পুরুষানুভূতি ও তসলিমার নির্বাসনের ইতিকথা

‘তসলিমা নাসরিন’ নামটির পাশে বাংলাদেশের অনেক সাংবাদিকেরা ‘বিতর্কিত লেখিকা’ শব্দটি লিখে খুব আনন্দ পায়। তসলিমা নাসরিনের একটি বইও যে পড়ে নি, তাকে যদি জিজ্ঞেস করেন, তসলিমা নাসরিন’কে সে চিনে কিনা, সে হয়তো বলবে, ‘ওই যে ইসলাম বিদ্বেষী বিতর্কিত লেখিকার কথা বলছেন?’ তসলিমা নাসরিনের লেখা পড়ে আমার কখনো মনে হয় নি তিনি বিতর্কিত কিছু লিখেছেন। আমার কাছে তাঁর আদর্শ, চিন্তা -চেতনা একেবারেই স্পষ্ট ও সঠিক মনে হয়েছে। অবশ্য যারা নারীর সমানাধিকারে বিশ্বাসী নন, যারা নারীকে কেবল মা-বোন-বধূ রূপেই দেখতে পছন্দ করেন তাদের কাছে নারীর ক্ষমতায়নের বিষয়গুলো বেশ বিতর্কিতই মনে হবে। তবে আশার কথা, ইদানীং বেশকিছু পত্রিকা বিতর্কিত শব্দটির জায়গায় ‘জনপ্রিয় লেখিকা’ শব্দটি ব্যবহার করছে।

‘তসলিমা নাসরিন’ নামটির সাথে আমার পরিচয়, যখন আমি ক্লাস৫ এ পড়ি। ‘লজ্জা’ পড়েছিলাম তখন। তখন ‘হিন্দু মুসলিম দাঙ্গা’ ব্যাপারটা আসলে কী, এ সম্পর্কে স্পষ্ট কোন ধারণা না থাকলেও জীবনের আটটি বছর গ্রামে কাটানোর কারণে গ্রামে হিন্দু পাড়ার প্রতি মুসলমানদের দৃষ্টি ভঙ্গি কেমন হয়, সে সম্পর্কে কিছুটা ধারণা ছিল।

১৯৯৩ সালে সরকারী এক তথ্যবিবরনীর মাধ্যমে তসলিমা নাসরিনের ‘লজ্জা’ বইটি নিষিদ্ধ করা হয়। সেই তথ্য বিবরণী অনুযায়ী, জনমনে বিভ্রান্তি ও বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অঙ্গনে বিঘ্ন ঘটানো এবং রাষ্ট্র বিরোধী উসকানিমূলক বক্তব্যপ্রকাশিত হওয়ার জন্য ‘লজ্জা’ নামক বইটির সকল সংস্করণ সরকার বাজেয়াপ্ত ঘোষণা করে। প্রকৃতপক্ষে মৌলবাদীদের আন্দোলনের কাছে মাথা নত করা সরকার, মৌলবাদীদের খুশি করতে বইটিকে বাজেয়াপ্ত করে।

‘লজ্জা’ বইটি ছিল মূলত তথ্য ভিত্তিক বই। ভারতের বাবরি মসজিদ ভাঙাকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের হিন্দুদের উপর মুসলমানদের বর্বরতার ঘটনাগুলোই লেখক তাঁর লেখায় চিত্রিত করেছিলেন। বাংলাদেশে নিষিদ্ধ হলেও পরবর্তীতে ৩০টিরও বেশি ভাষায় বইটি অনূদিত হয়।

আরও একটু বড় হয়ে পড়েছিলাম ‘নিমন্ত্রণ’ নামের বইটি। ‘নিমন্ত্রণ’ বইটির প্রথম অংশে দুজন মানুষের প্রেমের কথা থাকলেও, এই গল্পের শেষটি ছিল খুবই বাস্তব এবং নির্মম। শেষ অংশটিতে ছিল, প্রেমিকা কীভাবে প্রেমিকের সাথে দেখা করতে গিয়ে প্রেমিক ও প্রেমিকের বন্ধুদের দ্বারা ধর্ষণের শিকার হয়েছিল সেই কথা। এই সেদিনও খবরে দেখলাম, ঢাকায় প্রেমিকের সাথে দেখা করতে গিয়ে প্রেমিক ও তার বন্ধুদের দ্বারা প্রেমিকা ধর্ষিত হয়েছে। এসব ঘটনা অহরহ ঘটছে।

