আত্মঘাতী নয়, কমেডি শো!

আত্মঘাতী নয়, এটা একটা কমেডি শো!
গতকাল গণহত্যা এবং আজ জাতীয় দিবস। মূলত এই দু’দিবস-কে তরুণ প্রজন্মের কাছে স্মরণীয় রাখার অল্পপ্রাণ প্রয়াস। এ ধরুন ‘অপরাশেন চার্চলাইট’ যেমন হয়েছিল কি, একদল মুষুলমান গুলিনিয়ে চোরপুলিশ খেলল কিছু সাধারন জনতার উপর। পরে দ্যাখা গ্যাছে তাঁরা মুষুলমান এবং হায়েনা ( উপাধি ) দুটোই। এদের আরো একটি বড় বৈশিষ্ট্য, এরা মুষুলমান না হোন্দি তা নির্ধারণ কোরতেন লুঙ্গি উপরে তুলে নুনু্র ধরন দ্যাখে। তবে এটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছিল না। তখন ফাক-বাহিনী।

আর এখন যেটা হচ্ছে কি, দিবস দুটো উপলক্ষে ‘শিববাড়িতে’ এটার একটা কমেডি শো। জঙ্গি’নাম ধারী একদল লোক চোরপুলিশ খেলছে। তবে কমেডি বোলার মূল কারণ, এখানে বার্তি দৃশ্য সরকার পক্ষের সেনারা এদেরকে নিয়ন্ত্রন কোরার চেষ্টা কোরছে এবং জঙ্গি বোলে আখ্যা দিচ্ছে; যেটা বড় হাস্যকর ইনাদের সরকার, ‘এগুলো সব বিচ্ছিন্ন ঘটনা, দ্যাশে তোন জঙ্গি নেই।’ এবং শহিদের মরন লাভের জন্য আত্মহত্যা কোরছে। তবে এখানে আত্মহনণের দৃশ্যটা ‘প্রীতিলতা’ ফ্লিমের নকল।
একথায় জোশ একটা শো!

হ্যাঁ ঠিকিতো, দেশে কোন জঙ্গি নেই, আর আসবেই বা কোত্থেকে? বিরানব্বই শতাংশ মুষুলমানের রাষ্ট্র বোলে একটা কথা আছে বৈকি। মুষুলমান মানেইতো শান্তিপ্রিয় ধর্মের অনুসারী লোকসমূহ।
মিডিয়া শুধু-শুধু এদের জঙ্গি বোলছে, অশান্তি সৃষ্টির জন্য।

দাদা ওটা ভাব্বেন, এটা নয়। তখন ফাক-বাহিনী বোলেছিল আর এখন জঙ্গি বোলছে। দেশের সঙ্গে-সঙ্গে যে শব্দ গুলোও ডিজিটালাইস্ট হচ্ছে, সরকার এটা বুঝে নিতে কষ্টে হচ্ছে।

বুজ্তে হোপ্পে দাদা। আপ্নেরা না বুঝলে এসব ঘটনা গুলো ইলেকট্রনিক মিডিয়া গুলতে দ্যাখে হয়তো আপনার আচমকা এই বোধ হবে, ‘জীবনঢুলি’ দিচ্ছে।

এখানে একটি প্রশ্ন হচ্ছে,
-ইত্তো জোশ মুভিগুলো আমেরিকাতে ক্যানো হয় না?

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 18 = 19