নেশা

নেশা করতে গিয়েছিলাম সেদিন
বেগুনি মশালে চড়ে,
শনি গ্রহের লাল আলো ছিল শরাবের পাত্রে
কপালের স্থির টিপটির মত
একখন্ড বরফ খুজেছিলাম
সূর্যটাকে খানিক পরেও ডুবতে বলেছিলাম,
শোনে নি।

মন্দ হয় নি অবশ্য
শর্ত ছাড়াই চাঁদ এসে গেল প্রক্সি দিতে
তুমি তো জানোই
আমি গাছ বুনতে পারি!
হেয়ালির বাকল দিয়ে ঢাকা নেই
ভেসেলের সবকটা কোষ দেখে নিতে পারো
আমার কৃষ্ণচূড়ার প্লেটে,
তোমার নুনেই তো স্বাদ আসে।

মনে নেই?
শুকনো কদম পাতায় ভেসে
পরিহাসের বৈঠা বাইছিলাম
গাঢ় নীল পুকুরের সালোকসংশ্লেষণের উপজাত
আমার অশ্রু।
বিশাল কলাপাতার ভেলায়
বিলাসী সমুদ্রে আমাকে খুঁজছ নাকি?
এতদূর যেও না,
একটা চকচকে আয়না লাগবে শুধু
বাদামী ঢেউয়ে কবেই ভিজিয়েছি দাঁড়কাকের স্বপ্নগুলো।

শেয়ার করুনঃ

৪ thoughts on “নেশা

  1. এলোমেলো কিছু শব্দচয়ন ছাড়া
    এলোমেলো কিছু শব্দচয়ন ছাড়া কিছুই মাথার এন্টেনায় ধরল না। :মনখারাপ:

  2. ছন্নছাড়া অনুভুতি আমার সবসময়
    ছন্নছাড়া অনুভুতি আমার সবসময় ভাল লাগে । আর আপনার এই লেখার মধ্যে ছন্নছাড়া ভাব । তাই পোস্ট টা ভাল লেগেছে আমার :থাম্বসআপ:

  3. একেবারে মাথার ওপর দিয়ে যায়
    একেবারে মাথার ওপর দিয়ে যায় নি। চুলগুলোতে একটা ঝাপটা দিয়ে গেছে। তাতেই যতটুকু অনুভব করেছি, ভাল লেগেছে…

Leave a Reply

Your email address will not be published.