না দেবী , না মানবী

ছোট্টবেলায় খুকি ছিলে যখন ,
পুতুল পুতুল চোখের সবাক দৃষ্টি ,
তখনো বুঝে ওঠা হয়নি
তোমার তখনো নারী হওয়া হয়নি
তখনও অনুভবে আসেনি
অচিন সেই অনুভূতি ।
সময়ের নিয়মে-সমাজের নিয়মে
ক্রমে খুকি থেকে বালিকা ,
সমাজের রক্তচক্ষুর সামনে
পুতুল খেলা ছেড়ে আকাশে ওড়ার
স্বপ্ন বিসর্জনের বিধি মেনে নেওয়া
ভীষণ অন্ধকার সমাজের
সাদা কালো জীবনের বিধি
কি আর করা ? মেনে নেওয়া !

তারপর হঠাত্‍ একদিন
প্রিয় সখীদের সাথে খেলা ভেঙে
বাবার জোর করে বাড়ি নিয়ে আসা ,
আচ্ছা , কি হয়েছিল সেদিন ?
কাবিন ? ধুচ্ছাই !
সে তো সত্যিকারের পুতুল খেলা !

কৈশোর থেকে তারুণ্য ছোঁয়নি
জীবনকে কাছ থেকে
ভালবাসা হয়নি ,
হবে হয়তো পাওনি সময়
ব্যস্ততার বিরতিতে ।
কিশোরী থেকে নারী ,
তোমার সংসারের ব্যস্ততায়
হঠাত্‍ অনুভব ,
এ পুতুল খেলা নয়
জীবনের হিসেবঃ দায়িত্বে ।

কি অদ্ভুত , দেখো !
একদিন আমি জানান দিলাম
তোমার মাঝে আমি ,
নতুন অস্তিত্বে !
কি অদ্ভুত !
কেঁদেছিলে সেদিন , খুব ।
আনন্দে ? শঙ্কায় ?
জানা হয়নি আর ,
প্রশ্ন করিনি , করার সুযোগ পাইনি
কারণ প্রতিটি দিন বেঁচেছি
তোমার অপার মমতায় ।

তারপর একদিন ইচ্ছে হল
পৃথিবীর আলো দেখি
দেখি সেই আলোকিত মায়াময় মুখ
তোমার কি খুব কষ্ট হল ?
মুখে যে আবার হাসি দেখি !
মমতাময়ীর ঘ্রাণ নিলেম ,
ঘ্রাণে বুঝি ভরে গেল বুক !!

সেদিন থেকে ,
বা তার ও শ তিনেক দিন আগেই
সেই খুকি বা বালিকা ,
অথবা সংসার ধর্মে ব্যস্ত নারী-
সব পরিচয় ছাড়িয়েই
নতুন এক পরিচয় পেলে
না দেবী , না মানবী !
“মা”-সে নিজেই এক বিশেষণ
স্নেহে না শাসনের চাদরে ?
থাক , না ই বা বলি ।
এই বিশেষণের বিশ্লেষণ
শ্রেষ্ঠ কবির ও সাধ্যের বাইরে ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৭ thoughts on “না দেবী , না মানবী

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 7 = 1