মাননীয় প্রধান বিচারপতি আপনার কাছে ন্যায় বিচার চাই , আপনি আমাদের আস্থার শেষ আশ্রয়স্থল

ভাস্কর্যের বাম হাতে দাঁড়িপাল্লা ও চোখ বাধা আছে। এর অর্থ হলো- একজন বিচারক সবার মাঝে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করবেন। একটা শিল্পকর্ম যেটাকে ভাস্কর্য বলা হয়, শিল্পী তার নিজের দৃষ্টি ভঙ্গিতে ওটাকে যে কোন কাপড় পড়াতে পারেন এখানে শিল্পকে প্রাধান্য দিয়ে দৃষ্টি ভঙ্গির পরিবর্তন প্রয়োজন |

বাংলা আভিধানিক শব্দের বিকৃতি করণে জামাতের জয় যাত্রাকে সমর্থন দিয়ে আমাদের সংস্কৃতি ও ভাষাকে ছোট করা হয়েছে, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের প্রতিষ্ঠাকাল হতে দাঁড়িপাল্লা ন্যায় বিচারের প্রতীক হিসেবে সুপ্রিম কোর্টের মনোগ্রামে ব্যবহার করা হয়। ফলে দাঁড়িপাল্লা অন্য কোনও ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা রাজনৈতিক সংগঠনের প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করা অনাকাঙ্ক্ষিত ও অনভিপ্রেত, আজ যদি আমরা সব অন্যায়কে মাথা পেতে মেনে নেই তবে বাংলা কৃষ্টি ও সংস্কৃতির উপর ধর্মীয় আগ্রাসনকে মেনে নেয়া |

পাঠ্য পুস্তক থেকে সব কিছু আজ ইসলামী করণের কাজ এগিয়ে চলছে, শিক্ষা ব্যবস্থা দুই ধারাতে চালাতে গিয়ে সাধারণ শিক্ষা নীতি মালাকে বিপর্যয়ের মুখে ফেলে দেয়া হচ্ছে | বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর দলীয় প্রতীক ছিল দাঁড়িপাল্লা, তাই হাইকোর্টের এক রায়ে দলটির নিবন্ধন ও প্রতীক বাতিল করা হয়েছে | গ্রিক মিথ অনুযায়ী গ্রিক ন্যায় বিচারের প্রতীক এই ভাস্কর্য অপসারণ মানেই ভাস্কর্যকে মূর্তি হিসাবে স্বীকৃতি দেয়া | এই অন্যায়কে কোন ভাবেই মেনে নেয়া যায় না |

— মাহবুব আরিফ (কিন্তু)

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 71 = 74