খান মোহাম্মদ ফারাবী, এক ক্ষণজন্মা প্রতিভার নাম…

“আম্মাজান তোমার পা ছুঁয়ে বলছি
আমি আর মিছিলে যাবোনা।
খোদার কসম বলছি
আমি আর ঐ ব্যাটাদের সাথে নিশান হাতে নেবোনা।
তোমার ইজ্জতের দোহাই আম্মা
আমি আজ থেকে ভাল হয়ে যাব—
—————————-
আমি আর রাজপথে কোনদিন গান গাইবোনা
ধানের বিশাল গুচ্ছ স্নেহেতে নিভিড়
এ বুকের নগ্ন কোলে আর জড়াবোনা
সূর্যের দিকে আমি আর চাইবো না—।
কলেজে যাওয়ার পথে রোজ
বাসের পা-দানিতে কোনদিন দাঁড়াবো না আর।
সুবোধ শরীর নিয়ে এখন প্রত্যহ
আমি বড় মানুষ হওয়ার
আমি রোজ – আমি রোজ ভাল ছেলে হওয়ার
সাধনা করবো
এবং সাধনা করবো
এবং করবোই।
—————
অতএব ভয় নেই, আম্মাজান
জীবন কাহাকে বলে এবং মানুষ
হওয়ার সংজ্ঞা কি মর্মে মর্মে বুঝেছি
সুতরাং দিল সাফ– তওবা করেছিলাম আর
অমানুষ কখনো হবোনা
এবং হবোনা
হবোনা এবং————।”

এপ্রিল ১২, ১৯৭০

কবিঃ খান মোহাম্মদ ফারাবী (পিয়াল) জন্মঃ ২৮ জুলাই ১৯৫২,
পিতাঃ ফয়েজুর রহমান খান
মাতাঃ হোসেন আরা রহমান

তিন ভাই এক বোনের মধ্যে ফারাবী ছিলেন সবার বড়। ১৯৬৯ এ মাধ্যমিকে ঢাকা বোর্ডে ২য়। ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৭১ (৭২ -এ অনুষ্ঠিত) উচ্চ মাধ্যমিকে ৩য়। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে রাজনীতি সচেতন ফারাবীকে দূরে রাখতে মা-বাবা গ্রামের বাড়ি নবীনগর পাঠাই দেন। তিনি পূর্ব-পাকিস্থান ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা কলেজ শাখার সাহিত্য সম্পাদক ছিলেন । তার লিখালিখির শুরু হয় ৩য় শ্রেণীতে থাকতেই। এই অসামান্য প্রতিভা তার গ্রামের বন্দু শাহিন সহ ভারতে ট্রেনিং এ যাওয়ার আগ মুহূর্তে জন্ডিসে আক্রান্ত হন, মা-বাবার কারণে আর মুক্তিযুদ্ধে ঐভাবে অংশগ্রহণ হয় নায় ফারাবীর। ১৯৭৪ সালের ১৪ এ মে দিবাগত রাতে প্রোস্টেট ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ফারাবীর জীবনাবসান ঘটে। মাত্র ২১ বছর ১০ মাস বয়সের এই ক্ষণজন্মা অকাল প্রয়াত খান মোঃ ফারাবীর গল্প-কবিতা-প্রবন্ধের প্রায় সম্পূর্ণ সংকলনে বাংলা একাডেমীর খান মোঃ ফারাবী – “রচনা সমগ্র” বইটি বের হয় ১৯৯২ সালে।

এই ক্ষণজন্মা প্রতিভাবান লিখকের স্মরণে এই লিখা।
আপনার লিখা হয়ত আপনাকে অমরত্ব দিবে না তবে আপনার জীবন হয়ত আমাদের অনেক কিছুই দিতে পারত। এইসময়ই হয়ত আপনাকে মাথাতুলে রাখত এই বাংলা। অতি অল্প বয়সেই সেই চিহ্ন আপনি রেখেছিলেন আপনার লিখায়!
বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক…

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১০ thoughts on “খান মোহাম্মদ ফারাবী, এক ক্ষণজন্মা প্রতিভার নাম…

  1. উনার সম্পর্কে জানা ছিলোনা।
    উনার সম্পর্কে জানা ছিলোনা। এতো অল্প বয়সে মৃত্যু তার অনেক সম্ভাবনাকে মাটি চাপা দিয়েছে নিঃসন্দেহে। শ্রদ্ধা রইল।

