বকুল ফুল

বকুল ফুল, সময় অনেক কেটে গেলো তাইনা? আমি কি অনেক বদলে গেছি? বোধহয়!!! নিজের মুখোমুখি যখন হই তখন নিজেকে নিজেই চিনতে কষ্ট হয়। সেই পাখির মত উড়ে বেড়ান দিন গুলি কোথা যেন হারিয়ে গেলো? আমি আসলেই বদলে গেছি। এই বদল কি আমি কখনো চেয়েছিলাম?

না আমি বদলাতে চাইনি। আমি আমার আমিত্তে বিলীন হতে চাইলেও পারিনি, এটা একান্ত আমার ব্যার্থতা। আমি পারিনি, কিন্তু তুমি পেরেছ। তুমি এখনও সেই স্নিগ্ধতা ধরে রেখেছ ঠিক আমার কৈশোর বেলাতে দেখা তোমার মত। অনন্ত যৌবনা তুমি সুরভিত বাতসের টুকরোর ছোঁয়াতে এখনও আমার মনটাকে উচাটন করে দাও। বল তো আই অধিকার তোমাকে কে দিয়েছে। আমি তো কাঁঠালিচাঁপাকেও আই অধিকার দেইনি! তবে কেন তুমি সুযোগ পাবে।

না পারছি না, পারছি না তোমাকে বলতে চলে যাও, চলে যাও, চলে যাও। আমার যে সেই শক্তিটাকে শুষে নিয়েছ। তুমি কি করে এত শক্তি ধর বলতো।

আবেগ, সবি ঠুনকো আবেগ। নিজেকে কোথা দিয়েছিলাম আবেগের দাস হবো না কোনদিন, না পারি নি পারিনি নিজেকে দেয়া কথাটা রাখতে। নির্দয় তুমি।

জানি আসবে না সেদিন,
পাণ্ডবের মত লড়াই করে আনব সুদিন।
আমি হবো তোমার সারথি পার্থ,
ঠিক সেই কালো বাঁশীওয়ালাটার মত।
মন্ত্রমুগ্ধ তুমি হেরিদিথের কালো ডানাতে ভাসবে,
আর আমি করবো আগুন চুরি প্রমিথিউস এর মত।
চুরি করবো আমার তোমার কৈশোর,
সাদা সপ্নের নদীতে কাগজের নৌকা ভাসাব।
আমি নকল সিংহাসন ছাড়বো, আর তুমি করবে কপট তিরস্কার,
জীবনের ছায়ানটে বাঁধবো মালা বকুল ফুলে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৭ thoughts on “বকুল ফুল

  1. না পারছি না, পারছি না তোমাকে

    না পারছি না, পারছি না তোমাকে বলতে চলে যাও, চলে যাও, চলে যাও। আমার যে সেই শক্তিটাকে শুষে নিয়েছ। তুমি কি করে এত শক্তি ধর বলতো।

    সহমত…

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

89 + = 92