুর ঐতিহাসিক মানসিংহের দুর্গের ভগ্নাবশেষ রয়েছে।

• ধানুকার মনসা বাড়িঃ চন্দ্রমনি ন্যায়, ভুবন হরচন্দ্র চুড়ামনি ও মহোপাধ্যায়, শ্রীযুক্ত বামাচরণ ন্যায় প্রভৃতির জন্মস্থান ধানুকায়। এখানকার শ্যামমূর্তি জাগ্রত দেবতা বলে কিংবদন্তী রয়েছে।

• চিকন্দিঃ বৃটিশ জমানা হতেই এখানে একটি দেওয়ানী আদালত প্রতিষ্ঠিত। একটি বিশিষ্ট জনপদ।

• ছয়গাঁওঃ ভেদেরগঞ্জ থানার অন্যতম বিশিষ্ট ঐতিহাসিক স্থান। ব্রিটিশ জমানায় এ গ্রামের বহু হিন্দু নেতা স্বাধীনতা সংগ্রামে উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রেখেছেন। ১৯৩০-৩৪ সালের দিকে সন্ত্রাস দমানের জন্য এখানে একটি বৃটিশ ক্যাম্প ছিল যেখানে বহু শিখ সেনা ব্রিটিশ সরকারের নির্দেশে মোতায়েন করা হয়েছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর ছয়গাঁও বাংলা বাজার নামে একটি বিশিষ্ট জনপদ গড়ে উঠেছে। ইউনিয়নের সকল কার্যক্রম বর্তমানে বাংলাবাজার হাতে পরিচালিত হয়। খান বাহাদুর খলিলুর রহমান শিকদারের বাড়ি এখানেই অবস্থিত।

• দিগর মহিষখালীঃ পাকিস্তান জমানার জাতীয় পরিষদ সদস্য (এম.এন.এ) বিশিষ্ট রাজনীতিক ও এডভোকেট জনাব আবদুর রহমান বকাউল এবং বাংলাদেশ সরকারের এককালীন আইজিপি (পুলিশ মহাপরিদর্শক) এবং ২০০৬ সালের তত্বাবধায়ক সরকারের অন্যতম উপদেষ্ট জনাব এম আজিজুল হকের জন্মভুমি। এখানে বিশিষ্ট জননেতা ও প্রাক্তন জাতীয় পরিষদ সদস্য জনাব আবিদুর রেজা খানও জন্মগ্রহণ করেন।

রামভদ্রপুরঃ বিশিষ্ট স্থান, বর্তমান ভেদরগঞ্জ সদর পৌরসভার অংশ। বিশিষ্ট কম্যুনিষ্ট নেতা শান্তি সেন এবং অরুনা সেনের বাসস্থান এখানে। পৌরসভার চেয়ারম্যান জনাব আবদুল হাই এর জন্ম স্থান। এখানকার কোকোলা মসজিদ অনুপম সৌন্দর্যের প্রতীক।

ডামুড্যাঃ বিখ্যাত নদী বন্দর ও ব্যবসা কেন্দ্র। বিশিষ্ট জননেতা এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক আবদুর রাজ্জাক এখানে জন্মগ্রহণ করেন। অপর সংসদ সদস্য জনাব আওরঙ্গজেব, উপমহাদেশের বিশিষ্ট বীমাবিদ জনাব খোদাব্ক্স, এককালীন সাংসদ জনাব ইঞ্জিনিয়ার ফারুক আলম ছাড়াও বহ গণ্যমান্য ব্যক্তি এখানে জন্মগ্রহণ করেন।

কনেশ্বরঃ জমিদার শ্রীযুক্ত কামাখ্যা চরন চট্রোপাধ্যায়ের বাসস্থান। ব্রিটিশ জমানা হতে এখানে একটি তহসিল অফিস আছে। বিশিষ্ট সমাজ কর্মী ও রাজনীতিক জনাব শেখ আলী আশরাফ এবং জননেতা সেলিম মিয়ার জন্মস্থান।

সিভাড্যাঃ শ্রীযুক্ত আশুতোষ ভট্রাচার্য ও শৈলেন্দ্র নাথ রায় আই.সি,এক কালীন পশ্চিম বঙ্গ সরকারের মূখ্য সচিব এখানকার সিভাড্যা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন । এ গ্রামের চৌধুরী পরিবার বিখ্যাত।