    1. তাঁর লিখার ব্যাপ্তি দেখলেই
      তাঁর লিখার ব্যাপ্তি দেখলেই মাথা খারাপ হয়ে যাবে!!
      মাত্র ২০ বছর ১০ মাসে তিনি গল্প, কবিতা, নাটক, সাহিত্য সমালোচনা, উপন্যাস সবই লিখেছেন! সবচে বড় কথা এইটুকুন বাচ্চার লিখার ধাঁরও ছিল অসাধারণ…
      আমি রীতিমত মুগ্ধ!!
      :salute: :salute: :salute: খান মোঃ ফারাবীর জন্যে…

    1. এইবারের বইমেলায় বাংলা
      এইবারের বইমেলায় বাংলা একাডেমীর স্টল থেকে কম দামে ছাড়ে কিনা একটি মূল্যবান বই… মাত্র ৩০০ পৃষ্ঠায় ২০ বছরের এই তরুনের সব লিখা ধরলেও তার মেধাকে তুলে ধরতে তা ব্যর্থ!! অনেক বড় কিছু হারাল বোধহয় বাংলা সাহিত্য!!

  2. এরকম হয়তো হাজারো প্রতিভা মাটি
    এরকম হয়তো হাজারো প্রতিভা মাটি চাপা হয়ে গেছে। আমরা কোনো হদিস বের করতে পারিনি।
    আপনাকে অসম্ভব ধন্যবাদ। আপনার মাধ্যমে এমন ক্ষনজন্মা প্রতিভা সম্পর্কে কিছু জানলাম।

    1. আগামী বইমেলা থেকে আপনারা বইটা
      আগামী বইমেলা থেকে আপনারা বইটা সংগ্রহ করে দেখতে পারেন।
      তার কিছু ছোট গল্প মাথা খারাপ করার মত!! তখন খুব আফসোস হয়, কেন তিনি চলে গেলেন। অসামান্য প্রতিভা ছিল… :bow: :bow: খান মোঃ ফারাবীকে…

  3. অন্যভাবে নিয়েন না, প্রথমত
    অন্যভাবে নিয়েন না, প্রথমত যেহেতু এই ফারাবী নামটির সাথে আমরা অন্যভাবে পরিচিত তাই পোস্টের শিরোনাম দেহে যে আশা নিয়ে ঢুকেছিলাম সেটি পুরোই বরবাদ গিয়েছে :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি:

    এরকম আসলে অনেক লেখক আছেন যাদের অনেককেই আমরা চিনিনা। তবুও তারা মাঝে মধ্যে আপনাদের মত সচেতন লেখকদের কারণে দেরীতে হলেও অনেকের জানার মধ্যে এসে পড়েন। ধন্যবাদ জানাই আপনাকে এমন একটি লেখা পোস্ট দেবার জন্য।

    1. যার কারণে ‘ফারাবী এক
      যার কারণে ‘ফারাবী এক ক্ষণজন্মা প্রতিভার নাম’ এই শিরোনাম না দিয়ে পুরা নাম দিয়েছিয়াম!
      যাহোক, আপানাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ লিখাটা পরবার জন্যে…

  4. আপনার ফারাবী বয়ান পড়ে
    আপনার ফারাবী বয়ান পড়ে সুকান্তের কথা মনে পড়ে গেলো । সুকান্ত ও মাত্র ২১ বছর বেঁচে ছিলেন । তবে সুকান্তের সাথে তুলনা করার প্রশ্নই আসেনা । কবিতা হিসেবে এটি কিছুই হয়নি । তয় তার অন্য লেখা পড়ি নাই, হয়তো গল্প ভালো লিখতেন । যাই হোক ‘যে ফুল না ফুঁটিতে ঝরিয়া গেলো … ’। তার জন্য আমার দু’ ফোটা অশ্রু কেন নয় ?

    1. ‘যে ফুল না ফুঁটিতে ঝরিয়া গেলো

      ‘যে ফুল না ফুঁটিতে ঝরিয়া গেলো … ’; তার জন্য আমার দু’ ফোটা অশ্রু কেন নয় ?

      চমৎকার বলেছেন…
      আর ওনার বাকি লিখা আরও অনেক ভাল, বিশেষ করে গল্প!!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

70 + = 74