গল্পে প্রেমিক প্রেমিকার প্রেম থাকবে, প্রেমিকাকে হিরো প্রেমিক সব বিপদ থেকে রক্ষা করছে, এধরণের কাহিনীর লেখকরাই সমাজে হাত তালি পাবেন। কিন্তু সমাজের বাস্তব চিত্র যেই লেখকের লেখায় উঠে আসবে, তিনি হবেন নিষিদ্ধ। কারণ আমাদের নিজেদের বাস্তব রূপটা যে এতটাই কুৎসিত, সেটা আমরা নিজেরাই মেনে নিতে পারি না।

এরপর পড়ি, ‘অপরপক্ষ’। নারীকে মায়ের জাত বলে, মাতৃত্বের জন্য নারীকে মহান করে দেখানো হয়। অথচ, পিতার পরিচয় ছাড়া সন্তানের কোন পরিচয় নেই, সে নাকি হয় ‘জারজ সন্তান’। সমাজের এই ভণ্ডামীটা ‘অপরপক্ষ’ নামক উপন্যাসে অসাধারণ ভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

কবিতা আমার ভালো লাগে না, বেশির ভাগ কবিতার বইগুলোতে কেবল প্রেম আর প্রেম। বাস্তবে তো নারীর প্রতি পুরুষের প্রেম কোথাও দেখি না। দেখি নারীর শরীরটির প্রতি পুরুষের লোলুপ দৃষ্টি। ‘নির্বাচিত নারী’ নামক কবিতার বইটিতে বাস্তবভিত্তিক অসাধারণ কিছু কবিতা পড়ে মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম।

‘নষ্ট মেয়ের নষ্ট গদ্য’ বইটির ভূমিকায় লেখক লিখেছেন, ‘নিজেকে এই সমাজের চোখে নষ্ট বলতে আমি ভালোবাসি। কারণ এ-কথা সত্য যে, যদি কোনও নারী নিজের দুঃখ-দুর্দশা মোচন করতে চায়, যদি কোনও নারী কোনও ধর্ম, সমাজ ও রাষ্ট্রের নোংরা নিয়মের বিপক্ষে রুখে দাঁড়ায়, তাঁকে অবদমনের সকল পদ্ধতির প্রতিবাদ করে, যদি কোনও নারী নিজের অধিকার সম্পর্কে সজাগ হয়, তবে তাকে নষ্ট বলে সমাজের ভদ্রলোকেরা। নারীর শুদ্ধ হবার প্রথম শর্ত নষ্ট হওয়া। নষ্ট না হলে এই সমাজের নাগপাশ থেকে কোনও নারীর মুক্তি নেই। সেই নারী সত্যিকার সুস্থ ও শুদ্ধ মানুষ, লোকে যাকে নষ্ট বলে’। ঠিকই তো, প্রতিবাদী কোন নারীকে দমিয়ে দিতে প্রথম যেই শব্দগুলো তার দিকে ছুড়ে দেয়া সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হল ‘নষ্ট মেয়ে’।

‘যাবো না কেন? যাবো’ বইটির নামের মধ্যেই রয়েছে একপ্রচন্ড সাহসীকতা। ‘নির্বাচিত কলাম’ বইটি মূলত লেখকের নব্বইয়ের দশকের পুরুষতন্ত্র ও ধর্মের ভন্ডামী নিয়ে লেখা অসাধারণ কলামগুলো নিয়ে সাজানো হয়েছে। নব্বইয়ের দশকে, লেখক হিসেবে তসলিমা নাসরিন ছিলেন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। ৭১এর পর বাংলাদেশে নাস্তিকতা ও নারীবাদের হাতে খড়ি হয়েছে তসলিমা নাসরিনের মাধ্যমে। সেসময় তিনি একাই তার ‘অস্ত্র’ (কলম) তুলে ধরেছিলেন, ধর্মের বিরুদ্ধে, পুরুষতান্ত্রিক সমাজের বিরুদ্ধে। অন্য কোন লেখককে তখন এধরণের বিপদজনক লেখা লিখতে দেখা যায় নি। পরে অবশ্য তসলিমা নাসরিনের জনপ্রিয়তাকে হিংসে করে অনেকেই নারীবাদী বই লেখার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু নিজে নারী হয়ে, নিজের সাথে ঘটে যাওয়া অভিজ্ঞতা, নারীর দুঃখ কষ্টগুলো অনুভব করে লেখা, আর জনপ্রিয়তা লাভের জন্য, নিজের চরিত্রে চরম পুরুষতান্ত্রিকতা রেখে নারীবাদ লেখা তো আর এক হয় না।

