স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবসে বলতে চাই ‘এরশাদকে ভালোবাসি’-ওবায়দুল কাদের

স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবসে বলতে চাই এরশাদকে ভালোবাসি, এরশাদ আমার ক্রাশ! এরশাদের জন্য ভালোবাসা। টেক এ কিস! উম…….উম্মাহ! স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষ্যে আওয়ামীলীগ আয়োজিত এক মিলাদ মাহফিলে আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদের এমনটি বলেছেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন,“বাংলাদেশের সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম একটি মীমাংসিত বিষয়। আপনি এরশাদকে স্বৈরাচারী বলে ঘৃণা করতে পারেন। কিন্তু বাংলাদেশের সংবিধানে তার অবদানকে অস্বীকার করতে পারেন না। এরশাদ-ই হচ্ছেন সেই সিংহপুরুষ, যিনি সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ‘ইসলাম’ সংযুক্ত করে আমাদের সংবিধানকে মহান করেছেন। তার আগে শেখ মুজিবের প্রণীত ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধান ছিলো কুফরি আর বেদায়েতি। ইমানদার মুসলমান হিসেবে আমি মনে করি মানুষের ভালো এবং খারাপ দুটাই আমাদের স্বীকার করা উচিত।”

ওবায়দুল কাদের আরো যোগ করেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা হচ্ছেন সেই সিংহ-পুরুষ এরশাদেরই সুযোগ্য উত্তরসূরি! যিনি এরশাদের জ্বালানো ইসলামের মশাল বয়ে নিয়ে চলেছেন। বাংলাদেশের সেই মনুষ্য রচিত সংবিধানকে বাদ দিয়ে পেয়ারে নবীজির মদিনার সনদে আস্থা এনেছেন। আমাদের নেত্রী দ্বীন ইসলাম কায়েমের জন্য জিহাদে নেমেছেন। এই অনুপ্রেরণা তিনি শেখ মুজিবের কাছ থেকে পান নি। পেয়েছেন এরশাদের কাছ থেকে।
1/BINARY/w940/08_Obaidul+Quader_Eden_151216_0003.jpg” width=”500″ />
চিরতরুণ ওবায়দুল কাদের।

হঠাৎ ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠে ওবায়দুল কাদের কান্নাভেজা গলায় বলেন,”আমার দুঃখ যে মুসলমানের ছেলে হয়েও শেখ মুজিব রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম সংযুক্ত করার মতো সওয়াবের কাজটি করে যেতে পারলেন না। তার আগেই প্রাণ হারালেন।”
ওই সময় মাহফিলে এক আবেগঘন, হৃদয়বিদারক পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

এসময় কাদেরিয়া আরো বলেন আমি জিয়াকেও ভালোবাসি, সম্মান করি। তিনিই তো সংবিধানে ‘বিসমিল্লাহ্‌’ স্থাপনা করে বাংলাদেশি রাজনীতিবিদদের অন্তরে দ্বীন ইসলামের চেতনা ফিরিয়ে আনেন। ইহুদি-নাসারা আর ভারতের ষড়যন্ত্রে এই দেশের মাটি থেকে ইসলাম প্রায় উঠেই গিয়েছিল। জিয়ার বিসমিল্লাহ্‌ থেকে এরশাদের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, তারই ধারাবাহিকতায় এই দেশে দেশরত্ন শেখ হাসিনা মদিনা সনদ নিয়ে এসেছেন।
সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম বাতিলের বিষয়ে আওয়ামীলীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ডক্টর আব্দুর রাজ্জাকের বক্তব্যের প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন,”আব্দুর রাজ্জাকের নাস্তিক-মুরতাদ। এরকম লীগারের চেয়ে জামাত শিবির অনেক ভালো। দুই একটা বিষয়ে জামাতের সাথে আমাদের দ্বিমত থাকলেও তারা অন্তত ডক্টর আব্দুর রাজ্জাকের মতো মুরতাদ হয় নি। রাজ্জাকের দুর্ভাগ্য যে মুসলমানের ঘরে জন্মেও তিনি মুসলমান হতে পারলেন না। মুসলমান হয়েও কি করে তিনি রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাতিল করবেন বলতে পারলেন! আস্তাগফিরুল্লাহ!”

সবশেষে মাহফিলে উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে জনাব ওবায়দুল কাদের বলেন,”আমাদের ভিশন-২০২১, প্রজেক্ট ইসলামিক রিপাবলিক অফ বাংলাদেশ দুর্দান্ত গতিতে এগিয়ে চলছে। তারই ধারাবাহিকতায় আমরা নাস্তিক আর সেক্যুলার মানুষদের কুপিয়ে হত্যা করেছি। বাকিদের দেশ থেকে বিতাড়িত করেছি। পাঠ্যপুস্তক থেকে বিধর্মী আর নাস্তিকদের লেখা বাদ দিয়েছি। কাফেরদের মনে ভীতি সঞ্চারের জন্য বীর আওয়ামী জেহাদি ভাইয়েরা প্রতিদিন দেশের নানা অঞ্চলে কাফের হিন্দু-বৌদ্ধদের বাড়িঘর ভাঙচুর-লুটপাট, মন্দির-মূর্তি ভাঙচুর আর ভূমি দখল করে চলেছে। খুব শীঘ্রই আমরা বাংলাদেশকে ১০০% মুসলমানদের দেশে পরিণত করব ইনশাল্লাহ। এই দেশে কোনো নাস্তিক থাকবে না, হিন্দু থাকবে না, বৌদ্ধ থাকবে না, খৃষ্টান থাকবে না; থাকবে শুধু মুসলমান আর আওয়ামীলীগ! জাযাকাল্লাহ খায়ার!”
সবশেষে বাংলাদেশের সকল অমুসলিম আর নাস্তিকেরা যেন ভালোয় ভালোয় ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে ফিরে আসে এমন দোয়া পাঠের মধ্যে দিয়ে এক অভূতপূর্ব ইসলামিক ভাবগাম্ভীর্য এবং দ্বীনি পরিবেশের মধ্যে দিয়ে এই পবিত্র মিলাদ মাহফিল শেষ হয়।

তথ্যসূত্র- মূল খবর ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম একটি মীমাংসিত বিষয়’ আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সেতু মন্ত্রণালয় ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্ত্যবকে সামান্য ব্যঙ্গ্য করবার চেষ্টা।
http://www.banglatribune.com/national/news/156805/%E2%80%98%E0%A6%B8%E0%A6%82%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A7%E0%A6%BE%E0%A6%A8-%E0%A6%A5%E0%A7%87%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%B7%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A7%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AE-%E0%A6%87%E0%A6%B8%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%AE-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A6-%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%93%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%87%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%9B%E0%A6%BE

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 2 = 3