ও আধটু নাচতে জানতো

ছোট শিশু হয়ে ওর জন্ম হয়েছিল ঝড়ের রাতে ।
এক বছরে শিশুটি ‘মা’বলেছিল কাক ডাকা প্রাতে ।।
কদিন বাদে দৌড়ঝাপ, অট্টহাসিতে আকাশ কাপে।
তারোপরে মা বকে বাবা বকে এই শিশুটির তাপে ।।
শিশু সবে মাত্র দশে ,মেয়ে হয়ে ওঠে জন্মের দোষে ।
এখন সে ঘর বন্ধি তিন দিন , প্রতি মাসে মাসে ।।
বন-বাদাড়ে একলা মেয়েটা বুনো ফুল তুলতো ।
মেয়েটা বুঝলো সামনে পিছে ওর শরীর দুলতো ।।
মেয়েটা স্কুলে গেলে বদ নচ্ছাড় মাস্টার কাছে টানে ।
মাঝে মাঝে লোভ দেখায়,দুএকটা লজেন্স আনে ।।
অঙ্ক শিখাতে বাসায় ডেকে স্যার ফিজিক্স শেখায় ।
চার মাসে মেয়েটার পেট পিলে রুগীর মতো দেখায়।।
হটাৎ পুলিশ আসে একটা মাস্টার ধরে জেলে পোরে।
দুই মাস্টার খেলায় ছিল এবার সত্যি বেরিয়ে পড়ে ।।
চার লাক্ষ টাকার জোরে বাবার মুখটা বন্ধ করে।
গ্রাম্য শালিসে বংশের লোক মাস্টারের দলে ভেড়ে ।।
যা! এই মেয়েটা নাকি একটু একটু গাইতে জানতো।
ভাইটি পুলিশকে বলে,”ও আধটু নাচতে জানতো”।।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 1 = 2