‘ছোট ছোট দুঃখ কথা’, ‘দুঃখবতী মেয়ে’, ‘নারীর কোনও দেশ নেই’, ‘নিষিদ্ধ’, ‘শোধ’, ‘বন্দিনী’ বইগুলো পড়ে মুগ্ধ হয়েছিলাম। তাঁর বইগুলো আমাকে শিখিয়েছে অনেক কিছু। সমাজের নিয়মনীতির বিরুদ্ধে গিয়ে নিজের অধিকারের পক্ষে লড়াই করার সাহসটুকু আমি সেখান থেকেই পেয়েছি।

তসলিমা নাসরিনের আত্মজীবনীর ৭টি খন্ড পড়লেই বোঝা যায়, লেখক হিসেবে তিনি কতটা সৎ। যদিও ৭টি খণ্ডের মধ্যে ৪টিই বাংলাদেশে নিষিদ্ধ। আত্মজীবনীতে নিজের ভুল ত্রুটি গুলো লিখতে কুন্ঠাবোধ করেন নি। পরবর্তীতে সেসব ভুলগুলো সাহসের সাথে মোকাবেলা করার কথাও তিনি লিখেছেন। ‘উতল হাওয়া’ বইটিতে রুদ্রের সাথে প্রেমের ঘটনা পড়ে আমরা সবাই বলেছি, ‘আহা কী প্রেম!’ রুদ্রের নষ্টামিগুলো পড়ে অনেকে বলেছে, ‘নিজের বাসর ঘরের কাহিনী কেউ এভাবে রাখঢাক না রেখে বর্ণনা করে! ছি কী অশ্লীল!’ অথচ কারও চোখে পরে নি, বাসর ঘরে এক বুক স্বপ্ন নিয়ে আসা মেয়েটির স্বপ্ন ভঙ্গের কষ্ট। ‘ক’ বইটি আমার কাছে মনে হয়েছে তসলিমা নাসরিনের আত্মজীবনীগুলোর মধ্যে শ্রেষ্ট একটি বই। এই বইয়ে অন্য বইগুলোর মত নারীর জীবনের কান্না-দুঃখ-কষ্টগুলোর চেয়েও বেশি ফুটে উঠেছে বাধা উপড়ে সামনে এগিয়ে চলার সাহসীকতা। কিন্তু অবাক হয়ে লক্ষ্য করেছি, ‘মেয়েবেলা’, ‘উতল হাওয়া’ বইগুলো পড়ে যারা হাততালি দিয়েছেন, তাদের অনেকেই আবার এই বইটির বিরুদ্ধে গেছেন। নারী কেবল পুরুষতান্ত্রিক শেকলে বন্দী হয়ে যন্ত্রণায় কাঁদবে, প্রেমিককে সমস্ত প্রেম উজাড় করে দিয়ে প্রতারিত হয়ে হতাশায় ডুবে থাকবে এসব দেখতে আমাদের সমাজ অভ্যস্ত হলেও নারী মেরুদণ্ড সোজা করে উঠে দাঁড়িয়েছে, সমস্ত অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই করছে, এটাতে অভ্যস্ত নয় আমাদের সমাজ। তাই সমাজের প্রগতিশীল পুরুষেরা এই বইয়ের বিরুদ্ধে গেছে। সবচেয়ে অবাক হয়েছি বাংলাদেশে প্রথাবিরোধী লেখক হিসেবে পরিচিত হুমায়ুন আজাদের বক্তব্যটি পড়ে। তিনি বলেছেন, ‘সম্প্রতি প্রকাশিত ‘ক’ বইটি সম্পর্কে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় পড়ে আমার মনে হয়েছে, এটি একটি পতিতার নগ্ন আত্মকহন অথবা একজন নিকৃষ্টতম জীবনের কূরুচিপূর্ন বর্ণনা’। তাঁর এই বক্তব্যতেই বুঝতে পেরেছি, তিনি নারীবিরোধী প্রথাগুলো খুব যত্নে নিজের মধ্যে লালন করতেন।

‘ক’ বইটি নিয়ে বাংলাদেশের আরও কয়েজন বুদ্ধিজীবীর বক্তব্য পড়ে তাদের নোংরা পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতার পরিচয় পেয়েছি।

ইমদাদুল হক মিলন, সাহিত্যিক
ও নিয়ে আমার কোনও মাথাব্যথা নেই। তার বই আমি পড়িনি। দু একজনের কাছে শুনেছি কী লিখেছে। কিন্তু যাই লিখুক, আমি তাতে ইন্টারেস্ট ফিল করছি না। বাদ দিন ওসব।
মানবজমিন, ১ নভেম্বর, ২০০৩

