বাংলাদেশের বিজয় এবং বেপরোয়া হাতুরে

ছোটবেলার কথা মনে পরলে টেস্টের প্রথম দিনে খুব মনযোগ দিয়ে দেখতাম যে আজকে কিছু একটা ভালো হবেই। মাঝে মাঝেই বাংলাদেশ অনেক সুন্দর শুরু করতো। বিশেষত শাহাদাত হোসেন আর তাপস বৈশ্যদের কথা মনে পরে। এত কষ্ট করে সুন্দর একটা শুরুর পরে সবাই আবার খেই হারিয়ে চলে যেত বাজে টেস্ট খেলার উদাহরণ সৃষ্টি করতে।
?resize=620%2C330″ width=”512″ />

বাংলাদেশ।
ক্রিকেট এ এখন অনেক বড় দলেরও পা কাঁপে এই নাম শুনলে। তবে হ্যাঁ, সেটা এখনো ওয়ানডের জন্যেই।
?resize=620%2C330″ width=”512″ />

টেস্ট ক্রিকেটের অনেক বড় বিনোদন এর নাম বাংলাদেশ। অনেক বড় লেখক আর ক্রিকেটবোদ্ধার এখনো অনেক লেখা আছে যা সরাসরি না হলেও এটাই বোঝায় যে বাংলাদেশ কে বাদ দেবার একদম চলে এসেছে।

উত্তর মাঝে মাঝেই দিতে চাই আমরা। চেষ্টা করি, একদম কাছে যাই, তারপর? হেরে যাই।

চলছিল এরকমই।

একটা টেস্ট মানে এক গাদা দোষারোপ। একগাদা অভিমান আর মন খারাপের দিন। কখনো কখনো মন খারাপ করে দু-একটা ঝগড়াও হয়ে যায়।

ছোটবেলার কথা মনে পরলে টেস্টের প্রথম দিনে খুব মনযোগ দিয়ে দেখতাম যে আজকে কিছু একটা ভালো হবেই। মাঝে মাঝেই বাংলাদেশ অনেক সুন্দর শুরু করতো। বিশেষত শাহাদাত হোসেন আর তাপস বৈশ্যদের কথা মনে পরে। এত কষ্ট করে সুন্দর একটা শুরুর পরে সবাই আবার খেই হারিয়ে চলে যেত বাজে টেস্ট খেলার উদাহরণ সৃষ্টি করতে।

অনেক দিন ই চলে গেল, কিন্তু আমাদের টেস্ট প্রায় বলা যায় সে জায়গায়ই দাঁড়িয়ে থাকত যদি না কয়েকটা বড় পরিবর্তন আসত।আমাদের সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হলো কয়েকজন খুব ভালো প্লেয়ার এবং একজন ভালো কোচ। আমাদের অনেকেই (মাঝে মাঝে আমিও) টিম এর কিছু সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারিনা।

কিছু সিদ্ধান্ত যেমন মুমিনুল এর বাদ পরা মেনে না নেয়াই স্বাভাবিক। তাতে যদি বাংলাদেশ আজকে শ্রীলংকার সাথে সিরিজ ও জিতে যেত তবু বলতাম যে মুমিনুল থাকলে হয়তো ব্যবধান আরো বড় হতো। এরকম কেন হয় তার কারণ আমার আর আপনার কাছে শুধু না হয়তো স্বয়ং মুশির কাছেও পরিস্কার না হতে পারে। এমন হয়,এমনটা হয়ে থাকে।
তবে আজকের এই টেস্টের ফলাফল দেখে হাতুরে সিং কে অবশ্যই আমরা স্বাগতম জানাই। তার অবদান অবশ্যই এদেশের ক্রিকেট ইতিহাস চিরদিন মনে রাখবে। এমনকি মুমিনুল কে বাদ দেয়াতেও আমি তাকে স্বাগত জানাতেই পারি। মুমিনুল শেষ কয়েকটা টেস্টে বেশ খারাপ খেলছিল। তার শেষ কয়েকটা টেস্টের রান ৮০,২১,১৩,৬৮,৩০,৬,৪০,০,২৭,৬৬,১,৬৪,২৩,১২,২৭,৭,৫।
এখন আপনি মত পাল্টে বলবেন না যে কেন এতদিন বাদ দেয়া হয়নি!

এরকম অনেক কিছুই হয় যা আমরা বাইরে থেকে দেখে বুঝিনা যে কি হলো এবং কেনো হলো। কারণ শুধু লোকমুখে প্রচলিত কিছু শুনি এবং সেটা নিয়েই কথা চালিয়ে যাই। হ্যাঁ এমন অনেক কিছুও টিম এ হতে পারে যা পরিসংখ্যান দিয়ে মেপে বলা যায়না যে কেনো হলো। এরকম হয়ে থাকে। এরকম হয়।

অনেক প্ল্যান থাকে যেটা হয়তো সংবাদ সম্মেলন করে বুঝানো যায় না যে কেনো হলো। তখন টিম কে দোষ না দিয়ে আমরা একটু ডিপ্লোম্যাটিক চিন্তা করলেই আর আপনার কাছে সব পরিস্কার হয়ে যাবে।

হয় এরকম হয়।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “বাংলাদেশের বিজয় এবং বেপরোয়া হাতুরে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

79 + = 83