ও মেয়ে, এটা তোমার মানবাধিকার!

ও মেয়ে এদিকে এসো,
শুনো আমার অপ্রিয় কিছু কথা,
তুমি কি স্বাধীন হতে চাও?
তোমার ও কি ইচ্ছে করে অবাধ্য ছেলের মতো চারিদিকে ঘুরতে ফিরতে?
তোমারও কি ইচ্ছে করে ছেলের মতো আড্ডা দিয়ে রাত বিরাতে ঘরে ফিরতে?
তোমার ও কি ইচ্ছে করে মুষ্টিবদ্ধ হাত উঁচিয়ে রাজপথে আন্দোলনে যোগ দিতে?
তোমার ও কি ইচ্ছে করে জিন্স টিশার্ট পড়ে ছেলের মতো ধাপিয়ে বেড়াতে?

তো চুপ কেন?
শুরু করে দাও!

ও মেয়ে শুনো,
যদি তোমার এসব ইচ্ছে করে তাহলে চুপ থেকো না।
তুমি এসব নির্দ্বিধায় করো।
তোমাকে ওরা বেশ্যা বলবে
খানকি বলবে
মাগী বলবে
নষ্টা বলবে!
তুমি নিজেকে একবার প্রশ্ন করো তো!
এগুলো করলে কি তুমি নষ্ট হয়ে যাচ্ছো?
হ্যাঁ সমাজ তোমাকে নষ্টা বলবে,
ওটা পরোয়া করোনা তুমি।

তোমার লক্ষ্য তোমার স্বাধীনতা। কিছু মুর্খ মুরুব্বীর কথা শুনে নিজেকে পাপী বলে ভেবোনা।
ওরা চিরকালই চায় তুমি নাদুসনুদুস তুলতুলে লক্ষী মেয়ে হয়ে থাকো।
তুমি উচ্চস্বরে কথা বললে ওরা তোমাকে অভদ্র, অসতী বলবে। এটা তোমার কেয়ার করার দরকার নেই!

ও মেয়ে শুনো,
তুমি নিজেকে দুর্বল ভেবো না।
তুমি ভেবোনা যে আমার শরীর মেয়েলী গঠন বলে আমি দুর্বল। আমি ছেলেদের মতো চলতে পারবো না।

না তুমি মোটেও দুর্বল না!

তোমাকে ছোটকাল থেকে এই সমাজ এই রাষ্ট এই পরিবার শিখিয়েছে তুমি দুর্বল। তাই তোমাকে একটু রাখঢাক করে চলতে হবে। তোমাকে একটু নমনীয় রমনীয় কমনীয় থাকতে হবে।
এটা ভুল! তোমার রাষ্ট সমাজ পরিবার তোমাকে ভুল শিক্ষা দিয়েছে! তোমাকে মেয়ে হয়ে নরমভাবে বাঁচার শিক্ষা দিয়েছে।
এমন কি তোমার মুর্খ মা ও এই শিক্ষা থেকে বেড়িয়ে আসতে পারেনি। তোমার মা ও তোমাকে মেয়ে হয়ে বাঁচার দিক্ষা দিয়েছে, মানুষ হয়ে বাঁচার দীক্ষা দেয়নি। এতোকাল তুমি ভুলকে সত্য জেনে এসেছো।
তুমি মনে করো যে বাড়তি একটু বুকের জন্য আমাকে মেয়ে হয়ে চলতে হবে। এটা ভুল! প্রতি মাসে ঋতুবতী হই বলে আমাকে মেয়ের মতো চলতে হবে, এটাও ভুল! এটা প্রকৃতিগত। এটা তোমার ভুল না। তুমি কেন তোমার স্বাদ আহ্লাদকে এভাবে গলা টিপে হত্যা করছো? কেন নিজের ইচ্ছেগুলোকে অবদমিত করে রেখেছো? তুমি যা ইচ্ছা চলবে। কারো অধিকার নেই তোমাকে থামিয়ে রাখার!
এভাবে চলা এটা তোমার মানবাধিকার।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

45 + = 46