সৈয়দ শামসুল হক, সাহিত্যিক
তসলিমা আমার চরিত্র হনন করেছে। মান-সম্মান ধুলোয় মিশিয়ে দিয়েছে। ৫২ বছরে লেখক হিসেবে আমি যে সম্মান কুড়িয়েছিলাম তা আজ ধুলিস্যাৎ। নিশ্চয়ই এর পিছনে কিছু রহস্য আছে। না হলে তিনি দেশের এত সম্মানিত লেখক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে লিখতে সাহস পেতেন না। আমার মনে হয়েছে, প্রতিবাদ করা দরকার। তাই মামলা ঠুকে প্রতিবাদ জানালাম।
সংবাদ প্রতিদিন, ১০ নভেম্বর, ২০০৩

আসাদ চৌধুরী, সাহিত্যিক
‘ক’ বইটি আমি পড়িনি। তবে যার বিরুদ্ধে লেখা হোক না কেন, লেখকের ওপর পাঠকের কতটুকু আস্থা আছে তা অবশ্য মূল্যায়ন করতে হবে। কারণ ব্যক্তি সমাজ বিশাল জনগোষ্ঠি নিয়েই সাহিত্য, কোনও লাম্পট্যের নির্লজ্জ বর্ণনা কখনও সাহিত্য হতে পারে না।
আজকের কাগজ, ১১ নভেম্বর, ২০০৩

তসলিমা নাসরিনের কোনও বই ঢাকার কয়েকটি মার্কেট ছাড়া বাংলাদেশের আর কোথাও পাওয়া যায় না। আমি তসলিমা নাসরিনের যেসকল বই পড়েছি, তার বেশিরভাগই বুক শেল্ফের পুরাতন বইয়ের তাকে ছিল। বাকিগুলো ঢাকা থেকে অর্ডার দিয়ে আনিয়েছি। দেশের কোনও দোকানে গিয়ে তসলিমা নাসরিনের বই চাইলে, আপনাকে প্রথমেই দোকানী জানিয়ে দেবে, ওই লেখকের বই তারা বিক্রি করে না। ফ্রিতে একটি উপদেশও দিয়ে দিতে পারে, ওই নাম যেন আপনি মুখে এনে আপনার মুখকে অপবিত্র না করেন। বাংলাদেশে ‘তসলিমা নাসরিন’ নামটি একটি নিষিদ্ধ নাম। নব্বইয়ের দশকে যিনি ছিলেন জনপ্রিয়তার শীর্ষে, তিনিই কিনা এখন দেশে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ! আপনার কী ধারণা এর পিছনে দায়ী মৌলবাদীরা? মোটেই না। এজন্য দায়ী, ভোটের রাজনীতি আর সুবিধালোভী হীনচরিত্রের মানুষগুলো। মৌলবাদীদের কোনও ক্ষমতা ছিল না তসলিমা নাসরিনকে দেশ থেকে বের করার। তসলিমা নাসরিনের বিরুদ্ধে মামলা ঠুকেছিল মৌলবাদ তোষণকারী সরকার।

তসলিমা নাসরিনের আত্মজীবনী চতুর্থ খণ্ডটি মূলত ১৯৯৪ সালে তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করার পর ঘটে যাওয়া ঘটনা গুলো নিয়ে।

তৎকালীন বাংলাদেশ সরকার(বিএনপি) ধর্মানূভুতিতে আঘাত দেয়ার অভিযোগ তুলে তসলিমা নাসরিনের বিরুদ্ধে মামলা করে। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি কোরান সংশোধনের কথা বলেছেন। অথচ তিনি শরিয়া নামক বর্বর আইনটি বাতিলের কথা বলেছিলেন, কোরান সংশোধনের কথা নয়। তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি হলে তিনি আত্মগোপন করতে বাধ্য হন। এ নিয়ে দৈনিক ভোরের কাগজে ক’জন বিশিষ্ট নাগরিকের মন্তব্য-

হুমায়ুন আজাদ, কবি, অধ্যাপক
নাসরিন নামের একটি তুচ্ছ বস্তুকে বাংলাদেশের অপদার্থ সরকার, আনন্দবাজার আর হিন্দু মুসলমান মৌলবাদীরা আন্তর্জাতিক বস্তুতে পরিণত করেছে। এটা এখনকার সবচেয়ে বিরক্তিকর ব্যাপার।…এই সময়ের একটি বেশ হাস্যকর ব্যাপার হচ্ছে, নাসরিনের মত একটি তুচ্ছ বস্তুকে নিয়ে সারা পৃথিবীর মেতে ওঠা। পশ্চিম ইওরোপ তার জন্য দরজা খুলে দিয়েছে।