হাটুরিয়াঃ এককালে স্টিমার স্টেশন ছিল। এখানকার কালিবাড়ি ও সখালুতলার দূর্গা প্রসিদ্ধ। কোলকাতার ঠাকুর বংশীয় জমিদার কালীকৃষ্ণ ঠাকুরের জমিদারি কাচারি এখানে এখন ও আছে। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী জনাব শামসুর রহমান (শাহজাদা মিয়া),ব্রিটিশ জমানার বিশিষ্ট মুসলিম জমিদার সেকান্দার আলী চৌধুরী ও তার পুত্র রওশন আলী চৌধুরীর জন্মস্থান। এখানকার জমিদার নওয়াব আলী চৌধুরী ও বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব।

ধানকাঠিঃ বহু কায়স্থ ভদ্রলোকের বাসস্থান। এখানকার কালী প্রসাদ রায় ও তার বগ্নী জাহ্নবী চৌধুরীর প্রখ্যাত ব্যক্তি। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী আবুল কালাম আজাদের জন্মস্থান।

ইদিলপুরঃ এককালের বিখ্যাত পরগণার নাম। এখানকার জমিদারগণ বাংলার বিশিষ্ট ব্যক্তি ছিলেন। বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ কালী প্রসন্ন ঘোষ, সাধনা ঔষধালয়ের প্রতিষ্ঠাতা যোগেশচন্দ্র ঘোষের জন্মস্থান। বাংলার বিশিষ্ট কন্ঠ শিল্পী গীতা দত্তের পিতৃভূমি।

লোনসিংঃ পূর্বে লোনসিং একটি থানা ছিল। দেশখ্যাত বোশ কয়েকজন ব্যক্তিত্বের জন্মস্থান এই গ্রাম। এখানকার ডেপুটি বাড়ি বিখ্যাত। রায় বাহাদুর অভয় চরণ দাস, ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃত কালাপানি ভোগকারী পুলিন বিহারী দাস, বৈজ্ঞানিক গোপাল চন্দ্র ভট্রাচার্য সহ এখানে জন্মগ্রহণকারী বেশ কয়েকজন ব্যক্তি তাদের কর্মকান্ডের জন্য সুখ্যাতি অর্জন করেছেন।

সিরঙ্গলঃ বারভূঞাদের প্রভাবকে নস্যাত করার মানসে সম্রাট আকবর তার পুত্র সেলিম (জাহাঙ্গীর) কে এখানে প্রেরণ করেছিলেন। তিনি এখানে একটি সেনানিবাস স্থাপন করেন। সেলিমের নামানুসারে এ গ্রামের নাম পূর্বে ছিল সেলিম নগর। পরে ইহা সিরঙ্গলে পরিণত হয় ঔপন্যাসিক আবু ইসহাকের জন্মস্থান। এর পাশেই সাতপাড় গ্রামে বিশিষ্ট চিকিৎসাবিদ, সমাজকর্মী এবং এককালীন জাতীয় পরিষদ সদস্য ডাঃ কে এ জলিল জন্মগ্রহণ করেন।

কানুরগাঃ কবি গোবিন্দ রায় ও তার ভ্রাতা বঙ্গ বিখ্যাত ঢাকা জজকোর্টের উকিল আনন্দ চন্দ্র রায় এর জন্মস্থান।

মশুরাঃ মহা মহোপাধ্যায় তারিনী চরণ শিরোমনীর জন্মস্থান। এখানে উপমহাদেশের বৃহত্তম শিবলিঙ্গ মূর্তি পাওয়া গেছে।

ফতেজঙ্গপুরঃ প্রাচীন নাম শ্রনগর। মুঘল সেনাপতি রাজ মানসিংহ যখন বিক্রমপুর আক্রমণ করেন তাখন তার সহযোগী যোদ্ধাগণ এখানকার রাজvাকদার রায় কর্তৃক পরাস্ত হয়ে শ্রীনগরে আশ্রয় নিয়েছিলেন। মানসিংহ তাদেরকে উদ্ধারের জন্য তার সেনাবাহিণী প্রেরণ করেন। ফলে প্রচন্ড যুদ্ধ সংঘঠিত হয়। কেদার রায় এ যুদ্ধে আহত হয়ে মৃত্যমুখে পতিত হন। জয় চিহ্ন স্বরুপ মানসিংহ শ্রীনগরের নাম পরিবর্তন করে ফতেজঙ্গপুর রাখেন। ইহা বিখ্যাত জ্যোতির্বিদ মদন মোহন বিদ্যাভূষণের জন্মস্থান। এখানে নাককাটা বাসুদেবের প্রস্থর মূর্তি আছে।

