সাধু মানুষ (পর্ব-১)

পতিতা শব্দটি খাটি বাংলায় বলে বেশ্যা। একটি মেয়ের জন্য এই শব্দটা কলঙ্কের।বেশ্যা শব্দটা আমাদের সমাজে নিদিষ্ট কিছু মেয়েকে বুঝায়।স্বামী ছাড়া অন্য পুরুষের সাথে দৈহিক ঘনিষ্ট ভাবে মেলামেশাকে বেশ্যামী বলে। এই শব্দটা নারীদের জন্য সবচেয়ে নিকৃষ্টতম কলঙ্ক।এ কলঙ্ক একটি মেয়ে মৃত্যুর পরও তার স্মৃতি বয়ে বেড়ায়।যা কখনও মুছে ফেলা যায় না। কিন্তু এই কলঙ্ক শুধু একটি মেয়েকে কেন বহন করতে হবে?বেশ্যা/পতিতাবৃত্তি তো শুধু কি একটি মেয়েই করে?দৈহিক সহবাসের মিলনে অন্তঃত একজন পুরুষের প্রয়োজন হয়।তবে আমরা কেন পুরুষকে বেশ্যা বলি না? একটি মেয়েকে বেশ্যা বললে তখন তার সাথে মেলামেলা করা পুরুষকে কেন বেশ্যা বলব না?

দুজনই সমান অপরাধী।একজন শাস্তি পেল অন্যজন রক্ষা পেল।একটু আঁড়চোখে হয়ে গেল না?এ কেমন বিচার হলো?দুজনের পাপের শাস্তি একজন বহন করে বেড়াবে।সমাজের এই আঁড়চোখা মনা পাল্টালে হয়ত খুব কম মেয়েরা এই বেশ্যা/পতিতা বৃত্তি শব্দের ভার বহন করত।

অথচ দেখুন একজন পুরুষ কয়েকটি মেয়েকে বেশ্যার করঙ্ক দিতে পারে।ইতিহাস বিবেচনা করলে কয়জন মেয়ে মিলে একজন পুরুষরে কলঙ্ক দিয়েছে?আসলে মেয়েরা জন্মানো থেকেই পথে পথে কলঙ্ক।

মেয়ে হয়ে জন্মালে খুব কম সংখ্যাক বাবাই মেয়ের মুখ দেখে খুশি হয়।বেশির ভাগই বাবা থেকে শুরু করে গোটা পরিবার একটা মেয়ের জন্মে অসুখী।তাদের মতে একটি ছেলে পাঁচটা মেয়ের সমান।একটি মেয়ে একজন বাবা কিংবা পরিবার,সমাজের সবার কাছেই বোঝা মনে হয়।যেকানে একটি মেয়ে কলঙ্ক মুখে নিয়ে জন্মায়।সেখানে অন্য পুরুষরা কলঙ্ক দেওয়াটাই স্বাভাবিক।সত্যি কথা মেয়ে হয়ে সমাজে বেঁচে থাকা অনেক দুর্বোধ্য। একটা মেয়েকে সয্য করতে হয় অনেক কিছু।সমাজে অনেক লড়াই করে বাঁচতে হয়।এই লড়াই,সংগ্রামের পড় যদি তার মাথা পতিতা/বেশ্যাবৃত্তি কলঙ্ক বহন করতে হয়।তখন একটি মেয়ের জন্য পৃথিবী অঁমাবশ্যার চাঁদের মত মনে হয়।বেঁচে থাকার ভরসা টুকুও সে ধীরে ধীরে হারিয়ে ফেলে।

খুব কম সংখ্যাক মেয়েরা সোনার চামোচ নিয়ে জন্মায়।কিন্তু একটি মেয়েও বেশ্যা/পতিতা হয়ে জন্মায় না।এই সমাজ,এই সংসার,এই সমাজের মানুষ একটা মেয়েকে বেশ্যা বানায়।ওদের বেশ্যাবৃত্তি করতে বাধ্য করায়।আমাদের সুশীল সমাজের কিছু মানুষের জন্য সমাজে আজ অনেক মেয়েকে বেশ্যা কলঙ্ক নিয়ে বেঁচে থাকতে হয়েছে।হিংস্র প্রাণীর থাবায় ছিন্ন-বিছিন্ন হয়ে। এটাকে বেঁচে থাকা বলে না।এদের মেয়ে হয়ে জন্মটাই যে ছিল মস্তবড় পাপ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 15 = 25