‘চৈতালি সাধনা’

চৈতালি বাতাসে ভাসে প্রভাতের
বৃষ্টির গন্ধ, ঝিরিঝিরি হাওয়া,
কিশোরীর কানের দুলের মত ঝুলে
মুকুলিত আম, পত্রহীন বৃক্ষেও
জাগে আশা, হয় রোদ্দুর পাওয়া।
শহরে কাকেরাই সংখ্যাগুরু
তবুও ওরা চায়নি পাখিরাজ হতে,
সবুজে সবুজে উড়েও ওরা সুখী।
হায়! কাক আজ সন্ন্যাসী মনে হয়!
কালো রঙ নিয়েও কত উজ্জ্বল তারা,
সেই উজ্জ্বলতায় মেঘও যায় সরে
ভাসে খন্ড খন্ড হয়ে,
বৃষ্টিস্নাত ঝকঝকে আবহাওয়ায়
ক্লান্তি নামে আলস্যের রুপ ধরে-
জেগেছে যে কাক খুব ভোরে,
তার ক্লান্তি নেই, নেই আলস্য,
চৈতালি হাওয়ায় কাকেরা পাল তুলে
ভাসায় কালো তরী,
অশীতিপর বৃদ্ধের দাড়ির মত নুয়ে আছে
নারিকেল পাতা মলিন সবুজাভ নিয়ে,
ক্লান্তি আর আলস্যে মেতেছে বৃক্ষরাও!
ওরাও কি মানুষের পথে হাঁটছে?
কাকের দল চৈতালি ওড়ায় ব্যস্ত,
এ তাদের চৈতালি সাধনা।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

7 + 1 =