স্বীকৃতি পাচ্ছেন অনন্য অবদানের

বাংলাদেশে নারীরা কর্মক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে।যে যার অবস্থান থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এবং তার পুরুস্কারও পাচ্ছে। শুধু শিক্ষাক্ষেত্রে নয়, প্রশাসনিক ক্ষেত্রে কিংবা সামরিক বাহিনীতেও তারা কাজ করে সফলতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতেও তারা সৎ ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের মেধা ও মননশীলতা দিয়ে অর্জন করছেন অনেক খেতাব, তারই ধারাবাহিকতায় কর্মক্ষেত্রে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে‘বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন অ্যাওয়ার্ড-২০১৭’পাচ্ছেন ২১ নারী পুলিশ সদস্য ও দুটি প্রতিষ্ঠান। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মিরপুরে পুলিশ স্টাফ কলেজের কনভেনশন হলে এক অনুষ্ঠানে তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে প্রতিবছর কর্মক্ষেত্রে নারী পুলিশের অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে এ পুরস্কার দেওয়া হয়। সাতটি ক্যাটাগরির পুরস্কারের মধ্যে প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘এন্টারপ্রিনিয়ার ইউমেন অর্গানাইজেশন অব দ্যা ইয়ার’ অ্যাওয়ার্ড পাচ্ছেন পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক), উইমেন অর্গানাইজেশন অব দ্যা ইয়ার অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্ক (বিপিডব্লিউএন)। এছাড়া বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক ফাতেমা বেগমসহ ২১ জনকে অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে সর্বাধিক অংশগ্রহণ বাংলাদেশের এবং সর্বোচ্চ সাফল্যের দাবিদারও বাংলাদেশ। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের নারী সদস্যদের অংশগ্রহণ বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর মর্যাদা বাড়িয়ে দিয়েছে অনেকখানি। শুধু অংশগ্রহণ নয়, প্রথম থেকেই বাংলাদেশ পুলিশের নারী সদস্যরা জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে তাদের সাফল্য ও কৃতিত্বের পরিচয় দিয়েছে। বাংলাদেশ পুলিশ পেশাদারিত্বের সঙ্গে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া এ মুহূর্তে হাইতি এবং ডিআর কঙ্গোতে দুইটি বাংলাদেশ ফিমেল ফরম পুলিশ ইউনিট সাফল্যের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের সাফল্যের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের নারী সদস্যের অংশগ্রহণ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 2 = 2