ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-১০ঃ জায়মান ও মুক্তির সাধনা

জায়মানঃ

১.১ জায়মান মানে চার্জ কিংবা আসক্তিযুক্ত। যেমন_কেমিস্ট্রিতে জায়মান হাইড্রোজেন(H+).

১.২ মহাবিশ্বের জড়,অজড়ীয়,মৌলিক, যৌগিক কিংবা মিশ্র প্রতিটি সত্ত্বাই জায়মান_অনিরপেক্ষ কিংবা আসক্তিবিহীন নয়।

১.৩ প্রতিটি সত্তাই cause & condition যুক্ত, অনিরপেক্ষ_আপেক্ষিক।

১.৪ পরম মৌলিক মানে cause & condition বিমুক্ততা_শূন্যতা কিংবা অনস্তিত্বতা, অবাস্তবতা।

১.৫ যা বাস্তব তা অবশ্যই জায়মান।

১.৬ জায়মান হাইড্রোজন(H+) ও জায়মান অক্সিজেন(O-)’র মিথোষ্ক্রিয়ায় নিরপেক্ষ দ্রাবক পানির(H2O) সৃষ্টি হয়। কিন্তু পানির অনু কি সত্যিই নিরপেক্ষ? প্রতিটি অনু-পরমানু একে অপরকে আকর্ষণ করে। অতএব পানির অনুর মহাকর্ষবল বিদ্যমান। পানির অনুও অন্যকোন অনুর সঙ্গে যুক্ত হয়ে যৌগ গঠন করে। অতএব, পানির অনুও আসক্তিবিহীন নয়_জায়মান।

১.৭ ধনাত্মক প্রোটন, ঋনাত্মক ইলেক্ট্রন ও নিরপেক্ষ নিউটনের মিথোষ্ক্রিয়ায় চার্জ নিরপেক্ষ পরমানুর সৃষ্টি; কিন্তু পরমানু কি সত্যি নিরপেক্ষ? পরমানু সমূহের মধ্যেও মহাকর্ষ/অভিকর্ষ বল ক্রিয়াশীল। অতএব, পরমানুও নিরপেক্ষ নয়_আসক্তিযুক্ত কিংবা জায়মান।

১.৭ প্রকৃতি জগতের মৌলিক চারটি বল যথা: মহাকর্ষ, দূর্বল নিউক্লিয়, তড়িত চৌম্বক এবং সবল নিউক্লিয় বল সমূহই জগতের সত্তাসমূহের জায়মানতার কারন ও নির্ধারক।

১.৮ প্রকৃতি জগতের মৌলিক বলসমূহ কিংবা আকর্ষণ-বিকর্ষণেরই জৈবিকীকরনই হলো মানব চরিত্রের প্রেম-ভালোবাসা ও ঘৃনা।

১.৯ জগতের অপরাপর সত্তাসমূহের মত পূর্ন নিরপেক্ষ আসক্তিবিহীন মানুষও অসম্ভব।

১.১০ প্রকৃতি জগতের স্বত্তা সমূহের স্বাভাবিক ধর্মই জায়মান।

মুক্তির সাধনাঃ নির্বান/ফানাফিল্লাহ/বাকাবিল্লাহ/যোগ সাধনা
………………………………………………….
জগতের প্রতিটি সত্তাই জায়মান।চূড়ান্ত চার্জনিরপেক্ষ কিংবা আসক্তিবিহীন কোন সত্তা নেই!

দুইটি বিপরীত আসক্তিযুক্ত সত্তার মিলনে কিংবা মিথোষ্ক্রিয়ায় আপাত নিরপেক্ষ সত্তার আবির্ভাব ঘটে; উহাও আসক্তিযুক্ত!

অতএব,অতি পারমানবিক কনিকা সমূহের জটিলতম সংগঠন সকল জীব সহ প্রতিটি মানুষও জায়মান_আসক্তিযুক্ত। চরম ও পরম আসক্তিবিহীন মানুষ অসম্ভব!

মুক্তির সাধনা মানে নির্বানের সাধনা (ফানাফিল্লাহ/বাকাবিল্লাহ কিংবা যোগ-সমাধি) _পরম আসক্তিহীনতার সাধনা। এ এক অসম্ভব সাধনা!

ধর্মে বর্নিত চরম এবং পরম মুক্তির সাধনা মূলত অস্তিত্বহীনতার সাধনা_শূন্য “আমি”র সাধনা!

শূন্য আমি অসম্ভব! নিরপেক্ষ অনুভূতিতে শূন্য আমি মূলতঃ বৈপরীত্যের সহাবস্থানের মৌল নীতিতে বিশ্বাসী আমি। এ আমি আসক্তিহীন এই অর্থে, আমার চাওয়ার কিছুনেই, পাওয়ারও কিছু নেই, হারানোর কিছু নেই,আমার যোগ করার কিছু নেই, বিয়োগ করারও কিছু নেই কারন আমি পূর্ন! আমি নিরপেক্ষ! আমি সুখে-দুঃখে পূর্ন!আমি পজিটিভ-নেগেটিভে পূর্ন! তাই আমি শূন্য!

* মুক্তির সাধনাঃ
বেদান্ত দর্শন=যোগ সমাধি,
বুদ্ধ দর্শন=নির্বান,
মুসলিম দর্শন=ফানাফিল্লাহ/বাকাবিল্লাহ।

_Abu Momin

19.06.2016

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

66 − 62 =