অার্তনাদের শেষপত্র

হাজারো জঘন্যতম অপমানেও অামার রাগ হয় না,
কারন রাগতে ভুলে গেছি,
মাঝেমধ্যে যেটা প্রকাশ হয় সেটা হচ্ছে অাত্মার অার্তনাদ…..
মানুষ চাইলেই তার অতিত ভুলে যেতে পারে,
অতিত অনেকটা পোঁড়া ঘায়ের মতো, যা হয়তো শুকিয়ে যায়, দাগ ও মিটে যায়, কিন্তু চামড়ার উপরে সামান্য কালছে কিছু অাবরন রেখে যায়….
অামার অতিত গুলো এমনিই….

প্রিয়,
অভিমানী,
সেই অামি, অাবারো তোমায় লেখছি,
হাজারো জঘন্যতম অপমানেও অামার রাগ হয় না,
কারন রাগতে ভুলে গেছি,
মাঝেমধ্যে যেটা প্রকাশ হয় সেটা হচ্ছে অাত্মার অার্তনাদ…..
দেয়ালে যখন পিঠ ঠেকে যায়,
তখন শুধুই বলাৎকার হবার অপেক্ষায় থাকতে হয়।
সব কিছুই অর্থহীন, এতটা পথ চলার পরে যদি তোমার মনেহয়, সবকিছু ভুল ছিলো, তবে কি তোমার অনুভূতি কি মুখোশ পরা অাবেগ ভালো?

খুবই কষ্ট লাগে…..
বুকের ভিতরে খারাপ একটা অনুভূতি হয়, তবুও নিজেকে সামলে নেই,
এভাবেই তো এতগুলো বছর পার করে এসেছি,
জীবনে কোন এক সময় তুমি ছিলে না, কোন একসময় থাকবে না,
এটাই তো হবার অপেক্ষায় ছিলাম…..

এই যে দেখো না,
তোমাকে, অামাকে ঘিরে মানুষের কত চাওয়া,
জীবন অামার, অার মানুষ চায়! বড়ই হাস্যকর লাগে…….
বিশ্বাস করো,জীবনে যে কাজ গুলো, অামি ভালবেসে করেছি তার প্রত্যেকটাতে পাহাড় সমান সফলতা এসেছে অামার জীবনে।
তবে, বড়ই অাফসোস, অাশপাশের মানুষকে কখনোই খুশি করতে পারিনি,
তারমধ্যে তুমিও একজন।

মানুষ চাইলেই তার অতিত ভুলে যেতে পারে,
অতিত অনেকটা পোঁড়া ঘায়ের মতো, যা হয়তো শুকিয়ে যায়, দাগ ও মিটে যায়, কিন্তু চামড়ার উপরে সামান্য কালছে কিছু অাবরন রেখে যায়….
অামার অতিত গুলো এমনিই….
জীবনে মানুষকে ঘৃনা করতে শিখিনি,
কারন ঘৃনার ভয়াবহতা এখনো অামাকে তাড়া করে নিয়ে বেড়ায়….

সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে,
নিজে নিজেকে সান্ত্বনা দেই।
অনেকটা দিন ইচ্ছে মতো কাঁদা হয়না,
দিনেদিনে নিজের স্বত্ত্বার কাছে নিজেকে বড় অপরাধী মনেহয়।
নিজের ভিতরে জ্বলতে থাকা অাগুনে অার কত জ্বলবো,
সবাই হাসি মুখ দেখতে বড়ই ভালবাসে, তাইতো হাসিমুখে থাকি,
মাঝেমধ্যে প্রান ভরে কাঁদা উচিত, তাহলে হয়তো ভিতরের চেপে থাকা ধিকৃত অভিশাপ গুলো গলে গিয়ে অশ্রু হয়ে বিদায় নিবে,

দেখো,
এমন একটা সময় অাসবে,
অামি নামক কোন শব্দ তোমার মস্তিষ্কজাত থাকবে না,
তখন সবাই সবার মতো করে ব্যস্ত থাকবো।
এমনই কোন এক প্রচন্ড ব্যস্ততা নিয়েই অামি চলে যাবো,
তোমাকে না বলে। ভাল থেকো তুমি অভিমানী।
জানি, তুমি অনেক ভাল থাকবে।।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

87 − = 80