রম্য লেখক মার্ক টোয়েনের কয়েকটি উক্তি, সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

প্রারম্ভিকা :
রাষ্ট্র নামক নামক সীমাবদ্ধ ধারণার বাইরে বিশ্বসাহিত্যের যে কয়জন শক্তিধর রচনাকার সারা পৃথিবী নিজের আলোয় আলোকিত করতে পেরেছিলেন মার্ক টোয়েন সেই অনেকের মধ্যে একজন। তাঁর তূলনা তিনি নিজেই।

দখল আর লুন্ঠন লুট হত্যার মাধ্যমে যে জাতি অপরের ভূমি আর সম্পদ দখল করে গড়ে উঠেছিল সেই আমেরিকানদের কলংকিত ইতিহাসে টোয়েনের মত আরো বহু মানুষের মত বৈভব ছড়িয়ে আছে। টোয়েন তার রসবোধের জন্য বিখ্যাত, এই রসবোধ এর মধ্যে রাজনীতি আর ধর্মের অনিয়মের বিরুদ্ধে তার তীক্ষ্ণধার সুচিন্তিত শিল্পসম্মত মন্তব্যগুলি একই সাথে আপনাকে ভাবতে বাধ্য করে এবং তার ওজন সম্পর্কেও একটা ভাল ধারণা দেবে। আমি তার ব্যাপারে খুবই কম জানি কিন্তু মানুষ এত বেশি জানেন যে তারা হাজার হাজার প্রবন্ধ আলোচনা সমালোচনা লিখে রেখেছেন। সেগুলি পড়ে আমিও আরেকটা সমালোচনা লিখছি না, এই লিখাটিতে তার কিছু উক্তি অনুবাদ করেছি মাত্র। এই উক্তি গুলিতে টোয়েনকে সম্পূর্ণ জানার উপায় নেই সেজন্য একটু খোজ খবর করলেই পেয়ে যাবেন। রসবোধ আছে, টুকটাক হলেও পাঠ করেন এমন অধিকাংশ মানুষেরই তাকে চেনার কথা। লিখাটির শেষে মার্ক টোয়েনের একটি সংক্ষিপ্ত পরিচিতি জুড়ে দিয়েছি এবং তার কটা বই ডাউনলোডের লিংক। বাকি সব তার উক্তি।

উক্তিসমূহ :

টেলিভিশন আমার কাছে খুবই শিক্ষামূলক। যখনই কেউ সেটা চালু করে আমি পাশের ঘরে চলে যাই এবং একটা বই পড়তে শুরু করি।

আমি এখন নিশ্চিৎ যে, রাজনীতি আর ধর্মের ব্যাপারে যুক্তিতর্কে মানুষের যুক্তির ক্ষমতা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই একটি বাদরের চেয়ে বেশিকিছু নয়।

খ্রীষ্টধর্মের অনুসারী মাত্র একজনই ছিলেন, তাকে গ্রেপ্তারের পর ক্রুশবিদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে।

আমি সমালোচনা পছন্দ করি, কিন্তু সেটা আমার পদ্ধতি অনুযায়ী হতে হবে।

মানবিক সকল কিছুই বেদনাবিধুর। রসবোধের রহস্য আনন্দে নয় বেদনায় নিহিত আছে। স্বর্গে কোন রস নেই।

একজীবনে আপনার যা প্রয়োজন তা হল মূর্খতা এবং আত্মবিশ্বাস। তাহলেই আপিনার সাফল্য নিশ্চিৎ।

মানসিক সুস্থতা এবং সুখ এর সহাবস্থান অসম্ভব।

মানুষ সম্পর্কে আমি যতই জানি আমার কুকুরটিকে ততই ভালবাসি।

ফ্রান্সের শীতও নেই গ্রীষ্মও নেই, এবং কোনো নৈতিক মূল্যবোধও নেই। তবে এই কটি ছেড়ে দিলে ফ্রান্স একটি চমৎকার দেশ।

স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বই পড়ার ব্যাপারে সাবধান। ছাপার একটি ভুলের কারণে আপনার প্রাণ চলে যেতে পারে।

