চিন্তা ও বাস্তবতাঃ

চিন্তা ও বাস্তবতার প্রতিফলনঃ

১.১ মানুষ চিন্তাশীল প্রানী। চিন্তা মূলত মানব মস্তিষ্কে বাইরের জগতের প্রতিফলন। যে শিশুর বাইরের স্পর্শ নেই তার চিন্তাও নেই যদিও শূন্য স্পর্শ, শূন্য চিন্তা অসম্ভ। কারন শিশু জগতেরই অংশ এমনকি মাতৃগর্ভে থাকালীন সময়েও সে জগতের স্পর্শে থাকে এবং সেখানেও সে পরিপূর্নতার একটা পর্যায়ে চিন্তা করে তা যতই ন্যূনতম হোক।

১.২ যদিও চিন্তা একটি বায়বীয় কিংবা বিমূর্ত বিষয় তথাপি, যে কোন অর্থে চিন্তার অস্তিত্ব স্বীকার্য।

১.৩ দার্শনিক ডেকার্তের সেই বিখ্যাত উক্তিঃ I think, therefore I exist. মনে হয় বিষয়টি এরূপ হওয়া উচিত_ Thinking exists, therefore, I am. চিন্তার অস্তিত্বই আমার অস্তিত্বের নির্নায়ক। মনে হয় তথাপি আমি আমার অস্তিত্ব পরিপূর্নভাবে প্রমান করতে পারলামনা! আমার এই স্ট্যাটাসের লাইক, কমেন্টই আমার অস্তিত্বের চূড়ান্ত প্রমান দিবে!

১.৪ চিন্তা হলো জগতের এবং জগতের অংশসমূহের এবং তাদের মধ্যস্থ সম্পর্ক সমূহের প্রতিফলন যা মূলত মানব মস্তিষ্কে illusion, hallucination কিংবা delusion হিসেবে প্রতিভাসিত হয়।

১.৫ জগতের সঠিল প্রতিফলন পাওয়ার উপায় কি? চিন্তার সঠিক নিয়মালী জানার মাধ্যমেই কি আমরা জগতের সঠিক প্রতিফলন পেতে পারি?

১.৬ দর্শন চিন্তার সঠিক নিয়মাবলীকে নিয়ে আলোচনা করে যা মূলত যুক্তিবিদ্যার সঙ্গে সম্পর্কিত।

১.৭ আর আমাদের বাস্তব পর্যবেক্ষণ ও অভিজ্ঞতাই চিম্তার নিয়মাবলীর নির্নায়ক ও নির্ধারক।

১.৮ অতএব, জগতের সঠিক প্রতিফলনের জন্য বাস্তব অভিজ্ঞতা ও পর্যবেক্ষণের অন্য কোন বিকল্প আমাদের জানা নেই!

১.৯ তবে বাস্তব অভিজ্ঞতা ও পর্যবেক্ষণে প্রাপ্ত তথ্যাদি বিশ্লষণ, প্রক্রিয়াজাতকরন ও সিদ্ধান্ত গ্রহনে বিবর্তনের ধারায় প্রাপ্ত আমাদের মস্তিষ্করূ জৈবিক কম্পিউটারটি কতটুকু ক্ষমতাসম্পন্ন তাও বিবেচ্য বিষয়।

১.১০ মনে হয় ইহাই সঠিক যে, আমরা একই সঙ্গে জগতের ভিন্ন ভিন্ন বাস্তবতায় বাস করি যদিও আমরা মনে করি যে, আমরা জগতের একই বাস্তবতায় বাস করি! অন্যভাবে বলা যায় আমরা একই সঙ্গে ভিন্ন জগতের বাসিন্দা যদিও আমরা মনে করি আমরা একই জগতের বাসিন্দা! আরও বিকল্পভাবে বলা যায় আমরা একই সঙ্গে অসংখ্য মহাবিশ্ব বাস করি, যেটাকে আমরা নির্বাচন করি সেটাই আমাদের বাস্তবতা!

১.১১ আমাদের বাস্তবতা সমূহ পরস্পরের সঙ্গে ততটুকুই সাদৃশ্যপূর্ন মানব প্রজাতির সদস্য হিসবে আমরা পরস্পরের মধ্যে যতটুকু সাদৃশ্যপূর্ন! অর্থাৎ আমাদের বাস্তবতার সাদৃশ্যতা আমাদের পরস্পরের সাদৃশ্যতার সমানুপাতিক তবে শেষোক্ত সাদৃশ্যতা মনো-দেহগত ও পরিবেশগত উভয়ই।

__Abu Momin
18.06.2016

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

8 + 2 =