আমহদ ছফা, লেখক
তসলিমা নাসরিন ভারতের সৃষ্টি।…তসলিমা এবং তাকে যারা সমর্থন করে তারা মৌলবাদকে এমনভাবে উস্কে দিয়েছে, স্বাধীন চিন্তাভাবনার লোক মস্ত বিপদে পড়ে গেছেন।…তসলিমা এবং তার সমর্থকদের অবিবেচনার কারণে দেশের সমস্ত চিন্তাশীল ব্যক্তি একটি সঙ্কটের সম্মুখে পড়েছে।…একটি অমঙ্গলের শক্তি।

ফরিদা রহমান, সাংসদ, বিএনপি
ঐসব আজেবাজে লেখা ছেড়ে দিয়ে তসলিমার মাফ চাওয়া উচিত। তারপর সাধারণ জীবনযাপন করা উচিত।… জনগণ যদি ক্ষমা করে তারপর আমরা সাধারণ মহিলারা যেভাবে জীবনযাপন করি সেভাবে তার জীবনযাপন করতে হবে।
সুত্রঃ সেই সব অন্ধকার, তসলিমা নাসরিন।

সেই সময় মৌলবাদীদের তোষণ না করে যদি প্রকাশ্যে তসলিমা নাসরিনের মাথার মূল্য নির্ধারণকারী ধর্মীয় গুরুকে শাস্তির আওতায় আনা হতো, সুবিধাবাদী লেখক প্রগতিশীলেরা যদি সেসময় হিংসের বশবর্তী না হয়ে, সবাই এক হয়ে সেসব মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতেন, সরকারের ভূমিকাকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেন তবে হয়তো আজকের এই দিন আমাদের দেখতে হতো না। এই প্রগতিশীল লোকেদের অনেকেই পরবর্তীতে মৌলবাদীদের প্রশয় দেয়ার ফল ভোগ করেছেন এবং করছেন। সেই ১৯৯৪ সাল থেকেই তো মৌলবাদীরা প্রশ্রয় পেতে পেতে আজকের এই রূপ নিয়েছে। এজন্য মৌলবাদীরা নয়, বরং দায়ী সুবিধাবাদীরা- এ নিয়ে কারও সন্দেহ আছে কী?

বর্তমানে ব্লগার-লেখক-প্রকাশক ইত্যাদি প্রগতিশীল মানুষদের হত্যার বিরুদ্ধে দেশের বুদ্ধিজীবিদের তেমন কোন প্রতিবাদ লক্ষ্য করা না গেলেও, লক্ষ মাইল দূরে বসে যিনি একটি আধুনিক প্রগতিশীল রাষ্ট্রের স্বপ্ন দেখেন, তিনি ঠিকই তাঁর কলমে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে, সরকারের ভূমিকার বিরুদ্ধে।

অথচ এখনও প্রতিনিয়ত আমরা ‘তসলিমা নাসরিন’ নামটিকে অত্যন্ত সচেতন ভাবে বাদ দিয়ে বাংলাদেশে মুক্তচিন্তা, বাক স্বাধীনতার কথা বলি। যিনি বাংলাদেশে নাস্তিকতা ও নারীবাদের সূচনা করেন, যিনি ধর্ম ও পুরুষতন্ত্রের বিরুদ্ধে লেখার কারণে আজ ২১ বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশে নিষিদ্ধ হয়ে আছেন, তাঁকে বাদ দিয়ে মুক্তচিন্তা করাটা আদৌ ফলপ্রসু হয়েছে বা হচ্ছে? যে মুক্তচিন্তা পুরুষতান্ত্রিকতা মুক্ত নয়, সে চিন্তাকে আমি মুক্তচিন্তা বলতে পারি না। এটা এক ধরনের ভন্ডামীর নামান্তর। তারা প্রকৃতপক্ষ ধর্মের কুসংস্কার থেকে নিজেকে মুক্ত করতে পারলেও, নারীবিরোধী সংস্কারগুলো থেকে মুক্ত হতে পারেননি।

বাংলাদেশের প্রগতিশীলদের তসলিমা বিষয়ে এমন নীরবতা আমাকে অবাক ও ক্ষুব্ধ করেছে। তাই ২০১৪ সালে, আমি আমার বন্ধুদের নিয়ে ‘তসলিমা পক্ষ’ নামের একটি ফেসবুক পেজ খুলি। তসলিমা নাসরিনের বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত মিথ্যা অপপ্রচারগুলো সম্পর্কে মানুষকে জানানো, তসলিমা নাসরিনের লেখাগুলো মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেয়াই এই পেজের উদ্দেশ্য। পরবর্তীতে আমরা তসলিমা নাসরিনের জন্মদিনে, ‘তসলিমা দিবস’ উদযাপন করি। এছাড়াও তসলিমা পক্ষের আয়োজনে মুক্তচিন্তার পক্ষের মানুষদের নিয়ে এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি প্রোগ্রাম হয় শাহবাগে। বর্তমানে দেশের পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখে, অফলাইন প্রোগ্রামের ঘোষণা না দিয়ে অনলাইনেই তসলিমা নাসরিনের লেখা গুলো নিয়ে ছোট ছোট অনলাইন পোষ্টার বানিয়ে ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করছি।

