আন্তঃদলীয় কোন্দল

জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সারাদেশের সকলস্তরে দল গোছাতে গিয়ে বিপাকে পড়েছে বিএনপি। দল সুসংগঠিত হওয়ার পরিবর্তে জেলায় জেলায় ছড়িয়ে পড়ছে কোন্দল। দলের পরস্পরবিরোধী গ্রুপগুলো সংঘাত-সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে। কোন্দলের কারণে কোন কোন জেলায় কর্মিসভা না করেই কেন্দ্রীয় নেতাদের ঢাকায় ফিরে আসতে হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে বিএনপি হাইকমান্ড তৃণমূল নেতাদের ওপর ক্ষুব্ধ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি জোরদার করতে ২৪ এপ্রিল থেকে সারাদেশের ৭৭টি সাংগঠনিক জেলার সর্বস্তরে সাংগঠনিক সক্ষমতা বাড়াতে বিএনপির সিনিয়র নেতাদের নিয়ে গঠিত ৫১টি টিম মাঠে নামে। জেলায় জেলায় গিয়ে কর্মিসভা করতে শুরু করে এসব টিমের নেতারা। কিন্তু জেলায় জেলায় কর্মিসভা করতে গিয়ে নতুন করে ঝামেলায় পড়ে বিএনপি। দীর্ঘদিন তৃণমূল পর্যায়ে সাংগঠনিক তৎপরতা না থাকায় তৃণমূল পর্যায়ে বিএনপির কোন্দল লক্ষ্য করা যায়নি। কিন্তু দল গোছানোর জন্য যখনই জেলায় জেলায় কর্মিসভা করা শুরু হয় তখনই দলের প্রতিপক্ষ গ্রুপগুলোর মধ্যে শুরু হয়ে যায় কোন্দল ও সংঘাত-সংঘর্ষ। গত কয়েক বছর নানামুখী চাপ ও মামলার ভয়ে দলীয় কার্যক্রম থেকে বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের বেশিরভাগ নেতাকর্মী নিজেদের গুটিয়ে রাখে। কেউ কেউ দীর্ঘদিন রাজপথ ছেড়ে অনেকটা স্বেচ্ছা অবসরে ছিলেন। এখন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে তারা সরব হয়ে উঠেছেন। তারা আগেভাগে সাংগঠনিক পদ-পদবি রক্ষা করতে এবং নিজেদের অবস্থান সুদৃঢ় রাখতে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। তাই কেন্দ্রীয় নেতাদের সাংগঠনিক সফরকে কেন্দ্র করে দলের পরস্পরবিরোধী নেতাকর্মীদের শক্তি প্রদর্শনের মহড়া চলছে। আর এ কারণেই উভয় গ্রুপের মধ্যে বেধে যাচ্ছে সংঘর্ষ। বিএনপি হাইকমান্ড মনে করছে দল গুছিয়ে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন জোরদার করতে না পারলে পরবর্তী জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও সুবিধা করা যাবে না। বিশেষ করে এ সরকারের বিরুদ্ধে আগের ২ দফা আন্দোলন কর্মসূচীতে ব্যর্থতার পর পরবর্তীতে বুঝেশুনেই মাঠে নামতে চায় বিএনপি। এ ছাড়া আন্দোলন সফল না হলেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি যাতে ধীরে ধীরে জোরদার করা যায় সে বিষয়েও দল গোছানো প্রক্রিয়ায় মাথায় রাখছে তারা। তবে যা কিছুই করুক না কেন, সফলতা তাদের ধরা দিবে কিনা সেটা নিয়ে জনমনে সংশয় দেখা দিয়েছে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “আন্তঃদলীয় কোন্দল

    1. জনগণ কি আওয়ামীলীগের সাথে আছে?
      জনগণ কি আওয়ামীলীগের সাথে আছে? বিএনপি’র সাথে জনগণ নেই এই সিদ্ধান্ত কিভাবে আসলেন? বিএনপি’কে মুক্তভাবে রাজনৈতিক কর্মসূচী পাল করতে কী দেওয়া হচ্ছে?

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

4 + 2 =