চোখের পানে

বলেছিলাম,
হয় সঙ্গী করো, নয় সাঙ্গ করো,
এই আমার অভিলাষ
শুধু প্রশ্ন করো না
তোমায় ভালোবাসি কি-না
সে কথা তখনও ছিলো না জানা–
তখনও তা আমার অজানা।

সে দিন প্রথম যখন
তুমি আমার চোখের পানে
দীর্ঘ দিঘীর মতো চোখ তুলে
তাকিয়ে আর চোখ ফেরালে না,
সে দিন , আমার মন হারিয়ে ছিলো নিসর্গে
উদ্যানে- পদ্মের পাঁপড়িতে আর বসন্ত -কাননে।

আমার মৃত মনের ক্লেদ
সব ধুয়ে মুছে সাফ হয়েছিলো
অদেখা জ্যোৎস্নার জলে জলে স্নানে স্নানে।

আবার তুমি এখন যখন
একই ভাবে তাকাও অন্য কারো পানে
সে হয়তো – – আমারই মতো
লোকোত্তর সুখে-পুলকে মরে যায় বারবার।
আর আমি শব হয়ে যাই মূহুর্তেই
ভাগারে -মর্গে -লাশকাটা ঘরে খুঁজে ফিরি
আমার আমিরে, — শ্মশানে গোরস্তানে।
পৃথিবী জীর্ণ হতে জীর্ণতর পুরাতন লাগে(মনে হয়)
কীটের ও কাঁটার আবাস ভেবে ঘৃণায়–
অন্য কোথাও চলে যেতে ইচ্ছে হয়।

তবুও তুমি অন্যের চোখে তাকাও কেন-
কী খুঁজে যাও সেখানে………………..?
কী না পেয়ে আমার চোখে
অন্য চোখে খোঁজো, বলো না।
যদি চাও-
আবার নবজন্ম লয়ে নতুন চোখে ফিরে আসি
অন্য চোখ আর খুঁজো না।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 32 = 41