রজানগরঃ বৈদ্য প্রধান স্থান। ফরিদপুরের ইতিহাস লেখক আনন্দ চন্দ্র রায়, ঢাকার ইতিহাস লেখক যতীন্দ্র নাথ রায় ও ঢাকার বিশিষ্ট উকিল রাজনীকান্ত গুপ্ত এদের জন্মস্থান। এখানকার অভয়া ও শিবলিঙ্গ বিখ্যাত।

শ্রীপুরঃ পূর্বে চাঁদরায় ও কেদার রায়ের বাসস্থান ছিল।

কেদারপুরঃ কেদার রায় এখানে বাসস্থান তৈরী করতে চেয়েছিলেন। কিছু কাজ সমাপানান্তে তার মৃত্যু হওয়াতে উহ পরিত্যক্ত হয়। বাড়ির চতষ্পার্শ্বে যে পরিখা খনন করতে ছিলেন তার ভগ্নাবশেষ এখনও বিদ্যমান। ইহাকে কেদার রায়ের বাড়ির বেড় বলে।

উপসীঃ ব্রাক্ষণ জমিদার তারা প্রসন্ন ভট্রাচার্যের বাসস্থান। এখানকার উচ্চ বিদ্যালয়টি বেশ প্রাচীন ও নামকরা।

ডিঙ্গামানিকঃ গোলক চন্দ্র সার্বভৌম ও শ্রীযুক্ত কালি কিশোর স্মৃতি রত্ন মহাশয়ের বাসস্থান। এখানে রামসাধুর আশ্রম বিখ্যাত ।

কার্তিকপুরঃ পূর্বে একটি পরগনার নাম ছিল হোগলা। এ নামে যে স্থান পরিচিত তার প্রকৃত নাম হোগলী। প্রখ্যাত মুসলিম জমিদার চৌধুরী পরিবারের বাসস্থান। এক কালীন পূর্ব পাকিস্তান মন্ত্রী পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন আহমদ চৌধুরীর জন্মস্থান। জবু সম্ভ্রান্ত ব্রাক্ষণ ও বৈদ্যের বাসস্থান। বিশিষ্ট জমিদার মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, রায় বাহদুর রায়মোহন সেন ও শ্রীমন্ত কুমার দাস গুপ্ত এদের জন্মস্থান। শিল্পপতি ও শিক্ষানুরাগী জয়নুল হক শিকদার ও প্রাক্তন এমপি এম.এ রেজা এখানে জন্মগ্রহণ করেন।

চরআত্রাঃ বিখ্যাত স্থান। এখানাকার অনেক অঞ্চলই আজ প্রমত্তা পদ্মার গর্ভে বিলীন। ব্রিটিশ সরকার কর্তৃক খান সাহেব উপাধিতে ভূুষত এবং পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাকাললীন সময়ের জাতীয় পরিষদ সদস্য খান সাহেব আবদুল আজিজ মুনশি এখানে জন্মগ্রহণ করেন। বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড.এ কে এম ফজলুল হকের জন্মস্থান ও এখানেই।

নওপাড়াঃ বাংলাদেশ সরকারের সাবেক বাণিজ্য সচিব জনাব ফিরোজ আহমেদ এবং জর্দানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জনাব গোলাম মোহাম্মদের জন্মস্থান। পদ্মা নদীতে বিলীন হওয়া এবং পরে আবার জেগে ওঠা একটি বর্ধিষ্ণু জনপদ।

পাইকপাড়াঃ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ আবুল ফারাহ মুহাম্মদ আবদুল হক ফরিদী এবং তাঁর যোগ্য সন্তান বাংলাদেশ সরকারের সাবেক কেবিনেট সচিব জনাব আতাউল ( জেলার একমাত্র সিএসপি) এর জন্মস্থান।

মোক্তারের চরঃ বিশিষ্ট রাজনীতিক ও বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের বিশিষ্ট ছাত্রনেতা ও সাবেক পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের এম,এস,এ, ডাঃ গোলাম মাওলার জন্মস্থান।

মূলফতগঞ্জঃ বিখ্যাত বন্দর ও হাট। বিশিষ্ট রাজনীতিক ও সমাজকর্মী জনাব আবদুল করিম দেওয়ান (মনাই দেওয়ান) এর জন্মস্থান।

বাহের দিঘীর পাড়ঃ বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও জাতীয় সংসদের সদস্য কর্ণেল শওকত আলীর জন্মস্থান।

কলুকাঠিঃ বিশিষ্ট রাজনীতিক ও বাংলাদেশ সরকারের প্রাক্তন প্রতিমন্ত্রী জনাব টি,এম গিয়াসউদ্দিন এবং বিশিষ্ট চার্টার্ড একাউনেটেন্ট জনাব মোঃ সাইদুর রহমান, এনবিআর এর সাবেক সদস্য (কর) জনাব এ, এস. জহির মোহাম্মদ , ডাঃ আলমগীর মতি প্রমুখ এর জন্মস্থান।

