দেশে কর্মক্ষেত্রে এগিয়েছে নারীরা

বাংলাদেশে গত দেড়-বছরে পুরুষদের তুলনায় নারীদের কর্মসংস্থান বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। পরিসংখ্যান ব্যুরোর শ্রমশক্তি জরিপ বলছে, দেশে ১৪ লাখ লোকের কর্মসংস্থান বেড়েছে এবং তার মধ্যে নয়-লাখই নারী। গবেষকরা বলছেন, এবারই প্রথম কর্মক্ষেত্রে পুরুষের তুলনায় নারীরা অধিক হারে এগিয়ে গেলো। যে খাতগুলোতে নারীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে তার মধ্যে কৃষিকাজ বা বেতনহীন পারিবারিক শ্রম দান থেকে নারীরা বেরিয়ে এসেছে। তার বদলে চাকরী, বিক্রয়-কাজ, ব্যবসা ইত্যাদিতে যুক্ত হয়েছে তারা। অন্যদিকে নতুন কাজে গত ২০ বছর ধরেই ট্রেন্ড দেখা যাচ্ছে যে পুরুষরা পিছিয়ে পড়েছে। কিন্তু এগিয়ে গেছেন নারীরা”। বাংলাদেশে একসময় আলঙ্কারিক অনেক পদে নারীদের অংশগ্রহণের কথা বলা হলেও এখন তারা অনেক প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে কাজ করছে। আবার একইসঙ্গে বহু ক্ষেত্রে নারীদের কাজের সুযোগ দেয়া হচ্ছে নিচের দিকের পদগুলোতে। নারীদের এই সংখ্যা বৃদ্ধি তাদের ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। শিক্ষায় পিছিয়ে থাকা নারীরাও যোগ্যতা অনুসারে কাজ খুঁজে নিচ্ছেন। ব্র্যাক এর প্রতিষ্ঠান আড়ং এর একটি আউটলেটে সিকিউরিটি গার্ড হিসেবে পুরুষদের পাশাপাশি কাজ কাজ দায়িত্ব পালন করছেন নারীরা। এক দশক ধরে অর্থনীতিতে ৬ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি হচ্ছে। সর্বশেষ গত অর্থবছরে প্রবৃদ্ধির হার ৭ শতাংশ ছাড়িয়েছে। দেশ ইতিমধ্যে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের স্বীকৃতি পেয়েছে। দেশের এ অগ্রযাত্রায় নারীর অবদান কম নয়। ব্যবসা-বাণিজ্য, উদ্যোগ আর কর্মক্ষেত্রে নেতৃত্ব দিয়ে নারীরা পুরুষের পাশাপাশি দেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন। নারীদের কাজ করা নিয়ে সমাজের মানুষের মনোভাব বদল একটি বড় কারণ। কাজেই দেখা গেছে এক দশকের ব্যবধানে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ হয়েছে অনেক। আর কর্মজীবী মানুষের সংখ্যা বেড়েছে প্রায় সোয়া এক কোটি। দেশে বর্তমানে পূর্ণকালীন কর্মজীবীরা ছাড়াও এখন অনেক মেয়েরা লেখাপড়ার পাশাপাশি কাজ করছেন নিজের ও পরিবারের আর্থিক সংস্থানের জন্য।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “দেশে কর্মক্ষেত্রে এগিয়েছে নারীরা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 9 = 10