‘’ রেশমা ’’ – অবিনাশী প্রাণ

‘’ রেশমা ’’ – অবিনাশী প্রাণ

কোন সে অতল গহ্বরে ছিলে তুমি
মৃত্যুর এতো কাছাকাছি ?
ফিরে এলে বিজয়ী হয়ে,
ফিরে এলে বাংলার ১৬ কোটি হৃদয়ে,
যেমন এসেছিলো একাত্তরের ষোল ।

যদিও ইতিহাস দেয়নি তোমায় তোমার প্রকৃত সম্মান
তবু ইতিহাস গড় তুমি বারবার
বিজয়ী বীর হে শ্রমিক বোন আমার ।
আনন্দ অশ্রু আজ বাধ মানেনা
চেয়ে দেখ স্বদেশের করুণ চোখে সেই পুরনো দৃপ্তি
সেই হাসি প্রিয় স্বজন ফিরে এলে আমরা হাসি ।

তোমার অসীম প্রাণ শক্তি দিয়ে জাগিয়ে দাও ফের বাংলার মাঠ ঘাঁট আকাশ বাতাস
ঘরে ঘরে বন্দী নারীর কাছে পৌঁছে দাও তোমার আগমনী বারতা
আর তীব্র ঘৃণায় জানিয়ে দাও মুখোশের আড়ালে লুকোনো ধর্মান্ধ কুৎসিত শকুনদের,
নারী – পুরুষের মিলিত শ্রমে গড়ে উঠেছে সভ্যতা
আর তোমার অধিকার কেড়ে নিয়ে কুচক্রী পুরুষ বানিয়েছে নিষিদ্ধ হারেম,
আরও জানিয়ে দাও রাষ্ট্র যন্ত্রকে
তোমার শ্রমের ফলে উদ্বৃত্ত হয় যে সম্পদ সেখানেও সম্পূর্ণ দাবী কেবল তোমারই
তুমি এবং তোমরাই গড়বে একদিন সমতার আগামী ।

মালিকের সাথে ছিলোনা এ দরকষাকষি
মৃত্যুর সাথে জীবনের, তাই
বলে দাও জীবনের কানে কানে , এভাবেই তুমি আসো প্রাণে প্রাণ মেলাবে বলে …

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৭ thoughts on “‘’ রেশমা ’’ – অবিনাশী প্রাণ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 84 = 89