পুরুষতান্ত্রিক সমাজ, ধর্মান্ধ সমাজ নারীকে নানা ভাবে দমন করে এসেছে। নারীর কথাগুলো যাতে উচ্চারিত না হয় সে জন্যই উপামহাদেশের শ্রেষ্ঠ নারীবাদী লেখককে পুরুষতান্ত্রিক সমাজ নিষিদ্ধ করেছে। তসলিমা নাসরিনকে তাঁর নিজ ভূমি নির্বাসন দণ্ড দিলেও সভ্য দেশগুলো তাঁকে নানা ভাবে সম্মানিত করেছে। তসলিমা’কে নিষিদ্ধ করাতে তসলিমার খুব বেশি ক্ষতি না হলেও সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বাংলাদেশ। তসলিমা নাসরিনের নির্বাসন কেবল একজন মানুষ তসলিমার নির্বাসন নয়, এটি মুক্তবুদ্ধি, মুক্তচিন্তা আর মানবাধিকারের নির্বাসন।

যেসব কথা বলা নিষেধ, সেসব কথাই তিনি জোর গলায় বলেছেন। যে শব্দ উচ্চারন করা মানা ছিল, সে শব্দই তিনি বারবার উচ্চারন করেছেন। আজ আমরা সেসব শব্দের-ভাষার প্রতিধ্বনি শুনতে পাই। তসলিমা নাসরিন এদেশের নারীদের কথা বলা শিখিয়েছেন, বাধা উপড়ে এগিয়ে চলতে শিখিয়েছেন। আজ আমরা কথা বলতে পারি, প্রতিবাদ করতে পারি। আমরা ভুলি নি তসলিমা নাসরিনকে। নিষিদ্ধ নামটিই আমরা গর্বের সাথে উচ্চারন করি। কারন এই নিষিদ্ধ নামেই আমরা আমাদের শক্তি খুঁজে পাই, প্রতিবাদ করার সাহস পাই।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৬ thoughts on “পুরুষানুভূতি ও তসলিমার নির্বাসনের ইতিকথা

  1. যিনি বাংলাদেশে নাস্তিকতা ও

    যিনি বাংলাদেশে নাস্তিকতা ও নারীবাদের সূচনা করেন, যিনি ধর্ম ও পুরুষতন্ত্রের বিরুদ্ধে লেখার কারণে আজ ২১ বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশে নিষিদ্ধ হয়ে আছেন, তাঁকে বাদ দিয়ে মুক্তচিন্তা করাটা আদৌ ফলপ্রসু হয়েছে বা হচ্ছে? যে মুক্তচিন্তা পুরুষতান্ত্রিকতা মুক্ত নয়, সে চিন্তাকে আমি মুক্তচিন্তা বলতে পারি না। এটা এক ধরনের ভন্ডামীর নামান্তর।

    তর্কের খাতিরে মেনে নিলাম উপরের কথাগুলো। এখন যদি আমি প্রশ্ন করি বিগত কয়েক বছর মুক্তচিন্তার উপর, ব্লগার লেখকদের উপর মৌলবাদীদের যে ঝড় ঝাপটা যাচ্ছে সেখানে তসলিমা নাসরিনের স্পেসিপিক কি ধরনের ভুমিকা আছে… জানাবেন কি? বড়জোর ১/২টা কলাম লিখেছে। এছাড়াও আর্ন্তজাতিক অংঙ্গনে তসলিমা নাসরিনের আরো ভুমিকা রাখার মত স্কোপ ছিল। সে কিছুই করেনি, নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত ছিল। এব দায় তাসলিমা কোনভাবেই এড়াতে পারবে না। বর্তমানে মুক্তচিন্তার আন্দোলন ব্লগার ও অনলাইন এক্টিভিস্টরা নিজ দায়িত্বে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। তসলিমা নাসরিনের বিন্দুমাত্র অবদান নাই। তসলিমা নাসরিনের এই ব্যর্থতা বিন্দুমাত্র এড়ানোর সুযোগ নাই।