সবাই ধনী হলে, সকলকেই গরীব হতে হত।

জীবনের সুখ অসীম হতে পারত যদি আমরা ৮০ বছর বয়সে জন্মগ্রহণ করে বয়স কমতে কমতে ১৮ বছর বয়সে উপনীত হতে পারতাম।

ধ্রুপদী সাহিত্যের বই হল সেটা যার প্রশংশায় সবাই পঞ্চমুখ কিন্তু কেউ সেটা পড়ে না।

পোষাক মানুষটিকে তৈরী করে, উলঙ্গ মানুষের কোন মূল্য নেই বা যৎসামান্য।

যখনই আপনি দেখবেন আপনি সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের মতের পক্ষে দাঁড়িয়ে আছেন বুঝতে হবে আপনার ব্যাক্তিগত সংস্কারের প্রয়োজন।

ঘুমানো এবং বিশ্রাম ছাড়া আমি আর কোন শরীরচর্চা করি না।

স্বর্গে যাবেন আবহাওয়ার জন্য, নরকে যাবেন সঙ্গ লাভের জন্য।

যদি সত্য বলার অভ্যাস করতে পারেন, তাহলে আপনাকে কিছু মনে রাখার কষ্টটি আর করতে হবে না।

এগিয়ে যাবার রহস্য হল আরম্ভ করা।

অনেক তুচ্ছ বিষয় মহান হয়ে গেছে সঠিকভাবে বিজ্ঞাপন দেবার কারণে।

অপেক্ষা করবেন না, সঠিক সময় কখনই আসবে না।

একটি সফল বিবাহ হল দুজন উচ্চমানের ক্ষমাশীল মানুষের যৌথতা।

ব্যাঙ্কার হল সেই লোক যে মিষ্টি রোদের সময় আপনাকে তার ছাতাটা ধার দেয় এবং ভারী বর্ষণ শুরু হওয়া মাত্রই সেটা ফেরৎ চায়।

প্রজ্ঞা হল আপনার পুরষ্কার যা আপনি সারাজীবন ধরে শ্রবণ করার ফলে অর্জন করেছেন যখন আপনি চাইলেই কথা বলতে পারতেন।

আপনারা এমন একটি গ্রন্থকে সত্য বলে বিশ্বাস করেন যেখানে পশুপাখিও কথা বলে, যাদুকর এবং ডাইনি আছে, শয়তান আছে, সাপে রুপান্তরিত হয়ে যাওয়া লাঠি আছে, এমন ঝোপের গল্প আছে যাতে আগুন লেগে আছে কিন্তু সেটা পুড়ছে না, আকাশ থেকে খাদ্যদ্রব্য পতিত হবার গল্প আছে, এবং সকল প্রকার অযুক্তি আর অলৌকিকতা আছে – সেই আপনারাই বলছেন আপনাদের সাহায্য প্রয়োজন।

ক্রমাগত উন্নতি বিলম্বিত সঠিক হবার চেয়ে ভাল।

কোন শুকরছানাকে সংগীতের পাঠ দিতে যাবেন না, আপনি নিজের সময় নষ্ট করবেন এবং শুকরছানাটিকেও বিরক্ত করবেন।

দয়া এমন একটি ভাষা যা বধির শুনতে পায় এবং অন্ধ দেখয়ে পায়।

আমরা সকলেই নর্দমায় বাস করি, কেবল কিছু মানুষ তারার দিকে তাকিয়ে আছি।

আমার জ্ঞাণ অর্জনের ব্যাপারে আমি কখনই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাকে নাক গলাতে দেইনি।

রাজনীতিবিদ এবং ডাইপার সময়ে সময়ে বদলাতে হয়, কারণ একই।

কোনো বেকুবের সাথে তর্ক করবেন না, খুব সম্ভব যে পর্যবেক্ষণকারী আপনাদের পার্থক্য বুঝতে পারবে না।

আপনার কাছে পৃথিবীর কোনো ঋণ নেই, পৃথিবী আপনার আসার আগে থেকেই এখানেই ছিল।

লড়াইরত কুকুরটি কত বড় সেটা বিষয় নয়, বিষয় হল কুকুরটির ভেতরে লড়াইটি কত বড়।

রাগ এমন একটি এসিড যা ধারক পাত্রটিকে যত ক্ষতি করে যে পাত্রে ঢালা হয় তার তত ক্ষতি করে না।

