পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম বাংলায় অথচ প্রাইভেটের ইংরেজিতে


যেদেশের মানুষ ভাষার জন্য প্রাণ বিসর্জন করেছে,সেদেশের উচ্চশিক্ষায় ‘বিকল্পহীনভাবে’ ইংরেজি ভাষার ব্যবহারের যৌক্তিকতা নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুলেন।
তার প্রতি উত্তরে বলা হয়, কোর্সগুলোর জন্য দেশি লেখকের পর্যাপ্ত বই নাই।
তাছাড়া, বিদেশী লেখকের বই অনুবাদ করার পর অনেক মূল বিষয় থাকে যা বাংলায় অনুবাদ করা সম্ভব নয়।
.
.
‘উচ্চশিক্ষায় মাতৃভাষা’ সেটা অনেকটা যুক্তিতর্কের বিষয়।
আপাতত মেনে নেই,ভুক্তভোগী হয়ে আমরা উচ্চশিক্ষার জন্য ইংরেজি মাধ্যমে দ্বারস্থ হই।
.
.
উচ্চশিক্ষার যাত্রা শুরু হয় বিশ্ববিদ্যাল জীবনে পদার্পণের মাধ্যমে।
সেই বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্পণের পূর্বে যদি দেখি ঐ বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম ইংরেজিতে তবে আর বলা যায়না বাধ্য হয়ে আমরা ইংরেজি মাধ্যমের আশ্রয় নিচ্ছি; বরং স্বেচ্ছায়ই নিচ্ছি।

এদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নাম বাংলায় যেমন প্রচলিত, তেমনি ইংরেজীতে ও।

যেমন:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় – University of Dhaka

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় – Jahanghir Nagar University

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যাল- Shahajalal University of Science and Technology

কিন্ত,প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একমাত্র প্রচলিত নাম হলো ইংরেজি মাধ্যমে; এমনকি এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নাম বাংলায় অনুবাদ করে সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শুনানো হলে তারাও হাসবে।

যেমন :
Daffodil University – বাসন্তী ফুলের বিশ্ববিদ্যালয়।

NorthSouth University – উত্তর-দক্ষিণ বিশ্ববিদ্যালয়।

Royal University – রাজকীয় বিশ্ববিদ্যালয়।

World University – বিশ্ব বিশ্ববিদ্যালয়।

Presidency University – প্রেসিডেন্টের পদমর্যাদা বিশ্ববিদ্যালয়।

এরকম হাস্যকর নাম। তাছাড়া দিক দিয়ে তো আছে যে কোনো ‘দিক’ আর বাকি নাই। : Northern, Eastern, Southern, Western.

বাংলায় একটা আবেদনপত্র লিখতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তাদের বাংলা নাম(ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়) এবং ইংরেজি লিখতে ইংরেজি নাম (University of Dhaka) ব্যবহার করতে পারে।

কিন্ত,ঐসব প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো দুধরনের লেখায়ই ইংরেজিতে লিখতে হচ্ছে।

এটাও হয়তোবা ভাষা আন্দোলনের চেতনা ছিলো, যার যে ভাষা ইচ্ছা সে ভাষা ব্যবহার করুক।
ভাষার ব্যাপারে কোনো ‘জবরদস্তী’ নেই! #ভাষানিরপেক্ষতা!!!

নয়তোবা,কিভাবে প্রায় সবগুলো ইংরেজি নামের প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় মাতৃভাষার জন্য জীবন উৎসর্গ করা দেশে অনুমোদন পায়???

বিদ্র: ‘প্রাইভেট আর পাবলিক’ বিশ্ববিদ্যালয় বুঝাতে সুন্দর কোনো ব্যবহারিক বাংলা নাই। আর থাকলেও তা পাঠকদের বুঝতে কিছুটা কষ্ট হবে।
তাই এখানে ইংরেজিতে ব্যবহার করা হলো।

(উচ্চশিক্ষার দোয়ারে বাংলা ভাষার অবহেলা)

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

56 + = 65