বিলাসপুরঃ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও এককালীন পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য জনাব আবদুর রশিদ খলিফার জন্মস্থান। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ ইউনুস খলিফা ও এখানে জন্মগ্রহণ করেন।

কবিরাজ কান্দিঃ বিশিষ্ট রাজনীতিক ও প্রাক্তন জাতীয় সংসদ সদস্য আমিনুল ইসলাম দানেশ মিয়ার জন্মস্থান।

বড় মুলনাঃ বিশিষ্ট পোষাক শিল্প কারখানার মালিক, রাজনীতিক ও ব্যবসায়া জনাব মোবারক আলী শিকদারের জন্মস্থান।

বড় গোপালপুরঃ বিশিষ্ট রাজনীতি জনাব মাষ্টার মজিবুর রহমান এবং দেশের বিশিষ্ট নির্মাত প্রতিষ্ঠান মেসার্স মাসুদ এন্ড কোং এর ম্যানেজিং ডাইরেক্টর জনাব মাকসুদুরল হক সিরাজী মাসুদ এর জন্মস্থান।

মাঝির ঘাটঃ ঢাকা-শরীয়তপুরের গেট ওয়ে। মাওয়া হতে সকল স্পীটবোট, লঞ্চ, ফেরি, ট্রলার এখানে এসে ভিড়ে। একটি ব্যস্ত নদী বন্দর।

শরীয়তপুর জেলার নদ-নদী
শরীয়তপুর জেলা কীর্তিনাশা নদীর তীরে অবস্থিত। এ জেলার উল্লেখযোগ্য অসংখ্য নদীর মধ্যে রয়েছে পদ্মা, মেঘনা, দামুদিয়া, আরিয়াল খাঁ। এ সকল নদীর অসংখ্য শাখা নদীও রয়েছে।

শরীয়তপুর সদর উপজেলাঃ কীর্তিনাশা,বিণোদপুর ও পালং নদী এবং নড়িয়া খাল উল্লেখযোগ্য।

জাজিরা উপজেলাঃ প্রধান নদী পদ্মা।
গোসাইরহাট উপজেলাঃ প্রধান নদী মেঘনা ও জয়ন্তী নদী।
ডামুড্যা উপজেলাঃ প্রধান নদী পদ্মা ও জয়ন্তী।
নড়িয়া উপজেলাঃ পদ্মা ও পালং। নড়িয়া খাল উল্লেখযোগ্য।
ভেদরগঞ্জ উপজেলাঃ পদ্মা ও মেঘনা নদী এবং বাংলাবাজার খাল উল্লেখযোগ্য।

শরীয়তপুর জেলার কৃষি ব্যবস্থা

শরীয়তপুর নদী বেষ্টিত একটি জেলা। এর উত্তরে পদ্মানদী ও মুন্সীগঞ্জ জেলা পূর্বে মেঘনা নদী ও চাঁদপুর জেলা, দক্ষিণে বরিশাল জেলা ও পশ্চিমে মাদারীপুর জেলা। এ জেলায় ৬ টি উপজেলা, ৫ টি পৌরসভা ও ৬৫ টি ইউনিয়ন আছে। জেলার মোট আয়তন ১১৮১.৮৪ বর্গ কিলোমিটার ও মোট জমির পরিমান ১১৮২৩৪ হেক্টর। এর মধ্যে আবাদী জমির পরিমান ৯৭৪১৬ হেক্টর। ১০,১১ ও ১৯ কৃষি পরিবেশ অঞ্চলের অন্তর্ভূক্ত। এ জেলায় পলি দো-আঁশ, এটেল দো-আঁশ ও কাদা বুনটের মাটি দৃশ্যমান।

মাটির অম্লত্ব ও ক্ষারত্বের পরিমান ৫.০০-৭.৯০ পর্যন্ত। বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাত ১৮০০ মিলিমিটার। বর্ষাকালে মাঝারী বন্যায় এ জেলার প্রায় ৭৫-৮০ ভাগ এলাকা প্লাবিত হয়। পদ্মা মেঘনা আড়িয়াল খা নদীর প্রভাবে এ জেলা বন্যা প্রবন ও উক্ত মৌসুমের ফসল ঝুকিপূর্ণ। ধান, গম, পাট, আখ, সরিষা, ডাল জাতীয় ফসল, পেয়াজ, রসুন, মরিচ ও ধনিয়া এ জেলার প্রধান ফসল। এছাড়া পান অর্থকরী ফসল হিসাবে আবাদ হয়। প্লাবনভূমি হওয়ায় এ জেলায় আউশ মৌসুমে উফশী জাতের ধানের চাষ আনুপাতিক হারে কম হয়। আমন মৌসুমেও উফশী জাতের চাষ অতি সীমিত। জাজিরা উপজেলায় টমেটো, বেগুন, করলা, পেয়াজ, রসুন ও গোসাইরহাট উপজেলার করলা ঢাকার বাজারে বড় যোগানদার। সুরেশ্বর জাতের ডাঁটা এ জেলা থেকে উদ্ভাবিত।

