নেতৃত্বের প্রশংসা দেশে ও দেশের বাইরে

বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের প্রশংসা শুধু বাংলাদেশেই সীমাবদ্ধ নয় তা এখন দেশের বাইরেও ছড়িয়ে পড়েছে। প্রধানমন্ত্রীর দক্ষ নেতৃত্বের ফলেই বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতি হচ্ছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেরও রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস, সংস্কৃতি এবং ভবিষ্যত লক্ষ্য। সে লক্ষ্য অনুযায়ী বর্তমান সরকার বাংলাদেশকে আগামী ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে ও ২০৪১ সালে উন্নত দেশে পরিণত করার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সেই নানা বিভিন্ন দেশের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে। সম্প্রতি তুরস্কের স্বাধীনতার যুদ্ধে (১৯১৯-২২) বাংলাদেশের জনগণের সহায়তা ও সমর্থনের কথা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন তুরস্ক। একই সঙ্গে বাংলাদেশ-তুরস্কের মধ্যকার বিদ্যমান ভ্রাতৃপ্রতিম সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বলেন, দু’দেশের এ সম্পর্কের ভিত্তি ঐতিহাসিকভাবেই সুগভীর এবং এ সম্পর্ক বন্ধুত্ব ও বিশ্বাসের ওপর প্রতিষ্ঠিত। এছাড়াও দুই দেশ তাদের প্রতিশ্রুত অঙ্গীকার অনুযায়ী বিরাজমান বাণিজ্যিক সম্পর্ক আরও জোরদার হবে। বিদ্যমান বাণিজ্য এক দশমিক দুই বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে বৃদ্ধি পেয়ে পাঁচ বিলিয়নে উন্নীত হবে। এভাবে সম্পর্কের সাথে সাথে বাড়তি অর্থ উপার্জনের ব্যবস্থা হচ্ছে বাংলাদেশের। আধুনিক তুরস্কের প্রতিষ্ঠাতা কামাল আতাতুর্ককে তুরস্কের জনগণ যেমন শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে, তেমনি বাংলাদেশের জনগণও বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন ও মানুষের অধিকার আদায়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার অবদানকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে। মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের জনগণের ত্যাগ, তিতিক্ষা এবং আত্মোৎসর্গের স্মৃতি বাংলাদেশের জাতীয় জীবনে পবিত্রতম এক অম্লান অধ্যায়। এই অম্লান ত্যাগ, তিতিক্ষা যেন বিফলে না যায় সেই লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে সরকার।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “নেতৃত্বের প্রশংসা দেশে ও দেশের বাইরে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 5 = 6