একটি তাৎক্ষণিক বক্তৃতা তৈরী করতে আমার তিন সপ্তাহের মতো সময় লেগে যায়।

পত্রিকা না পড়লে আপনি তথ্য পাবেন না, পড়লে ভুল তথ্য পাবেন।

আমার জীবন ছিল অনেক দূর্ঘটনায় পূর্ণ যেগুলির বেশিরভাগই ঘটেনি।

অনুসন্ধান করা অনুমান করার চেয়ে শ্রেষ্ঠ।

ধুমপান ত্যাগ করা পৃথিবীর সবচে সহজ কাজ, আমি সেটা জানি কারণ আমি হাজার বার ধুমপান ত্যাগ করেছি।

ঈশ্বর যুদ্ধ তৈরী করেছিলেন এই কারণে যেন আমেরিকানরা ভূগোল শিখতে পারে।

মানুষই একমাত্র প্রাণী যে লজ্জায় লাল হয়ে উঠতে পারে, এবং তার এই অভিব্যাক্তির প্রয়োজন আছে।

সত্য গালগল্পের চেয়ে বেশি অপরিচিত।

ফুলকপি হল কলেজের শিক্ষায় শিক্ষিত একটি বাঁধাকপি, এর বেশি কিছুই নয়।

আমাদের শিক্ষা গ্রহণের এই বর্তমান হারটি যদি বজায় থাকে তাহলে অচিরেই আমরা আসলে কার্যত আর কিছুই জানব না।

আপনি যদিবেকটি ক্ষুধার্ত কুকুরকে আশ্রয় দেন এবং তার অবস্থার উন্নতি ঘটান তাহলে সে আপনাকে কামড়াবে না, মানুষ আর কুকুরের আসল পার্থক্যটি এই।

ঠিকানাবিহীন খামের মতো বসে থেকে আমার দিকে তাকিয়ে আছেন কেন।

যদি নিজেকে ইতোমধ্যে গর্তের ভেতরে আবিষ্কার করে থাকেন তাহলে অবিলম্বে খনন করা বন্ধ করুন।

ভাল মানুষ হয়ে যান, আপনি নিঃসঙ্গ হয়ে যাবেন।

সততাই সর্বোৎকৃষ্ট পন্থা, যদি তাতে দু পয়সা আয় রোজগার হয়।

সঠিক কথা আর প্রায় সঠিক কথার পার্থক্য হল আলো আর আলোর পোকার (জোনাকি) পার্থক্যের মতো।

আমার জীবনে সবচে যে শীতল শীতকালটি পার করেছি সেটা ছিল সানফ্রানসিসকোতে এক গ্রীষ্মকাল।

খ্রীষ্টরোগের সর্বোত্তম চিকিৎসা হল বাইবেল পাঠ।

আপনার টাকাকে দ্বিগুন করার সবচে ভাল উপায় হল সেটা দুভাঁজ করে পকেটে রেখে দেয়া।

ঝুঁকিপূর্ণ বিনিয়োগ মানুষের জীবনে দুটি সময় করা উচিৎ নয়, প্রথমতঃ যখন সে বিনিয়োগের জন্য যথেষ্ট অর্থের ব্যাবস্থা করতে পারে না,দ্বিতীয়তঃ যখন যখন সে বিনিয়োগের জন্য যথেষ্ট অর্থের ব্যাবস্থা করতে পারে।

মৃত্যুকে আমি ভয় পাই না। আমি জীবিত হয়ে উঠার আগেও লক্ষ লক্ষ বছর আগেও মৃত ছিলাম, আমার কোনো অসুবিধা হয়নি।