  2. এবার কথা বলি ভিন্ন একটি
    এবার কথা বলি ভিন্ন একটি প্রসংঙ্গ নিয়ে- তসলিমা নাসরিনের ‘ক’ গ্রন্থটিতে যে সব কবি, সাহিত্যিক, সেলিব্রেটির চারিত্রিক সনদ দিয়েছেন তিনি তাদের সামনে তসলিমা কাপড় খুলেছিলেন আপোষেই। হয়ত বিনিময় প্রথার মত কোন একটা দ্বিপাক্ষিক সমাঝোতার ভিত্তিতে। বনিবনা না হওয়াতে এভাবে দ্বিপাক্ষিক গোপন সমাঝোতা ফাঁস করে দেওয়া কতটা নৈতিক কাজ হল? যে কারনে ঐসব লেখকের চরিত্র খারাপ বলে তসলিমা সার্টিফিকেট দিলেন, একই কারণে তসলিমার চরিত্র কি খারাপ নয়?

  3. হাইলী ওভাররেটেড একজন মহিলা।
    হাইলী ওভাররেটেড একজন মহিলা। অযথাই মাতামাতি হয় তাসলিমাকে নিয়ে। ভারতের সৃষ্টি নাকি জানি না, আহমেদ ছফার বক্তব্য সত্য মনে হয়। হুমায়ুন আজাদের বক্তব্যও। ব্লগার ইকারাসের বক্তব্যের জবাবও শুনতে আগ্রহী। যদিও আগের পোস্টগুলো ফলো করে মনে হয়েছে আপনি কেবল পোস্ট ফলো করেই খালাস। প্রতিউত্তর দেবার ভদ্রতা শেখেন নাই।

    নিজের স্বার্থ ছাড়া নারীজাতির জন্য উনি কী উদ্ধার করছেন আমি জানি না। দ্বিমুখী আচরণও তো স্পষ্ট। একদিকে রুদ্রকে গাইলাইছেন, অন্যদিকে উপচে পড়া প্রেম দেখাইছেন। যাকে সম্মান দিয়েই কথা বলেন নাই তার জন্য এত আবেগ কীসের? দ্বিমুখী আচরণ হইলো না?

    এরে তার যৌন কামনা নিয়ে লিখছেন। উনি নিজে তো ধর্মে বিশ্বাস করেন না। তাহলে এই স্বাভাবিক যৌন কামনা খারাপ কীসের? মুখচেনা অনেকের কথা বলছেন উনি, তাদের কেউ কি জোর করে ধর্ষণ করছিলো? নাকি সম্মতিতেই ছিল? সম্মতিতে হইলে সমস্যা কই? আর জোর করে হইলে, অন্যায় কিছু হইলে অন্তত একটা মামলা তো করতে পারতেন। নাকি দাবী করবেন পুলিশ আর সরকার উনাকে সেইটাও করতে দেয় নাই? এতটাই অনুকরণীয় কেউ হইলে অন্তত চেষ্টা তো করতে পারতেন। ব্যক্তিগত সম্পর্কের কথা জনসম্মুখে প্রচারে মাহাত্ব্য নাই।

    মন্তব্যে লিখতে পারতাম, যৌবনজ্বালা চালাইতো অমি রহমান পিয়াল, তসলিমা আর কোন চ্যাটের বাল। কিংবা মদ্যপান, বিষণ্নতা এবং একটি বালপোস্ট।

    কিন্তু লিখলাম না। একজন দোষে গুণে ভরা নারীকে দেবীতুল্য বানানোর আপনাদের এই প্রানান্তকর প্রয়াস প্রশংসার দাবী রাখে কিনা…

  4. বাস্তবে তো নারীর প্রতি

    বাস্তবে তো নারীর প্রতি পুরুষের প্রেম কোথাও দেখি না। দেখি নারীর শরীরটির প্রতি পুরুষের লোলুপ দৃষ্টি। ‘

    আপুরে, তোমার ধারণা ভুল। অনেক ভুল…! আমি গত চার বছর ধরে একটা মেয়েকে একপাক্ষিকভাবে ভালবেসে যাচ্ছি। তাকে, যদিও পাইনি; কিন্তু ধর সে যদি একসিডেন্টে পড়ে পঙ্গু হয়ে যায়, বা অগ্নিকান্ডে তার শরীর পুড়েও যায়, তারপরও আমি তাকে গ্রহণ করবো, তাকে সারাজীবন বুকে করে রাখবো। ভালোবাসা এমনই…!
    আর সময় এসেছে নারীবাদকে মানবতাবাদ দিয়ে প্রতিস্থাপিত করার। নারীবাদ এখন উগ্র নারীবাদ ও ভালগারিজমে পুর্ণ হয়ে যাচ্ছে। এটা হয়ে গেছে একপ্রকার লিংগ ব্যবসা। আশা করি তুমি আমার কথাগুলো নিয়ে একটু চিন্তা ভাবনা করবে, আর আজ না হলেও আজ থেকে দশ বছর পরে হলেও আমার সাথে একমত হবে।

