হায়রে বই মেলা ।।

এখানে ভবর চটি হয় পবিত্র সিদ্ধ,
আর আজাদরা হয় চিরতরে নিষিদ্ধ।
এখন আর আগের মত গন্ধ নেই মুক্ত বাতাসের
আছে শুধু আতঙ্ক মাখা ভয়ানক দুর্গন্ধ।


আমি পবিত্র গ্রন্থ মেলা থেকে বলছি।
অবাক হইও না মোটেও
এখানে রোজ, বই নামক বৌয়ের মোড়ক উন্মোচিত
হয় সহি ভাবে।
যাকে কিনা বই বলা যায় না,
বলা যায় সহি গ্রন্থ বা কিতাব।
কারন কিতাবে থাকে বেড়াজাল, সীমাবদ্ধে মোড়ানো
জ্ঞান থাকে সিন্ধুকে ভরা।
এখানে ভবর চটি হয় পবিত্র সিদ্ধ,
আর আজাদরা হয় চিরতরে নিষিদ্ধ।
এখন আর আগের মত গন্ধ নেই মুক্ত বাতাসের
আছে শুধু আতঙ্ক মাখা ভয়ানক দুর্গন্ধ।
ইচ্ছে হয় নাসিকাপথ বন্ধ রাখি,
আর আর্তনাদ মাখা মুমূর্ষু কিছু রোগীর ভগ্নদশা দেখি।
মুক্ত চিন্তার স্টলে দেখে অবাক হই আর চুরি করে কাদি।
হিজাব,টুপি পরে কিতাব বিক্রি করে নির্দ্বিধায়,
মনে হয় বসে আছি কোন এক নির্মম মাদ্রাসায়।
ভেতর ঢুকলেই কেন যেন মনে হয়,
এ যেন ফিরে আসা কোন রমজান বইছে চত্বরে।
কেমন যেন সবাই চুপ করে নিস্তেজ সময় পার করছে,
আর অপেক্ষায় আছে কখন দিবে দল বাধা আযান।
ইফতারি করবে সিগারেট ফুকবে টয়লেটের অভিমুখে
আর পাস থেকে এসে বলবে ভাই একটা টান হবে?
এখন আর মেলায় উৎসব হয় না,
হয় না তারুন্যের উল্লাস মাখা চেতনার গান।
গান বাজনা করা যে হারাম,
ঠিক তাই বাস্তবায়ন করল ও মেরুদণ্ডহীন চেয়ারম্যান।
তবুও আসি রোজ।
অধিকারের তাড়নায় বসে থাকতে পারি না নিরবে।
ছুটে আসি প্রতিবারের ন্যায়,
আর ভাবি কেনই বা আসবো না আমি(?)
এটা যে আমার চেতনার মেলা, এটা যে মেলা আমার প্রানের মেলা।
কিন্তু এ কথা এখন মুখেই মানায়।
প্রকাশ করতে পারি না ৫৭ ধারার ভয়ে,
শুধু রয়ে যায় জমা চেতনায়।।
——— টিটপ হালদার
৭/২/২০১৭ (রাত)

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

3 + 5 =