এ জেলা খাদ্য ঘাটতি এলাকা হিসাবে চিহ্নিত ছিল। সাধারণত প্রাকৃতিক কারণে ফসল হানি না হলেও বছরে খাদ্য ঘাটতি থাকত গড়ে ২৫০০০ মেঃ টন। ১৯৯৮ ও ২০০৪ সালের বন্যা এবং ২০০৭ সালের সিডর আক্রান্ত হওয়ায় খাদ্য ঘাটতি দাড়ায় ৪০০০০ মেঃ টন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকান্ড পূর্বের তুলনায় বৃদ্ধি পাওয়ায় খাদ্য ঘাটতি পুরণ করেও উদ্বৃত্ত খাদ্যের পরিমান ২০৩৪৬ মেঃ টন। আধুনিক কৃষি প্রসারের সাথে সাথে এ জেলায় কিছু অপ্রচলিত ফসলসহ বোরো, আলু, চীনা বাদাম, শাকসব্জী ও মশলা জাতীয় ফসলের আবাদ বাড়ছে। আধুনিক প্রযুক্তি যেমন- মানসম্পন্ন বীজের ব্যবহার, সেচ সম্প্রসারণ, রোগ বালাই দমনে আইপিএম প্রযুক্তি ব্যবহার বাড়ছে। সেচ বন্যা নিয়ন্ত্রণ সমন্বিত কৃষি কর্মসূচীসহ নুতন নুতন কৃষি বিষয়ক কর্মসূচী চালু করা গেলে জেলার কৃষি উৎপাদন উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে।

ব্যবসা-বানিজ্যঃ
এই জেলায় শিল্প কারখানা তেমন গড়ে উঠেনি। বর্তমানে এ জেলায় নিম্নোক্ত শিল্পগুলো আছে।

ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প : (ক) ক্ষুদ্র শিল্প : ৪০৫ টি।

(খ) কুটির শিল্প : ৩১১৮ টি।

রাইস মিলের সংখ্যা : ০২ টি [ডামুড্যা ও নড়িয়া]।

স’মিলের সংখ্যা : ১৪৪ টি।

চাউলের কল : ১৬৪ টি।

আটার কল : ১১২ টি।

ময়দার কল : ৪ টি।

বরফের কল : ১৩ টি।

তেলের কল : ৩ টি।

ইট ভাটা : ৩০ টি।

বিসিক শিল্পনগরী, শরীয়তপুরঃ
বেসরকারী শিল্প উদ্যোক্তাদের অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যে শরীয়তপুর সদরে বিসিক শিল্পনগরী প্রতিষ্ঠিত হয়। এখানে বরাদ্দযোগ্য ১৪৯টি প্লট ১৪২ টি শিল্প ইউনিটের অনুকুলে বরাদ্দ প্রদান করা হয় । বর্তমানে শিল্প কারখানা চালু আছে। এসব শিল্প কারখানায় বছরে প্রায় কোটি টাকার পণ্য উৎপাদিত হয়। কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য লোকের । এ শিল্পনগরী থেকে ভ্যাট, আয়কর ইত্যাদি বাবদ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে বৎসরে প্রায় কোটি টাকা সরকারী কোষাগারে জমা হয়।

মহিলা শিল্প উদ্যোক্তা উন্নয়ন কর্মসূচীঃ
দেশের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকই নারী। নারীদের আয়বর্ধক কর্মকান্ডে অংশ গ্রহণের মাধ্যমে জীবন যাত্রার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে জেলার উপজেলাগুলোতে মহিলা শিল্প উদ্যোক্তা উন্নয়ন কর্মসূচী চালু রয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় ৫৯০৭ জন মহলিাকে ৪৮৬.৯৫ লক্ষ টাকা ঋণ প্রদান করা হয়েছে।

বিঃদ্রঃ তথ্যগত সহযোগিতায় শরীয়তপুর জেলা তথ্য বাতায়ন www.shariatpur.gov.bd

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 2 = 1