    1. আমান ভাই, এইসব বলে লাভ নাই
      আমান ভাই, এইসব বলে লাভ নাই উনাকে। উনি অলীক বিদ্বেষের নেশায় আসক্ত।

      আপনার তো মাত্র ৪ বছর, আমার আরও অনেক বছর একটা চেহারা ছাড়া আর কিছু ভাল্লাগেনা। ভবিষ্যত অনিশ্চিত, তাও এই মায়া ছাড়তে পারিনা। আমি নাহয় পৃথিবীর ৭০০ কোটি মানুষের হিসেবে গোনায় নাই, আমার কথা থাকুক। আমাদের মত সহস্র কামুক পুরুষ তুচ্ছ, নজরে আসবার মত না। কিন্তু উনি পেপারে বারবার হেডলাইন হওয়া ওই পাষন্ড পুরুষের কথাও সম্ভবত মিথ্যা মনে করেন, যে বলছিল আমি হেরে যেতে চাইনা কারণ, ডাক্তার স্ত্রী মাথায় আঘাত পেয়ে জড় পদার্থ হয়ে যাওয়ার পরেও যিনি হাল ছাড়তে রাজী না। সর্বস্ব হারাইয়াও চিকিৎসা চালাইতেছেন। শুকাইয়া যাওয়া, কামানো মাথায় যৌন আকর্ষণবিহীন সঙ্গীকে একাই দেখতেছেন।

      আমি জানিনা লেখিকার পরিবারের অবস্থা কী ছিল। উনি পরিবারেও হয়তো ভালোবাসা দেখেন নাই। কিন্তু আমার বাবাকে আমি দেখছি ছোটবেলায়। বঙ্কো নিউমোনিয়ায় মৃতপ্রায় আমার মায়ের চিকিৎসার জন্য যেই বেকুব লোকটা সব সম্বল শেষ করে ফেলছিল। বহুদিন আমি এই লোকটাকে বারান্দায় কাঁদতে দেখছি। আর এই কান্নার কারণ কী আমি ওই শিশুকালেও বুঝতাম।

      লেখিকা এইসব দেখে বড় হননাই কিংবা দেখবার দুর্ভাগ্য হয়নাই এই কারণে উনার প্রতি সমবেদনা রইলো। উনি সম্ভবত সেই আদর্শ পরিবেশে বড় হইছিলেন যেইখানে উনি নারীর প্রতি পুরুষের কামনাই দেখছেন কেবল, হয়তো দেখে বড় হইছেন উনার মাকে উনার বাবা পিটাইয়া তক্তা বানাইতেছেন। বেশি বলে ফেললে দুঃখিত। কিন্তু যেহেতু উনি বলছেন বাস্তবে নারীর প্রতি পুরুষের প্রেম কোথাও দেখেন নাই, তাই উনার বেড়ে ওঠার পারিবারিক আবহ সম্পর্কে আর কী ধারণা আসতে পারে? সমবেদনা জানানো ছাড়া আর কিছু তো খুঁজে পাচ্ছি না।

      1. আমি জানিনা লেখিকার পরিবারের

        আমি জানিনা লেখিকার পরিবারের অবস্থা কী ছিল। উনি পরিবারেও হয়তো ভালোবাসা দেখেন নাই। কিন্তু আমার বাবাকে আমি দেখছি ছোটবেলায়। বঙ্কো নিউমোনিয়ায় মৃতপ্রায় আমার মায়ের চিকিৎসার জন্য যেই বেকুব লোকটা সব সম্বল শেষ করে ফেলছিল। বহুদিন আমি এই লোকটাকে বারান্দায় কাঁদতে দেখছি। আর এই কান্নার কারণ কী আমি ওই শিশুকালেও বুঝতাম।

        আপনার বাবার জন্য শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা।
        আসলে ব্যাপারটা কি জানেন, উগ্র নারীবাদী আর লিঙ্গ ব্যবসায়ীরা ইতুর ব্রেন ওয়াশ করে দিয়েছে। তবে, আমি দৃঢ় বিশ্বাসী ইতুর মধ্যে যদি সত্য অনুসন্ধানের মনমানসিকতা থাকে, তাহলে সেও একদিন আসল ব্যাপারগুলো বুঝতে পারবে। ইতুর জন্য শুভ কামনা থাকলো।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 9 = 1