কমন ১০টি বিকৃত যৌন আচরন ৷

যৌনতা হলো একটি প্রাকৃতিক বিষয় ৷ তবে যৌনতা প্রাকৃতিক বিষয় হলেও সকল প্রকার যৌন আচরনই প্রাকৃতিক নয় ৷ ধর্ষনও একটি বিকৃত যৌন ইচ্ছার বহিঃপ্রকাশ ৷
আমি এখন কমন দশটি যৌন আচরন নিয়ে আলোচনা করবো যা প্রাকৃতিক যৌন আচরন থেকে বিচ্যুত ৷

১৷ এক্সিবিশনইজম: সাধারনত সমকামী (গে ও লেসবিয়ানদের) মধ্যে এ আচরন পরিলক্ষিত হয় ৷ এরা সাধারনত তাদেরকে যৌন অবয়ব দেখায় যারা এটা দেখতে আগ্রহী নয় ৷ কিছু ক্ষেত্রে উক্ত ব্যাক্তি হস্তমৈথুন করে যখন এটি অন্যদের দেখায়৷
সাধারনত ভিকটিমদের সাথে কোনরকম সম্পর্ক ছাড়াই সেক্সুয়ালি প্রদর্শন দ্বারা তাদের মনযোগ আকর্ষণ ও অবাক করে দেয় ৷

২৷ ফেটিসইজম(বস্তুকাম): আপনার আশেপাশে লক্ষ্যে করলে দেখবেন যে হঠাত্ হঠাত্ মহিলাদের পোশাক ব্যবহৃত জিনিস চুরি হয় ৷ মুলত এ রোগে আক্রান্ত রোগীরাই চুরি করে৷ বিভিন্ন বস্তু দ্বারা যৌন চাহিদা মেটায় ৷ বেশিরভাগই মহিলাদের ব্রা,ওড়না,জামা,জুতা’ই বেশি ব্যবহার করে৷

৩৷ফ্রোট্টিউরজম: বাস ট্রেনের ভীড়ের মাঝে মহিলারা প্রায়ই যৌন হয়রানীর শিকার হন ৷ কিছু পুরুষ মানুষ গায়ে হাত দেয়,পুরুষাংগ অন্যের শরীরে ঘষে যৌন চাহিদা মেটায়৷ মুলত এরাই ফ্রোট্টিউরজম নামক রোগে আক্রান্ত৷
সম্ভবত ভারতীয় উপমহাদেশে এ রোগীর সংখ্যা বেশি ৷

৪৷ পেডোফিলিয়া (যৌনশোষন): পূর্ন বয়স্ক ব্যাক্তিরা যখন শিশুদের উপর
যৌন-ক্রিয়া করে , তাকে পেডোফিলিয়া
বলে, বা সংক্ষেপে “পেডোফিল” ও বলা হয়।
এটা এক ধরনের যৌন বিকৃতি।এই সব
ব্যাক্তিরা শিশুদের দেখে তীব্র যৌন-
উত্তেজনা বোধ করে। ফলে,তারা সুযোগ
বুঝে শিশুদের উপর যৌন-ক্রিয়া করে। এই
রোগ পুরুষদের মধ্যেই বেশী দেখা যায়।

৫৷মাশোনিজম (মর্ষকাম): মাশোনিজম মানে হলো নিজে বা অন্যের দ্বারা আঘাত প্রাপ্তির মাধ্যমে যৌন তৃপ্তি পাওয়া ৷ এ রোগের রোগীরা সেক্স করার সময় কিংবা অন্যসময় চপেটাঘাত, কামড়,বিভিন্নভাবে ব্যাথার মাধ্যমে যৌন সুখ পাওয়া৷

১৯ শতকের অষ্ট্রীয় লেখক লিওপোল্ড ভন সেচার-মাকোশ তার উপন্যাসে সর্ব প্রথম এই টার্মটার ব্যাখ্যা দেন এবং ব্যাথার মাধ্যমে কীভাবে যৌনসুখ পায় তা দেখান ৷

৬৷ সেক্সুয়াল স্যাডিজম (ধর্ষনকাম): কোন সুস্থ স্বাভাবিক বিবেক সম্পন্ন মানুষ কখনো ধর্ষন করতে পারেনা৷ নিশ্চিতভাবে এরা সেক্সুয়াল স্যাডিজমের রোগী ৷ কোন ব্যাক্তিকে যখন আক্রমন আঘাত ও জোরপূর্বক তার কাছ থেকে যৌন সুখ আদায় করা হয় তখন সেটাকে ধর্ষন বলে৷
৭৷ ট্রান্সভেসটিক ফেটিজম: এ রোগের রোগীরা সাধারনত পুরুষরা, যারা পুরুষ হলেও নিজেকে নারী হিসেবে ভাবতে পছন্দ করে৷ এরা মহিলাদের পোশাক পড়ে যৌন প্রতিক্রিয়া লাভ করে৷ এ রোগ দুটি স্থায়ী পদ্ধতিতে সারানো যায়৷ হরমোনাল ইনজেকশন ও লিঙ্গান্তরের মাধ্যমে৷

৮৷ ভোয়েরিজম: ভোয়েরিজম হলো এমন একটি ডিজর্ডার যেখানে ব্যাক্তি নগ্ন শরীর অর্ধনগ্ন কিংবা যৌন ক্রিয়ারত অবস্থায় থাকা ব্যাক্তিদের দেখে তৃপ্তি পায় ৷ অনেকের মাঝেই এ লক্ষন দেখা যায় ৷ সাধারনত পুরুষদের ক্ষেত্রে এটা হয়ে থাকে৷

৯৷ জুফিলিয়া: জুফিলিয়া এমন একটা টার্ম যেখানে কোন ব্যাক্তির অনুভূতি ও আচরন বর্ননা করে যেটা কোন প্রানীর সাথে জড়িত৷ পর্নোগ্রাফিতে কুকুর ঘোড়া বা গৃহপালিত প্রানীর সাথে সেক্স করা দেখা যায় ৷ মুলত এ রোগীরা গৃহপালিত প্রানী দ্বারা যৌনাকাংঙ্খা মেটায় ৷

১০৷ নেক্রোফিলিয়া: নেক্রোফিলিয়া এমন একটি টার্ম যেখানে যৌনাভূতি ও আচরনে শরীর জড়িত ৷

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

59 − 52 =