অপার সম্ভাবনাময় চারকোল

সোনালী আঁশ পাট থেকে তৈরি করা হচ্ছে চারকোল। ২০১২ সালে দেশে সর্বপ্রথম পাটকাঠি থেকে অ্যাকটিভেটেড চারকোল তৈরি এবং তা চীনে রফতানি করা হয়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চারকোলের চাহিদা ব্যাপক। পাটকাঠিকে ৪৫০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় ৮ থেকে ১০ ঘণ্টা বিশেষ চুল্লির মাধ্যমে পুড়িয়ে প্রাথমিকভাবে কয়লা তৈরি করে বিশেষ ক্রাশার মেশিনের মাধ্যমে ক্রাশিং করে চারকোল তৈরি করা হয়। এর প্রধান উপাদান কার্বন যার চাহিদা ব্যাপক। সাধারণত এক মণ চারকোল উৎপাদনে গড়ে খরচ হয় ৩০-৩৫ টাকা অথচ বিক্রি করা যায় ৭৫-৯০ টাকায়। তুষকেও মেশিনের সাহায্যে বিশেষ প্রক্রিয়ায় চারকোলে পরিণত করা হয়।

ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন জেলায় যেমন- রাজবাড়ী, জামালপুর, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, ফরিদপুর, পাবনা, রাজশাহীসহ অনেক স্থানেই চারকোল উৎপাদন করা হচ্ছে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় ও সুলভে ব্যাংক ঋণের ব্যবস্থায় এ শিল্প আরও এগিয়ে যাচ্ছে।

চারকোলের ব্যবহার বহুমুখী, যা থেকে বিভিন্ন দেশে তৈরি করা হচ্ছে পানির ফিল্টার, ফেসওয়াশ, ফটোকপিয়ারের কালি, বিষ বিধ্বংসী ওষুধ, জীবন রক্ষাকারী ও দাঁত পরিষ্কারের ওষধ সামগ্রীসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় অনেক কিছু। পণ্যটি পর্যাপ্ত পরিমাণে উৎপাদন করতে পারলে ভবিষ্যতে জাপান, তুরস্ক, যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, মেক্সিকো, কানাডাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশেও রফতানি হবে এবং চাঙ্গা হবে অর্থনীতি।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “অপার সম্ভাবনাময় চারকোল

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

64 − 62 =