মার্ক টোয়েনের সংক্ষিপ্ত পরিচিত :
আমেরিকার মিসৌরী রাজ্যের ফ্লোরিডার একটি ছোট গ্রামে জন এবং জেন ক্লেমেন্স এর ষষ্ঠ সন্তান হিসাবে মার্ক টোয়েন ৩০ নভেম্বর ১৮৩৫ সালে জন্মগ্রহণ করেন। পিতামাতা নাম রেখেছিলেন স্যামুয়েল ল্যাংগরনি ক্লেমেন্স। মার্ক টোয়েন তার লেখালেখির নাম এবং এই নামেই জগৎজুড়ে তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। টোয়েনের বয়স যখন ৪ তখন অদূরেই হানিবল নামের একটি ১০০০ জন মানুষের ব্যাস্ত শহরে তাঁর পরিবারটি স্থানান্তরিত হয়।
মুদিদোকানি, উকিল,জজ,জমির দালালি হেন কাজ নেই যা টোয়েনের বাবা করেন নি কিন্তু কোনোভাবেই আর্থিক স্বচ্ছলতা আনতে পারেন নি, তার পরিবার খুব আর্থিক অনটনের মধ্যেই দিনাতিপাত করত। কিংবদন্তি আছে যে টোয়েন কখনই নিজের শৈশবে বাবাকে হাসতে দেখেন নি। তবে মাকে প্রচুর হাস্যরসে অভ্যস্ত দেখেছেন। টোয়েনের মা ছিলেন আনন্দ আর রসবোধে পূর্ণ মানুষ। ১৮৪৭ সালে টোয়েনের পিতা অপ্রত্যাশিতভাবে মারা গেলে পরিবারটি খুব বিপদে পড়ে যায়। টোয়েন তখন কিশোর। এই অর্থনৈতিক সংকট তাকে সমাজের কদর্য চেহারাটি দেখিয়ে দেয়। বয়স ৪ থেকে ১৪ পর্যন্ত হানিবলেই কাটিয়েছেন। ৯ বছরে প্রথম হত্যা দেখেন আর ১০ বছরে দেখেন লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে দাস মেরে ফেলার ঘটনা।

১৮৬১ তে ক্যালিফোর্নিয়া এর নেভাডায় যান রুজির তালাশে আর সেখানে ৫ বছর থাকেন। সেখানে সোনা রুপার কারবারে সুবিধা করতে না পেরে পরে চাকরি খুজতে থাকেন। জীবনের তিক্ততা আর পিতার প্রভাব তাকে হতাশাবাদী মানুষে পরিণত করেছিল। অল্পদিনে তিনি জনপ্রিয় পশ্চিমা ছোট গল্পকার হয়ে উঠেন। Jim Smiley and His Jumping Frog ছোটগল্পটি তাকে জনপ্রিয় করে তোলে এবং পরবর্তী সাফল্য আসে ১৮৬৯ এ The innocent abroad বইটি প্রকাশিত হলে। বয়স ৩৪ এ তিনি তার খ্যাতির শীর্ষে আরোহন করেন। জীবনের শেষ ১৫ টি বছর মানুষের ভালবাসা সম্মান এবং অক্সফোর্ড আর ইয়েল ইউনিভার্সিটির ডিগ্রীলাভ করার মত অভাবনীয় সাফল্যে জীবন ঘটনাবহুল হয়ে উঠে। তিনি এ সময় কিংবদন্তি হউএ উঠেন। যে দুটি লিখা ববিশ্বসাহিত্যে স্থান করে নেয় তার একটা The Adventures of Tom Sawyer প্রকাশিত হয় ১৮৭৬ সালে এবং এর সিকুয়াল Adventures of Huckleberry Finn প্রকাশিত হয় ১৮৮৫ সালে। তার অনেক আগেই তার গল্প, সমালোচনা প্রবন্ধাদির জন্য তিনি বিখ্যাত হয়ে উঠেন।

জীবনের শেষ কটা বছর প্রচুর ধুমপান করে, তাস খেলে আর বিলিয়ার্ড খেলে ৭৪ বছর বয়সে, দেশের বাড়ি রেড্ডিং এ মারা যান। দিনটি ছিল ২১ এপ্রিল ১৯১০।

পরিশিষ্ট :

Mark Twain এর লিখা ফ্রি ডাউনলোড করুন গুটেনবার্গ প্রোজেক্ট এর সাইট থেকে : http://www.gutenberg.org/ebooks/author/53

এই লিখাটা অনুবাদ। আমার লিখা কেবল শুরুতে আর শেষে কিছু পরিচিতি।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৪ thoughts on “রম্য লেখক মার্ক টোয়েনের কয়েকটি উক্তি, সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 41 = 47